fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আইনজীবী রজত দে হত্যাকাণ্ডে যাবজ্জীবন স্ত্রী অনিন্দিতার

শ‍্যাম বিশ্বাস, উওর ২৪ পরগনা: নিউটাউনে আইনজীবী রজত দে-র হত্যাকাণ্ড মামলায় স্ত্রী অনিন্দিতার যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। সোমবার বারাসাত আদালতে অনিন্দিতা দোষী প্রমাণিত হয়। কিন্তু খুনের প্রত্যক্ষ কোনও তথ্য-প্রমাণ ছিলনা। শুধুমাত্র ইলেকট্রনিক ও ডিজিটাল এভিডেন্সের উপর ভিত্তি করে নিউটাউনে আইনজীবী রজত দে খুনের মামলায় স্ত্রী অনিন্দিতাকে দোষী সাব্যস্ত করে আদালত। খুন ও তথ্যপ্রমাণ লোপাটের মামলা রুজু করা হয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে।

বুধবার সাক্ষ্যপ্রমাণ খতিয়ে দেখে দোষী অনিন্দিতা পালকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের নির্দেশ দেন বিচারক। যদিও রজতের স্ত্রীর সর্বোচ্চ সাজার দাবি জানিয়েছিলেন নিহত আইনজীবীর পরিবার। তবে আদালতের রায়ে খুশি তাঁরা।  সরকারি আইনজীবী জানান, এই মামলায় ডিজিটাল তথ্য-প্রমাণ খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।

[আরও পড়ুন- নেতাজি মূর্তির উন্মোচন আলিপুরদুয়ারে]

গত ২০১৮ সালের ২৪ নভেম্বর রাতে নিউটাউনের ডিবি ব্লকের ফ্ল্যাটে আইনজীবী রজত দে’র অস্বাভাবিক মৃত্যু হয়। আইনজীবীর বাবা দাবি করেন, এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত তাঁর আইনজীবী পুত্রবধূ অনিন্দিতা পাল। যদিও অনিন্দিতা সেই দাবি খারিজ করে দেয়। প্রথমে জানায়, স্বামীর মৃত্যু নিছকই দুর্ঘটনা। পরে আবারও নিজের বয়ান বদল করে। জানায়, তার স্বামী রজত আত্মঘাতী হয়েছেন। তদন্তে নেমে পুলিশ অনিন্দিতাকে গ্রেফতার করে। হাইকোর্টে তার জামিনের আবেদন খারিজ হয়ে যায়। ঘটনার জল গড়ায় সর্বোচ্চ আদালতেও।

সুপ্রিম কোর্ট থেকেও জামিন পায় অনিন্দিতা। তাই আপাতত জেলের বাইরেই ছিল সে। মূল মামলাটি বারাসত আদালতে চলছিল। একাধিক সাক্ষ্যপ্রমাণ খতিয়ে দেখা হয়। সোমবার মামলার শুনানি চলাকালীন পুলিশকে তীব্র ভর্ৎসনা করেন বিচারক। তারপরই তিনি জানিয়ে দেন, দুর্ঘটনা কিংবা আত্মহত্যা নয়। বিভিন্ন তথ্যপ্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে রজতকে খুন করা হয়েছিল। সেই ঘটনায় রজতের স্ত্রী অনিন্দিতাকেই দোষী সাব্যস্ত করেন বিচারক। অনিন্দিতার চরম শাস্তির দাবি জানিয়েছিলেন নিহতের পরিজনেরা। বুধবার সকালে বারাসত আদালতের বাইরেও প্রচুর মানুষ সেই একই দাবি জানান। তবে বিচারক সমস্ত সাক্ষ্যপ্রমাণ খতিয়ে দেখে অনিন্দিতার যাবজ্জীবন সাজার কথাই ঘোষণা করেন।

 

Related Articles

Back to top button
Close