fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

লোডশেডিং হলেই অন্ধকারে ঢাকা পড়ছে মাধবডিহি ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্র, ভরসা মোমবাতি

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: জেনারেটার থাকলেও তেলের যোগান নেই। সব ইনভার্টারও বিকল হয়ে পড়ে রয়েছে। তাই বিদ্যুৎ বিভ্রাট ঘটলেই অন্ধকারে ঢাকা পড়ে যায় পূর্ব বর্ধমানের মাধবডিহি ব্লক স্বাস্থ্য কেন্দ্র। মোমবাতির আলোতে ভরসা রাখতে হয় হাসপাতালের রোগী ,চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীদের।স্বাস্থ্য কেন্দ্রের এই অবস্থার পরিবর্তন চেয়ে প্রশাসনের না মহলের দৃষ্টি আকর্ষন করেছিলেন মাধবডিহির বাসিন্দারা। কিন্তু তার পরেও সুরাহা হয়নি।সেই কারণে হারিকেন অথবা মোমবাতি সঙ্গে না নিয়ে রোগী কিংবা প্রশুতিকে হাসপাতালে ভর্তি করতে যান না পরিজনরা।

মাধবডিহি হাসপাতালের এই দুরাবস্থার কথা অস্বীকার করেননি মেডিকেল টেকনোলজিস্ট প্রভাত কুণ্ডু।শুক্রবার তিনি বলেন ,হাসপাতালে বড় জেনারেটার রয়েছে ।কিন্তু তেলের অভাবে সেটি চালানো যায়না। তাই লোডশেডিং হলে হাসপাতালের সবাইকেই চরম সমস্যায় পড়তে হচ্ছে । মোমবাতি জ্বালিয়ে রোগীদের চিকিৎসা করতে হয়। লোডশেডিং হলে এখন মোমবাতির আলোতেই ভরসা রাখতে হয় রোগী, চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীদের । বিঘ্নিত হয় চিকিৎসা পরিষেবা কাজও । জেনারেটার না চলায় রোগী , চিকিৎসক , স্বাস্থ্য কর্মী সবাইকেই সমস্যায় পড়তে হয় ।প্রভাত বাবু বলেন ,দ্রুত বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া জরুরি হয়ে পড়েছে ।তা না হলে সঠিক পরিষেবা দানে সমস্যা তৈরি হচ্ছে ।

আরও পড়ুন: ৪২ কোটিতে সাঁজতে চলেছে খয়েরবাড়ি, প্রথম মিনি জু পেতে যাচ্ছে আলিপুরদুয়ার

মাধবডিহি স্বাস্থ্য কেন্দ্রটির উপর নির্ভরশিল রায়না ২ ব্লকের ২০-২৫টি গ্রামের বাসিন্দারা । বিশেষত রাতবিরেতে যে কোন শারীরিক সমস্যায় এই ব্লকের মানুষজন যে কোন শারীরিক সমস্যার চিকিৎসার জন্য মাধবডিহি হাসপাতালেই ছুটেযান । কিন্তু লোডশেডিং হলে তারা কি করবেন বুঝে উঠতে পারেন না। কেউ হারিকেন হাতে নিয়ে আবার কেউ বাজার থেকে মোমবাতি কিনেনিয়ে তবেই পৌছান হাসপাতালে । এলাকার বাসিন্দারা বলেন, সরকারের দেওয়া জেনারেটার হাসপাতালে থাকলেও তা তেলের অভাবে চলে না। ইনভার্টার গুলিও বিকল হয়ে পড়ে রয়েছে।দিনের পর দিন সরকারি হাসপাতালে
এমন অব্যাবস্থা জারি থাকলেও কোন ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না ।

এই বিষয়ে জেলা পরিষদের স্বাস্থ্য কর্মাধ্যক্ষ বাগবুল ইসলাম বলেন, এমন ঘটনা আমার জানা নেই ।জেলা পরিষদেও কেউ কিছু জানায় নি। তবে খোঁজ নিয়ে দেখছি। এমনটা হয়ে থাকলে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অপর দিকে ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক সঞ্জয় গুহ বলেন,সমস্যার সমাধান নিয়ে বিডিওর সঙ্গে তাঁর আলোচনা হয়েছে ।

Related Articles

Back to top button
Close