fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

কেন্দ্রের কাছে ২০ কোম্পানি সেন্ট্রাল আর্মড পুলিশ ফোরস দেওয়ার অনুরোধ মহারাষ্ট্রের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি করোনা বিধ্বস্ত রাজ্য মহারাষ্ট্র। ইতিমধ্যেই মারণ ভাইরাস করোনার দাপটে মৃত্যুপুরীতে রূপান্তরিত হয়েছে মারাঠা ভূমি। ইতিমধ্যেই মহারাষ্ট্রে এক হাজারেরও বেশি পুলিশকর্মী করোনা আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। তার মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৭ জনের। ভারতের সবথেকে বেশি করোনা আক্রান্তের সংখ্যা মহারাষ্ট্রেই রয়েছে। এই রাজ্যে এখনও পর্যন্ত ২৪ হাজারেরও বেশি মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যুর সংখ্যাও হাজারের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে রয়েছে। এমতাবস্থায় করোনা ভাইরাসের জন্য পুলিশ রাস্তায় আছেন মার্চ মাসের ২২ তারিখ থেকে, তাই তাঁদের বিশ্রাম দিতে কেন্দ্রের কাছে ২০ কোম্পানি সেন্ট্রাল আর্মড পুলিশ ফোরস দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছে মহারাষ্ট্র।

মহারাষ্ট্রের স্বরাষ্ট্রসচিব জানিয়েছেন, ‘করোনা মহামারিতে দিনরাত এক করে কাজ করছে রাজ্য পুলিশ। ইদ আসছে। সেখানেও শৃঙ্খলা বজায় রাখার প্রস্তুতি নিতে হবে। তাঁদেরও বিশ্রাম দরকার। সেদিকে তাকিয়ে রাজ্য সরকারের তরফে ২০ কোম্পানি সেন্ট্রাল আর্মড পুলিশ ফোরস অথবা ২০০০ পুলিশ দেওয়ার অনুরোধ কেন্দ্রকে জানানো হয়েছে’। এর আগে, মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরে জানিয়েছিলেন, রাজ্যের তরফে সেন্ট্রাল ফোরস পাঠানোর অনুরোধ জানানো হবে। শুক্রবার তিনি জানিয়েছিলেন, ‘রাজ্যের সব দফতর ভীষণ চাপে কাজ করছে, ডাক্তার, নার্স, সাফাই কর্মী থেকে পুলিশ সকলেই। বিনা বিশ্রামে কাজ করতে করতে ক্লান্ত হয়ে যাচ্ছেন পুলিশরা, কেউ অসুস্থ হয়ে পরছেন। তাঁরাও তো মানুষ। তাঁদের অসুবিধা গুরুত্ব না দেওয়া মানে কঠোরতা’।

বিশ্ব মহামারি করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় সামনে থেকে লড়াই করছে পুলিশ, তাদের মধ্যে ১০০০ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। জানা গিয়েছে মহারাষ্ট্র পুলিশে এখনও অবধি করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৮ জন। যার মধ্যে পাঁচজন মুম্বইতেই।মুম্বইয়ের শহরতলির পরিস্থিতি চিন্তায় ফেলছে প্রশাসনকে। তবে ওরলি কলিওয়াডা কিছুটা হলেও আশার আলো দেখাচ্ছে। কনটেইনমেন্ট জোন ম্যানেজমেণ্টে জোর দিয়ে এবং ট্রান্সমিশন চেন ভেঙে উদাহরণ তৈরি করেছে। একমাসের বেশি কনটেইনমেন্ট জোন হিসেবে থাকার পরে ৭০ শতাংশ এলাকার সিল খুলে দেওয়া হয়েছে। ওরলি মডেলকে সফলতার রাস্তা হিসেবে তুলে ধরছে মুম্বই সিভিক বডি। শেষ সাতদিনে প্রত্যেকদিন ১০০০ সংক্রমণ সামনে এসেছে। ভারতে সবচেয়ে বেশি করোনা ভাইরসে আক্রান্ত এখন মহারাষ্ট্রেই।

আরও পড়ুন: করোনা মোকাবিলায় কেন্দ্রের ঘোষণা করা প্যাকেজ আল্টিমেটলি অশ্ব-ডিম্ব’ কটাক্ষ মমতার

উল্লেখ্য, দেশের মধ্যে সবথেকে খারাপ অবস্থা এই মুহূর্তে মহারাষ্ট্রের। এখনও পর্যন্ত মহারাষ্ট্রে আক্রান্ত হয়েছেন ২৪,৪২৭ জন এবং প্রাণ হারিয়েছেন এখনও পর্যন্ত ৯২১ জন। করোনা মোকাবিলায় হিমশিম অবস্থা মহারাষ্ট্র সরকারের। মূলত বাণিজ্য নগরী মুম্বইতে করোনা মোকাবিলায় আক্রান্ত হয়েছেন মুম্বাই পুলিশের শীর্ষ কর্তা থেকে সাধারণ পুলিশকর্মী অনেকেই। লকডাউন পরিস্থিতি মানাতে এবং আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার ক্ষেত্রে অসুবিধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে মহারাষ্ট্র সরকার এবং মুম্বই পুলিশ আধিকারিকদের। এই পরিস্থিতি মোকাবিলায় মহারাষ্ট্র সরকারের পক্ষ থেকে কেন্দ্রের কাছে আধাসামরিক বাহিনী পাঠাতে অনুরোধ করা হয়েছিল।

রাজ্যের শোচনীয় পরিস্থিতির কথা ভেবে কেন্দ্রের কাছে সেনার দাবি জানিয়েছিল মহারাষ্ট্র সরকার।  বেসরকারি সূত্রের খবর মহারাষ্ট্র সরকারের আধাসামরিক বাহিনী পাঠানোর দাবি ইতিমধ্যেই মেনে নিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। খুব শীঘ্রই মহারাষ্ট্রের পরিস্থিতি মোকাবিলায় নামতে চলেছে ২০ কোম্পানি আধাসামরিক বাহিনী। বুধবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের তরফ থেকে জানানো হয়েছে যে, যত শীঘ্র সম্ভব মহারাষ্ট্রে অতিরিক্ত আধাসামরিক বাহিনী পাঠাবে কেন্দ্র।

 

Related Articles

Back to top button
Close