fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

উৎসবের মুখে উদ্বেগের পরিসংখ্যান! করোনায় দৈনিক মৃত্যুতে দেশের মধ্যে দ্বিতীয় পশ্চিমবঙ্গ

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: দুর্গাপুজো ক্রমশ এগিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে রাজ্যের করোনা চিত্র উদ্বেগজনক দিকে মোড় নিচ্ছে। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় প্রথমবার করোনার দৈনিক মৃত্যুতে দেশের মধ্যে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে পশ্চিমবঙ্গ। সেই সঙ্গে আক্রান্তের নিরিখে উঠে এসেছে চতুর্থ স্থানে। উৎসবের মরসুমে পশ্চিমবঙ্গ তালিকায় আরও ওপরের দিকে এগোতে পারে বলে আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।
মহারাষ্ট্র থেকে শুরু করে তামিলনাড়ু, যে রাজ্যগুলি প্রথম থেকে করোনা মৃত্যু এবং সংক্রমণে ওপরের সারিতে ছিল, তারা এখন নিচের সারিতে নেমে গিয়েছে। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে মৃত্যু হয়েছে ৫৭৯ জনের। এর মধ্যে মহারাষ্ট্রে মৃতের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। সেখানে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ১৫০ জনের। তারপর দ্বিতীয় স্থানেই রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ। এই রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতের সংখ্যা ৬৩ জন। তৃতীয় স্থানে তামিলনাড়ু,  সেরাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ৫৬ জনের।
 আক্রান্তের সংখ্যার নিরিখেও পশ্চিমবঙ্গের স্থান চতুর্থ। মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, দিল্লির পরিসংখ্যান যেখানে ক্রমশ নিচের দিকে নামছে। সেখানে ওপরে উঠছে পশ্চিমবঙ্গ এবং কেরল। কেরলের ওনাম উৎসবের পর এবার পশ্চিমবঙ্গে দুর্গাপুজোর পর চিত্রটা ভয়াবহ হতে পারে বলে আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।
এদিকে এদিনও ফের রেকর্ড গড়ে প্রায় ৪ হাজার ছুঁয়ে ফেলল সংক্রমণ। ফের রাজ্যে ২৪ ঘন্টায় নতুন সংক্রমণের হদিশ ৩৯৯২ জনের, মৃত্যু ৬৩ জনের এবং সুস্থ হয়েছেন ৩২৭২ জন। তবে সুস্থতার হার আরও কমে দাঁড়িয়েছে ৮৭.৪৮ শতাংশে। রবিবারের তুলনায় সংক্রমণ বেড়েছে ৯ জনের এবং সুস্থতা বেড়েছে মাত্র ১৫৯ জনের।
সোমবারের বুলেটিন অনুযায়ী, ২৪ ঘন্টায় ৩৯৯২ জন নতুন আক্রান্তে রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৩২৫০২৮ জন।  এদিন আরও ৬৩ জনের মৃত্যু হওয়ায় রাজ্যে সরকারি হিসেবে মোট করোনায় মৃত্যু ৬১১৯ জনের। ২৪ ঘন্টায় আরও ৩২৭২ জন সুস্থের হিসেব ধরলে মোট সুস্থ হলেন ২৮৪৩২৫ জন।
এদিনও অন্যান্য জেলার সঙ্গে উত্তর ২৪ পরগনাতে ৮৪৫ জন, কলকাতায় ৮১০ জন,
হাওড়ায় ২১৮ জন, দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ২০৪ জন, হুগলিতে ১৫৬ জন, নদিয়ায় ১৪৮ জন, মালদায় ১০৫ জন ও পশ্চিম বর্ধমানে ১০৪ জন সুস্থ হয়েছেন। এই মুহূর্তে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন ৩৪৫৮৪ জন। এ দিন হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা বেড়ে গিয়েছে ৬৫৭ জন।
বুলেটিনে আরও জানানো হয়েছে,  এদিন পর্যন্ত রাজ্যের ৯৩ টি ল্যাবে মোট করোনা টেস্ট করা হল ৪০৩৪৮৮৯ জনের। যার মধ্যে ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে করোনা পরীক্ষা হয়েছে ৪৩৬১৯ জনের।
রাজ্যের ৯৩ টি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল, ৩৭ টি সরকারি এবং ৫৫ টি বেসরকারি হাসপাতালে মোট ১২৭৫১ টি বেড আছে, আইসিইউ পরিষেবা রয়েছে ১২৪৩ জনের। ভেন্টিলেটর রয়েছে ৭৯০ টি। তার মধ্যে মাত্র ৩৭.৪৩ শতাংশ রোগী ভর্তি আছেন।
সরকারি ৫৮২ টি কোয়ারেন্টাইনে এখন রয়েছেন ২৪০৪ জন। ছেড়ে দেওয়া হয়েছে ১০৭৮৭৯ জনকে। হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ৯৩৫৭১ জন। ছেড়ে দেওয়া হয়েছে ৭৩৩৮০২ জনকে। রাজ্যের ২০০ টি সেফ হোমে ১১৫০৭ টি বেড রয়েছে এবং তাতে ১২৭৬ জন রোগী রয়েছেন।
এছাড়া এদিনের মৃত্যু হিসেবে বুলেটিনে জেলাওয়াড়ি তথ্যে জানানো হয়েছে, এদিন রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে  ৬৩ জনের। এ দিন কলকাতায় ১৮ জন, হাওড়ায় ১১ জন ও উত্তর ২৪ পরগনায় ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া পূর্ব মেদিনীপুর, হুগলি ও দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ৪ জন করে, মালদা, নদীয়া ও পূর্ব বর্ধমানে ২ জন করে আর আলিপুরদুয়ার,  দার্জিলিং,  উত্তর দিনাজপুর,  দক্ষিণ দিনাজপুর মুর্শিদাবাদ ও পশ্চিম বর্ধমানে ১ জন করে আরও ২৪ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে।
 এদিন রাজ্য সংক্রমণ বেড়েছে রেকর্ড সংখ্যক পরিমাণে। এদিন অন্যান্য জেলার সঙ্গে উত্তর ২৪ পরগনায় ৮৫৮ জন, কলকাতায় ৮০৯ জন, দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ২৩৪ জন, হাওড়ায় ২২৯ জন, পশ্চিম মেদিনীপুরে ২২৩ জন, নদিয়ায় ১৭৭ জন,  দার্জিলিংয়ে ১৫৬ জন,  হুগলিতে ১৫৪ জন,  পশ্চিম বর্ধমানে ১২৯ জন, পূর্ব বর্ধমানে ১১০ জন, জলপাইগুড়িতে ১০৮ জনের সংক্রমণ উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এদিনও সংক্রমণ বেড়েছে রাজ্যের সব জেলাতেই।

Related Articles

Back to top button
Close