fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

স্বাধীনতা দিবসের মঞ্চে দাঁড়িয়েই চিন-পাকিস্তানকে কড়া বার্তা প্রধানমন্ত্রীর

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  গত ৭৪ বছরে সবচেয়ে ব্যতিক্রমী স্বাধীনতা দিবস। স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে লালকেল্লায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। করোনা আবহে এবারের অনুষ্ঠান খানিক জাঁকজমকহীন। দেশবাসীর উদ্দেশে বক্তব্যও রাখেন প্রধানমন্ত্রী। জানান, গত এক বছরে তাঁর সরকার কী কী কাজে সফল হয়েছে। আর তখনই উঠে আসে কাশ্মীর প্রসঙ্গ। প্রধানমন্ত্রী জানান, খুব শীঘ্রই জম্মু–কাশ্মীরকে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া লেহ–লাদাখ–কার্গিলেও উন্নয়নমূলক কাজ করা হবে। দেশের সার্বভৌমত্বকে চ্যালেঞ্জ করলে তার কড়া জবাব মিলবে বলে জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।এদিন স্বাধীনতা দিবসের মঞ্চে দাঁড়িয়েই তিনি কড়া বার্তা পাঠান চিন ও পাকিস্তানের প্রতি।

মোদি বলেন, ‘‌‘‌গত এক বছরে কেন্দ্র অনেক বলিষ্ঠ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তার মধ্যে অবশ্যই একটি হল জম্মু–কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা রদ। সীমানা নির্ধারণের কাজ শেষ হলেই খুব শীঘ্র জম্মু–কাশ্মীরে নির্বাচনের আয়োজন করা হবে। উপত্যকার মানুষ খুশি। সেখানে মহিলা–দলিতরা নিজেদের অধিকার ফিরে পেয়েছে।’‌এর পাশাপাশি লাদাখ প্রসঙ্গে মোদি বলেন, ‘‌‘‌লাদাখের মানুষের বহুদিনের দাবি পূরণ হয়েছে। বর্তমানে সেখানে কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয় তৈরি হচ্ছে, হোটেল ম্যানেজমেন্টের কোর্স চালু হয়েছে। খুব শীঘ্রই সোলার প্লান্টও বসবে।’‌লে–লাদাখ এলাকার সার্বিক উন্নয়নই যে কেন্দ্রের লক্ষ্য তাও জানান প্রধানমন্ত্রী।

এদিন প্রধানমন্ত্রীর ভাষণে উঠে আসে গত জুন মাসে লাদাখের গলওয়ান উপত্যকায় ভারত ও চিনা সেনার মধ্যে প্রাণঘাতী সংঘর্ষের প্রসঙ্গ। মোদী বলেন, ‘ভারতের সার্বভৌমত্ব আমাদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের জওয়ানরা কী করতে পারেন, আমাদের দেশ কী করতে পারে, তা লাদাখে গোটা বিশ্ব দেখেছে। আজ লালকেল্লা থেকে সেই সব বীর জওয়ানদের আমি শ্রদ্ধা জানাই।’

প্রধানমন্ত্রী জানান, “আজ আমরা স্বাধীনভাবে সবকিছু করতে পারছি অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মবলিদানের জন্য। কিন্তু এই স্বাধীনতাকে যুগের পর যুগ অক্ষুন্ন রাখছে আমাদের নিরাপত্তা বাহিনী, সেনাবাহিনী, পুলিশ সহ একাধিক সুরক্ষা বাহিনীর, তাঁদের জন্যই আমরা নিশ্চিন্তে রয়েছি। তাঁরা সীমান্তে রক্ত ঝড়িয়ে আমাদের সুরক্ষা দিচ্ছেন। এলওসি, এলএসি দিকে যাঁরা চোখ তুলে তাকিয়েছিল তাঁদের যোগ্য জবাব দেওয়া হয়েছে”। এছাড়া দেশে বর্তমান পরিস্থিতি করোনা মোকাবিলা করতে যেসব যোদ্ধারা প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে তাঁদেরকেও ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

আরও পড়ুন: দেশটা যদি ভাগ না হত…..

তিনি বলেন “চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী সহ যাঁরা যে সব যোদ্ধারা প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এই মারণ ভাইরাসকে প্রতিহত করছে তাঁদের প্রতি আমার শ্রদ্ধা রইল। বহু মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন, প্রাণ হারিয়েছেন। তবে আমরা আশাবাদী যে এই সঙ্কটকে আমরা হারিয়ে আগের জীবনে ফিরে আসবো”।

এদিকে, এদিনের ভাষণে পরিবেশ সংক্রান্ত বেশ কিছু বিষয়েও বক্তব্য রাখেন মোদি। জানান, প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে দেশের ১০০ শহরকে দূষণ মুক্ত করার কাজ শুরু হবে। এছাড়া দেশে জঙ্গলের পরিমাণ বৃদ্ধির পাশাপাশি বেড়েছে জাতীয় পশু বাঘের সংখ্যা। এবার সরকারের লক্ষ্য ‘‌প্রজেক্ট লায়ন’ এবং ‘‌প্রজেক্ট ডলফিন’। প্রধানমন্ত্রীর দাবি, এতে যেমন জীববৈচিত্র বাড়বে, তেমনই রোজগারও বাড়বে। এর পাশাপাশি আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী। জানান, আগামী ১০০০ দিনে লাক্ষাদ্বীপকেও সাবমেরিন অপটিকাল ফাইবার দিয়ে জোড়া হবে। উপকূলবর্তী এলাকার জেলাগুলোতে এনসিসির ক্যাডেটের সংখ্যা বাড়ানো হবে। ওই এলাকায় এক লক্ষেরও বেশি এনসিসির ক্যাডেট তৈরি করা হবে। চেষ্টা করা হবে, তাতে যেন এক তৃতীয়াংশ মেয়েরা হয়।

Related Articles

Back to top button
Close