fbpx
পশ্চিমবঙ্গ

মালদায় গার্হস্থ্য হিংসার বলি ১

মিল্টন পাল,মালদা: বোনের উপর অত্যাচারের বদলা নিতে জামাইবাবুকে পিটিয়ে খুন। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার মালদার কালিয়াচক থানার বাখরপুর গ্রামে। ঘটনার পর রক্তাক্ত অবস্থায় জামাইকে উদ্ধার করে মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে। ঘটনার পর মৃতের পরিবারের পক্ষ থেকে মৃতের শ্যালক রাসিদুল শেখের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের পাঠিয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতের নাম ইয়াসিন শেখ (৫০)। দীর্ঘ কয়েক বছর আগে বাখরপুর এলাকার বাসিন্দা রাবিনা বিবিকে বিয়ে করেছিলেন ইয়াসিন শেখ। কিন্তু ইয়াসিন শেখ বিভিন্ন ধরনের নেশায় আসক্ত ছিলো। টাকা নিয়ে বাড়িতে স্ত্রীর সঙ্গে মাঝেমধ্যেই অশান্তি হচ্ছিল। এমনকি বাড়ির রেশন সামগ্রী বিক্রি করে মদ খাওয়ার টাকা জোগাড় করতো জামাই ইয়াসিন সেখ। প্রতিবাদ করলেই স্ত্রীকে মারধর করা হতো বলে অভিযোগ। এই বিষয়টি জানতে পারে রাবিনা বিবির পরিবার।পুলিশ আরও জানিয়েছে, শুক্রবার রাতে বোনের ওপর অত্যাচারের কথা শুনেই জামাইয়ের বাড়িতে যায় শ্যালক রাসিদুল শেখ। বোনের উপর অত্যাচারের বিষয় নিয়ে শ্যালক ও জামাইয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। সেই সময় রাগের মাথায় চ্যলা কাঠ দিয়ে জামাইকে পিটিয়ে খুন করে। ঘটনা বেগতিক দেখে বোনের শ্বশুর বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় অভিযুক্ত শ্যালক।রক্তাক্ত অবস্থায় পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা তড়িঘড়ি তাকে উদ্ধার করে মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

মৃতের এক ভাইপো সামিউল শেখ জানান,কাকা ইয়াসিন শেখ ও কাকিমার মধ্যে পারিবারিক অশান্তি চলছিল। তাদের একটি বাড়ির সামনে ছোট মুদির দোকান রয়েছে। কিন্তু সেই দোকানের জিনিসপত্র মাঝে মধ্যেই বিক্রি করে মদ খেত কাকা ইয়াসিন সেখ । এনিয়েই ওই দম্পতির মধ্যে বচসা ক্রমাগত বেড়েই চলেছিল। এরপরই শুক্রবার রাতে কাকিমার এক ভাই রাশিদুল শেখ তাদের বাড়িতে আসে। রাগের মাথায় কাঠের হুড়কা দিয়েই তাকে পিটিয়ে খুন করে অভিযুক্ত রাসিদুল শেখ। মৃতের পরিবারের পক্ষ থেকে কালিয়াচক থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।
পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার পর থেকেই অভিযুক্ত শ্যালক গা ঢাকা দিয়ে রয়েছে। তার খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে কালিয়াচক থানার পুলিশ।

Related Articles

Back to top button
Close