fbpx
দেশহেডলাইন

২ মাস বন্ধ থাকার পর আজ ফের শুরু বিমান চলাচল

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: করোনার জেরে প্রায় দুমাস বন্ধ থাকার পর আজ ফের আন্তর্দেশীয় বিমান চলাচল শুরু হল। যাত্রীরাও বাড়ি ফেরার জন্য এতদিন অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করেছেন। সোমবার সকাল থেকেই কাছে বিমানবন্দরে মাস্ক পরা ঘরমুখী মানুষের ঢল। সোমবার সকাল থেকেই দেশের প্রায় প্রতিটা বিমানবন্দর ভরে উঠেছে কানায় কানায়। প্রথম দিনেই অসংখ্য যাত্রীকে দেখা গেল বিমানবন্দরগুলিতে ভিড় করতে।

কিন্তু আপাতত বিশেষ সর্তকতা এবং নিয়ম, নির্দেশিকা মেনেই শুরু হয়েছে বিমান পরিষেবার কাজ। যাত্রীদের যেমন একাধিক নিয়মকানুন পালন করতে হচ্ছে তেমনই বিমানবন্দরের কর্মীদেরও দেওয়া হয়েছে বিভিন্ন নির্দেশিকা। বিমান ছাড়ার বহু আগে থেকেই বিমানবন্দরে যাত্রীদের পৌঁছাতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। থার্মাল স্ক্রিনিং না করে বিমানবন্দরে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না কাউকেই। পাশাপাশি বিমানবন্দরের কর্মীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে প্রত্যেককে পিপিই কিট পড়ে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিমানবন্দরের অন্দরে মাস্ক ও স্যানিটাইজার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

চেন্নাই বিমানবন্দরে দেখা যাচ্ছে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখেই টিকিটের লাইন চলছে। তবে চেন্নাই বিমানবন্দরে প্রতিদনিন ২৫ এর বেশি যাত্রী নামতে পারবে না। দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর থেকে রওনা দেওয়া প্রথম ফ্লাইট পুনেতে অবতরণ করেছে। শহরে ফিরে এক যাত্রী জানালেন, “বিমানে ওঠার আগে সুরক্ষা নিয়ে বেশ চিন্তিত ছিলাম। সমস্ত যাত্রীরাই গাইড লাইন মেনেছেন। খুব অল্প সংখ্যা মানুষই এখন বিমানে যাতায়াত করছেন।” বিভিন্ন বিমানবন্দরের ছবিতে দেখা যাচ্ছে যাত্রীরা লকডাউনের নিয়ম কানুন মেনেই বিমানে চড়ছেন। বিমানে লাগেজ নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রেও বিধি নিষেধ আরোপ করা হয়েছে। সঙ্গে সমস্ত রকম নিরাপত্তা বলয় পেরিয়ে আসার বিষয় তো রয়েইছে।

আরও পড়ুন: ভোগান্তি লাঘব করতে, আরও ৪৯টি রুটে নামছে বাস

আবার অন্যদিকে,  প্রথম দিন উড়ান পরিষেবা চালু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই একগুচ্ছ অভিযোগ এসেছে যাত্রীদের তরফ থেকে। যাত্রীদের অভিযোগ তাঁদের না জানিয়েই বহু বিমান ইতিমধ্যেই বাতিল করা হয়েছে। দিল্লিতে এখনও পর্যন্ত বাতিল হয়েছে ৮২টি উড়ান। একই দৃশ্য মুম্বইয়ের ছত্রপতি শিবাজী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের। সেখানেও বহু যাত্রীকে ভোর বসে থাকতে দেখা গিয়েছে এবং তাঁরা পরে জানতে পেরেছেন যে তাঁদের উড়ান বাতিল হয়ে গিয়েছে। তবে ঠিক কী কারণে এত সংখ্যক উড়ান বাতিল করা হল তা এখনও জানা যায়নি। প্রথম দিনেই এমন বিভ্রান্তির কারণে কার্যত ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন বিমানবন্দরে আগত যাত্রীরা। অন্যান্য দিনের তুলনায় এদিন অনেক বেশি সময় হাতে নিয়ে যাত্রীদের বিমানবন্দরে আসতে হয়েছে। তার কারণ সকলের থার্মাল স্ক্রিনিং এবং ভালোভাবে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে তারপরেই বিমানবন্দর চত্বরে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে। এত কিছুর পরেও পরিষেবা না মেলায় বিমান কর্মীদের উপর একরাশ ক্ষোভ উগরে দিতে দেখা গিয়েছে একাধিক যাত্রীকে।

Related Articles

Back to top button
Close