fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

আজ প্রশাসনিক বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী, বাঁকুড়া থেকেই মোদির সঙ্গে বৈঠকে মমতার!

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: সফরসূচির খানিক পরিবর্তন করে রবিবার বিকেলেই বাঁকুড়ার মুকুটমণিপুরে চলে এলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ, সোমবার এবং আগামিকাল মঙ্গলবার গোটা দিনই তাঁর কাটবে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে নানা প্রশাসনিক চূড়ান্ত সফরসূচি অনুযায়ী জানা গিয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী এদিন খাতড়ায় সরকারি পরিষেবা প্রদানের অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন। তারপর চলে যাবেন বাঁকুড়া। সেখান থেকেই কাল সকালে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তিনি বৈঠক করবেন। দুপুরে বাঁকুড়াতেই থাকছে তাঁর প্রশাসনিক সভা। বুধবার দুপুরে বাঁকুড়াতেই থাকছে তাঁর জনসভা। সেদিন রাতে দলের নেতাদের সঙ্গেও একটি ঘরোয়া বৈঠক করতে পারেন তিনি। বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী ফিরবেন কলকাতায়।

আজ, সোমবার দুপুর ১টায় খাতড়ার সিধু-কানহু স্টেডিয়ামে সরকারি সভা করবেন মুখ্যমন্ত্রী। সাধারণ মানুষের হাতে তুলে দেবেন সরকারি বিভিন্ন প্রকল্পের সুবিধা। সভামঞ্চ থেকে জেলার নতুন ১৬টি প্রকল্পের উদ্বোধন ও ১৬টি প্রকল্পের শিলান্যাস করবেন বলে জেলাপ্র শাসন সুত্রে খবর। মঙ্গলবার দুপুরে বাঁকুড়া শহরের রবীন্দ্রভবনে প্রশাসনিক বৈঠক করার কথা রয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর। এছাড়াও পরদিন বুধবার বাঁকুড়া-১ নম্বর ব্লকের শুনুকপাহাড়ি মাঠে রাজনৈতিক সভা করার কথা রয়েছে তৃণমূল নেত্রীর।

২০১৯-এর লোকসভা ভোটে গেরুয়া শিবির জঙ্গলমহলের প্রায় সব আসনই দখল করে। তার পর থেকেই তৃণমূল জমি পুনরুদ্ধারে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। আদিবাসী সমাজের একাংশের ক্ষোভ প্রশমনে যথাসাধ্য চেষ্টা করেছে প্রশাসনও। জয় জোহার পেনশন প্রকল্পের সিংহভাগ সুবিধাভোগীই জঙ্গলমহলের বাসিন্দা। রাজনৈতিক মহলের ব্যাখ্যা, তাই পূর্ণাঙ্গ প্রশাসনিক সভার জন্য জঙ্গলমহলেরই একটি জেলাকে বেছে নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

বুধবার দলীয় জনসভায় ভাষণ দেওয়ার কথা তৃণমূল সু্প্রিমোর। ৫ নভেম্বর বাঁকুড়া ঘুরে গিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। শহরের রবীন্দ্র ভবনে কর্মিসভার পাশাপাশি তৃণমূলকে তীব্র আক্রমণ করে দাবি করে যান, বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি ২০০-র বেশি আসন জিতে ক্ষমতায় আসবে। সেই বাঁকুড়া দিয়েই শুরু হচ্ছে বিধানসভা ভোটের আগে মুখ্যমন্ত্রীর প্রথম জনসভা। স্বাভাবিক ভাবেই, মুখ্যমন্ত্রীর সফর ঘিরে আক্রমণের ধার বাড়িয়েছে বিজেপি। জেলা বিজেপি সভাপতি বিবেকানন্দ পাত্র বলেন, ‘মুখ্যমন্ত্রী আসলে অমিত শাহকে ভয় পাচ্ছেন। ক’দিন আগেই তো অমিতজি বাঁকুড়া ঘুরে গিয়েছেন। তাই মুখ্যমন্ত্রীও এখানে ছুটে এসেছেন।’

আরও পড়ুন: ৪৪ হাজার কোভিড পজিটিভ ২৪ ঘণ্টায়, দৈনিক সংক্রমণ সামান্য কমলেও স্বস্তি নেই দেশের কোভিড গ্রাফে

তৃণমূল অবশ্য বিজেপির দাবিকে হাস্যকর বলে উড়িয়ে দিয়েছে। তাদের দাবি, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই প্রথম মুখ্যমন্ত্রী, যিনি প্রতিটি জেলায় গিয়ে প্রশাসনিক বৈঠক করেন। করোনার জেরে তাঁকে এত দিন সফর বন্ধ রাখতে হয়েছিল, এই যা। তিনি বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতাদের মতো ভোট-পাখি নন। মুখ্যমন্ত্রীর এই সফরকে নিউ নর্মাল থেকে নর্মালে ফেরা বলা চলে। কারণ, করোনা পরিস্থিতি গুরুতর আকার ধারণ করার মুখে এ বছর মার্চে মুখ্যমন্ত্রী মালদায় প্রশাসনিক বৈঠক করেছিলেন। মালদার সেই সফরের পর দীর্ঘ লকডাউন পর্ব শেষ করে মুখ্যমন্ত্রী উত্তরবঙ্গ সফরে গেলেও আধিকারিকদের সঙ্গে ভার্চুয়াল মাধ্যমেই কথা বলেন। ঝাড়গ্রাম এবং পশ্চিম মেদিনীপুর সফরেও তিনি অনেকটাই প্রযুক্তির সাহায্য নিয়েছিলেন। তবে বাঁকুড়া সফরে সরকারি আধিকারিকরা সশরীরে হাজির থাকবেন মুখ্যমন্ত্রীর সভায়। পরিষেবা প্রকল্পও দেবেন তিনি।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close