fbpx
কলকাতাহেডলাইন

আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ সিনেমাহলগুলিকে সাহায্যের আশ্বাস মমতার

অভিষেক গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা: আমফান এবং লকডাউনে সিনেমা হল বন্ধ থাকায় যে পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দ্বারস্থ হয়েছিলেন হল মালিকরা। এবার আমফানে ক্ষতিগ্রস্ত সিঙ্গেল স্ক্রিন সিনেমা হল গুলিকে ক্ষতির পরিমাণ হিসেবে দু’লক্ষ ও এক লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ঘোষণা করল রাজ্য সরকার। এদিন শিক্ষক দিবস ও সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণনের জন্মদিন উপলক্ষে দুটি টুইট করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ‘গুরু-শিষ্য পরম্পরা ভারত উপহার দিয়েছে বিশ্বকে।’ অন্যদিকে মাদার টেরিজার মৃত্যুদিবসকে ‘দানদিবস’ পালনের আহ্বাণ জানালেন মুখ্যমন্ত্রী।
নবান্ন থেকে রাজ্য সরকারের তরফে এক বিবৃতি জারি করে জানানো হয়েছে, আমফানে যে সমস্ত সিঙ্গেল স্ক্রিন সিনেমা হল গুলির ক্ষতি হয়েছে, সেইসব হল মালিকদের দু লক্ষ টাকা এবং তুলনামূলক কম ক্ষতিগ্রস্ত হল গুলিকে এক লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে।  সে ক্ষেত্রে সিনেমা হল মালিকদের নিজ এলাকায় স্থানীয় প্রশাসনকে জানাতে হবে কি পরিমানে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এরপর স্থানীয় প্রশাসন সংশ্লিষ্ট হলে গিয়ে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ খতিয়ে দেখবেন। তারপরে একটি তালিকা তৈরি করে রাজ্য সরকার কে পাঠাতে হবে। সেই তালিকার ভিত্তিতে ক্ষতিপূরণ পাবে হলগুলি।
প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, করোনা আবহে লকডাউন শুরু হওয়ার প্রথম দিন থেকেই রাজ্যের সিনেমা হলগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এরপর আমফান ঝরে হল গুলির ক্ষতির পরিমাণ বেড়েছে আরও কয়েকগুণ। এই অবস্থায় আনলক এর চতুর্থ পর্যায় অন্যান্য বিষয়ে আংশিক ছাড় দিলেও সিনেমা হল খোলার বিষয়ে একেবারেই সায় দেয়নি কেন্দ্রীয় মন্ত্রক। ফলে এই মুহূর্তে সিনেমা হল খোলার কোন আশাই নেই। সঙ্কটকালে আমফানের ক্ষতিপূরণ মিললে সামান্য কিছু আশা দেখা যেতে পারে বলে মত হল মালিকদের।
শিক্ষক দিবস ও সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণনের জন্মদিন উপলক্ষে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছেন, “আজ শিক্ষক দিবস। শিক্ষকরা আমাদের গুরু। গুরু-শিষ্য পরম্পরা ভারত উপহার দিয়েছে বিশ্বকে। স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকদের অবদানের স্বীকৃতি হিসাবে আমাদের সরকার শিক্ষক দিবসে শিক্ষকদের ‘শিক্ষারত্ন’ সম্মান দেয়।” অপর টুইটে মুখ্যমন্ত্রী লিখেছেন, “ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি ও বিশ্ববিশ্রুত দার্শনিক ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণনের জন্মদিনে তাঁকে শ্রদ্ধা জানাই।”
শিক্ষক দিবসের পাশাপাশি এদিন ছিল সন্ত মাদার টেরিজার মৃত্যুদিবস। তাই এই দিন অতিদরিদ্রদের পাশে দাঁড়ানোর আবেদন করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মুখ্যমন্ত্রী সোশাল মিডিয়ায় এক বার্তায় বলেন, “১৯৯৭-এর এই দিনে প্রয়াত হয়েছিলেন মাদার টেরিজা (এখন কলকাতার সেন্ট টেরিজা)। সারা জীবন তিনি দরিদ্রতম লোকের সেবায় নিরোজিত থেকেছেন। কখনও ভাবেননি, কার সেবা করছেন। তাঁর স্মরণে রাষ্ট্রপুঞ্জ আজকের দিনটি আন্তর্জাতিক দান দিবস হিসাবে ঘোষণা করেছে। অতিমারির এই দিনে যারা সত্যিই দরিদ্র, তাঁদের পাশে দাঁড়ান।”

Related Articles

Back to top button
Close