fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

তৃণমূল নেতা গ্রেফতারে দাবিতে অবস্থান বিক্ষোভের সামিল স্থানীয় বাসিন্দারা

মিলন পণ্ডা, নন্দীগ্রাম (পূর্ব মেদিনীপুর): তৃণমূল নেতা তথা পূর্ত কর্মদক্ষকে গ্রেফতারে দাবিতে অবস্থান বিক্ষোভে সামিল এলাকার স্থানীয় বাসিন্দারা। ঘটনার খবর পেয়ে ছুটে আসে নন্দীগ্রাম থানার পুলিশ। পুলিশের সঙ্গে তর্ক বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন বিক্ষোভকারী বাসিন্দারা। আমফানে ক্ষতিপূরণ ও  দুর্নীতির অভিযোগ তুলে পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় নন্দীগ্রাম ২ ব্লকের আমেদাবাদ ১ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার মানুষ তৃণমূল নেতা সঞ্জয় দিণ্ডা অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি তুলে বিক্ষোভ দেখান।

 

ওই তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে রেশন কার্ড না থাকা সত্ত্বেও রেশন সামগ্রী তুলেছিল বলে অভিযোগ উঠেছিল। গত তিন বছর ধরে ওই রেশন সামগ্রিক আত্মসাৎ করেছে ওই তৃণমূল নেতা বলে স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ। বিক্ষোভকারীদের দাবি ক্ষতিপূরণের  সঠিকভাবে নাম তুলতে হবে। যারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন তাদের সরকারী সাহায্য দিতে হবে। এই অবস্থান-বিক্ষোভ ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার নন্দীগ্রাম আমেদাবাদ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা। অবশেষে পুলিশের হস্তক্ষেপে অবস্থান বিক্ষোভ তুলে নেয় স্থানীয় বাসিন্দারা।

 

এইনিয়ে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার বিজেপি সম্পাদক প্রলয় পাল বলেন, নন্দীগ্রাম ২ ব্লকের আমেদাবাদ ১ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় একাধিক গ্রামের মানুষ অভিযোগ করেছেন যে, তাদের রেশন কার্ড না দিয়ে রেশন সামগ্রীর তুলে নেওয়া হচ্ছে। অবিলম্বে অভিযুক্তদের চিহ্নিত করে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। গ্রাম পঞ্চায়েত সমিতির জনস্বার্থ কর্মদক্ষ পরিতোষ জানা বলেন, যদি এরকম কেউ করে থাকেন তাহলে ওর বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। যদিও ওই তৃণমূল নেতা তথা পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ সঞ্জয় দিণ্ডার কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। প্রসঙ্গত, গত কয়েকদিন আগে ওই তৃণমূল নেতার নামে একাধিক দুর্নীতির অভিযোগ তুলে এলাকায় পোস্টার পড়েছিল। নন্দীগ্রামে কয়েকদিন আগে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কুশপুতুল পোড়ানো হয়েছিল।

Related Articles

Back to top button
Close