fbpx
কলকাতাদেশহেডলাইন

গরিব কল্যাণ রোজগার অভিযানে বাংলার নাম অন্তর্ভুক্তির দাবিতে চিঠি!

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: গরিব কল্যাণ রোজগার অভিযানে রাজ্যের নাম অন্তর্ভুক্তির জন্য প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি পাঠানোর পরের দিনই, মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি দিলেন লোকসভায় কংগ্রেস দলনেতা অধীর চৌধুরী। প্রধানমন্ত্রীকে দেওয়া চিঠিতে প্রকল্পে পশ্চিমবঙ্গের নাম অন্তর্ভুক্তির জন্য অনুরোধ করেছেন তিনি। অন্যদিকে অধীর চৌধুরী মুখ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছেন তালিকায় অন্তর্ভুক্তির জন্য কেন্দ্রের কাছে দরবার করতে।

আমি আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করে জানাচ্ছি, আপনি গরীব কল্যাণ রোজগার অভিযানের ঘোষণা করেছেন। তাতে ৬ টি রাজ্যের ১১৬ টি জেলা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে এবং ওই প্রকল্পের আওতায় কাজ হারিয়ে ভিন রাজ্য থেকে ঘরে ফেরা পরিযায়ী শ্রমিকরা ১২৫ দিনের কাজ পাবেন। এই কর্মসূচির আওতায় আসার জন্য মানদন্ড টি হলো, যে জেলাগুলোতে পরিযায়ী শ্রমিকদের জনসংখ্যা ন্যূনতম ২৫ হাজার এবং লকডাউন এর কারনে কাজ হারিয়ে পরিযায়ী শ্রমিকরা নিজেদের গ্রামে ফিরতে বাধ্য হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির উদ্দেশ্যে চিঠি লিখলেন লোকসভায় কংগ্রেসের নেতা অধীর রঞ্জন চৌধুরী। পশ্চিমবঙ্গ ভারতের অন্যতম প্রধান রাজ্য যেখানে বিশাল সংখ্যক পরিযায়ী শ্রমিকেরা বাস করেন। আমি অবাক হয়ে গেছি এটা দেখে, পশ্চিমবঙ্গের একটি জেলাকেও গরিব কল্যাণ রোজগার অভিযানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। অধীর চৌধুরীর প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি পাঠিয়েছেন। অধীর চৌধুরী চিঠিতে উল্লেখ করেছেন, লক্ষ লক্ষ পরিযায়ী শ্রমিক রাজ্যে ফিরেছেন লকডাউনের সময়। সেই সময় থেকে পরিযায়ীরা চাকরিহীন। কোনও আশার আলো দেখতে পাচ্ছেন না তাঁরা। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় বড় সংখ্যায় পরিযায়ীরা থাকলেও, রাজ্যের কোনও জেলার নাম এই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত না হওয়ায় তিনি অবাক হয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গের যেসব জেলায় পরিযায়ীর সংখ্যা বেশি সেইসব জেলাকে গরিব কল্যাণ রোজগার যোজনার অন্তর্ভুক্ত করার আবেদন করেছেন অধীর।

আর পড়ুন: নিজের বক্তব্যের অর্থ কী দাঁড়াতে পারে তা নিয়ে সতর্ক হওয়া উচিত প্রধানমন্ত্রীর: মনমোহন

এদিন সকালে বিষয়টি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও চিঠি দিয়েছেন অধীর চৌধুরী। সেখানে তিনি মুখ্যমন্ত্রীর কথা স্মরণ করিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন রাজ্যে অন্তত ১০ লক্ষ পরিযায়ী এসেছেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রস্তাব দিয়ে তিনি বলেছেন, প্রকল্পের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্ব দিন এবং যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এই কর্মসূচির আওতায় বাংলাকে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য মুখ্যমন্ত্রীকে উদ্যোগ গ্রহণের পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close