fbpx
কলকাতাহেডলাইন

ক্লাব, বেসরকারি সংস্থার কাছে অ্যাম্বুলেন্স ও শববাহী গাড়ি চেয়ে চিঠি পুরসভার

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বর্তমান পরিস্থিতিতে পুরসভার ঝুলিতে থাকা যৎসামান্য অ্যাম্বুলেন্স এবং শববাহী গাড়ি যোগান দিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে কর্তৃপক্ষকে। তাই পরিস্থিতির সামাল দিতে বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা ক্লাব সংগঠন থেকে অ্যাম্বুলেন্স এবং শববাহী গাড়ি জোগাড় করতে তৎপর হয়েছে কলকাতা পুরসভা। পুরসুত্রে খবর, ইতিমধ্যে বিভিন্ন ক্লাব, বেসরকারি সংস্থার সঙ্গে যোগাযোগ করে ত্রিশটি অ্যাম্বুলেন্স যোগাড় করা সম্ভব হয়েছে।
বর্তমানে পুরসভাকে চার ধরনের কাজে অ্যাম্বুলেন্স এবং মরদেহবাহী যানের যোগান দিতে হচ্ছে। প্রথমত, করোনা আক্রান্তকে বাড়ি থেকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া এবং হাসপাতাল থেকে বাড়িতে পৌঁছানো। দ্বিতীয়ত, করোনা মৃত্যু হলে সেখান থেকে বডি সৎকারের জন্য মরদেহবাহী যানের ব্যবস্থা করা। তৃতীয়ত, বাড়ি থেকে সরকারি পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া এবং ফের বাড়িতে পৌঁছানোর জন্য অ্যাম্বুলেন্স প্রয়োজন। চতুর্থত, সেফ হোমে নিয়ে যাওয়ার বা বাড়িতে পৌঁছানোর জন্য অ্যাম্বুলেন্স। কিন্তু পুরসভার হাতে থাকা ১৬টি অ্যাম্বুলেন্স এবং মাত্র ৬টি শববাহী গাড়ি দিয়ে সেই চাপ সামলানো যাচ্ছে না। তাই অ্যাম্বুলেন্স এবং শববাহী শকট বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন ক্লাব, সংগঠন বা বেসরকারি সংস্থাকে চিঠি দিয়ে সাহায্য চাওয়া হয়েছে। পাশাপাশি পুরসভার নিজস্ব মরদেহবাহী যান কেনার প্রক্রিয়াও চলছে।
এই প্রসঙ্গে পুর-স্বাস্থ্য বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত তথা পুর-প্রশাসকমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য অতীন ঘোষ বলেন, “আমাদের প্রাথমিক টার্গেট, বিভিন্ন সাংসদ এবং বিধায়কের তহবিলের টাকায় যে অ্যাম্বুলেন্সগুলি অনেকের হাতে পড়ে রয়েছে সেগুলি নিজেদের আওতায় নিয়ে আসা। সেই মতই পদক্ষেপ করা হয়েছে।” এছাড়াও রাজ্য সরকারের সঙ্গে কথা বলে মরদেহবাহী যানের ব্যবসা করা সংস্থাগুলির সঙ্গেও যোগাযোগ করেছে পুরসভা। অতীনবাবু বলেন, “প্রয়োজনে তাঁদের সঙ্গে চুক্তি ভিত্তিতে মরদেহবাহী যান ভাড়া নিয়ে সেগুলি কাজে লাগানো হবে”।
উল্লেখ্য, কলকাতা পুরসভার প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম কিছু দিন আগেই জানিয়েছিলেন, কলকাতা পুরসভার কন্ট্রোলরুমে ফোন করলেই পাওয়া যাবে অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা। তবে সেক্ষেত্রে তিনি উল্লেখ করেছিলেন তা কেবলমাত্র নন কোভিদ রোগীদের জন্য। কিন্তু এবার শুধু নন কোভিড নয় যে কোনও রোগীর ক্ষেত্রেই অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা বাড়ানোর ক্ষেত্রে উদ্যোগী হচ্ছে কলকাতা পুরসভা।

Related Articles

Back to top button
Close