fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মালদায় কাজের পারিশ্রমিক চাওয়ায় শ্রমিকদের মারধরের অভিযোগ ঠিকাদারের বিরুদ্ধে

মিল্টন পাল, মালদা: ফুলহার নদীর অপর অস্থায়ী বাঁধ তৈরির কাজে পারিশ্রমিক নিয়ে বিবাদ। আর সেই পারিশ্রমিক চাইতে গিয়ে শ্রমিকদের বেধড়ক মারধরের অভিযোগ ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার ঘটনাটি ঘটেছে মালদার হরিশ্চন্দ্রপুর থানার দৌলতনগর গ্রাম পঞ্চায়েতের খিদিরপুর গ্রামে। ঘটনায় অভিযুক্ত ঠিকাদারদের গ্রেফতারের দাবিতে ভালুকা পুলিশ ফাঁড়ির সামনে বিক্ষোভ আক্রান্ত শ্রমিকদের। আক্রান্ত শ্রমিকেরা ভালুকা পুলিশ ফাঁড়িতে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও সেচ দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, সামনেই বর্ষা আসছে। প্রতিবছর সেই সময় ভয়ঙ্কর আকার নেয় ফুলহার নদী। ফলে শুখা মরশুমে খিদিরপুর এলাকায় ফুলহার নদীতে অস্থায়ী ভাবে বাঁধ মেরামতির জন্য বোল্ডার ফেলার কাজ চলছে। আর সেই কাজের শ্রমিকদের কাছ থেকে কাটমানি নেওয়া হচ্ছে। এমনকী অনেক শ্রমিকদের ন্যায্য পারিশ্রমিক দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে এদিন কর্মরত শ্রমিকেরা কাটমানির প্রতিবাদ জানিয়ে নিজেদের ন্যায্য পারিশ্রমিকের দাবি করেন। আর তখনই একাংশ ঠিকাদারদের সঙ্গে শ্রমিকদের গোলমাল বাধে।

তাতেই শ্রমিকদের মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। এদিকে প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, সেচ দফতরের অধীনস্থ মহানন্দা এনব্যাংকমেন্ট ডিভিশনের মাধ্যমেই খিদিরপুর এলাকায় অস্থায়ীভাবে প্রায় ৫০০ মিটার এলাকার বাঁধ মেরামতের কাজ শুরু হয়েছে। সামনেই বর্ষার মরশুম। সেদিকে লক্ষ্য রেখেই হরিশ্চন্দ্রপুরের ওই এলাকায় ফুলহার নদীর ভাঙন ঠেকাতে একটি ঠিকাদারি সংস্থার মাধ্যমে কাজ শুরু করা হয় । আর সেই কাজ নিয়েই শ্রমিক ও ঠিকাদারদের মধ্যে শুরু হয়েছে চরম গোলমাল।

খিদিরপুর এলাকায় কর্মরত শ্রমিক রহমান আলি বলেন, আমাদের ন্যায্যমূল্যে পারিশ্রমিক দেওয়া হচ্ছে না। যদিও বা কেউ কেউ পরিশ্রমের টাকা চাইতে যাচ্ছে  তাদের কাছ থেকে কাটমানি নেওয়া হচ্ছে। এই ঘটনার বিষয়ে প্রতিবাদ আমরা জানিয়েছিলাম। আর তারই জেরে দায়িত্বরত কয়েকজন ঠিকাদার আমাদের উপর হামলা চালায় এবং মারধর করে।

কর্মরত শ্রমিকদের আরও অভিযোগ, লকডাউনের মধ্যে অসহায় শ্রমিকদের ওপর এই ধরনের অত্যাচার ও হামলার কথা ভালুকা পুলিশ ফাঁড়িতে জানানো হয়েছে। পাশাপাশি অভিযুক্ত ঠিকাদারদের গ্রেফতারের দাবিতে পুলিশ ফাঁড়ির সামনে বিক্ষোভ দেখানো হয়।

স্থানীয় জেলা পরিষদের সদস্য শ্যামল মন্ডল জানিয়েছেন, যদি এরকম ঘটনা ঘটে থাকে তা কোন রকম ভাবে বরদাস্ত করা হবে না।একেই তো লকডাউন, দিনমজুরদের হাতে কাজ নেই। তার ওপর যদি পারিশ্রমিক না মেলার অভিযোগ উঠে তা প্রশাসন যাতে খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয় তার দাবি করা হয়েছে। ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত দাবি করছে।

মহানন্দা এনব্যাংকমেন্ট ডিভিশনের মালদা জেলার এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার বদিরুদ্দীন শেখ জানিয়েছেন, খিদিরপুর এলাকায় অস্থায়ীভাবে বাঁধ মেরামতির কাজ চলছে। কিন্তু ঠিকাদার এবং শ্রমিকদের মধ্যে গোলমাল হয়েছে সে ব্যাপারে কিছু জানা নেই। পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

পুলিশ সুত্রে জানা গিয়েছে, শ্রমিকদের মারধরের একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ভালুকা ফাঁড়ির পুলিশ।

Related Articles

Back to top button
Close