fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ঝাড়গ্রাম পৌরসভার পক্ষ থেকে লোধা-শবরদের হাতে তুলে দেওয়া হল মাস্ক ও নতুন বস্ত্র

সুদর্শন বেরা, ঝাড়গ্রাম: ঝাড়গ্রামের প্রশাসনিক সভা থেকে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেছিলেন পুজোর সময় দূরত্ব বজায় রেখে অনুষ্ঠান করা যাবে এবং মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক। সে বিষয়ে মুখ্যসচিবের নির্দেশিকাও এসেছে। এই উপলক্ষ্যে ঝাড়গ্রাম পৌর প্রশাসনের পক্ষ থেকে অনেকগুলি কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে। ১৫ অক্টোবর বৃহস্পতিবার ঝাড়গ্রাম শহরের আনন্দপল্লী, সত্যবানপল্লী – কাঁটাবাড়ি, শিরিষচক-কদমকানন এলাকায় সমস্ত লোধা-শবর পরিবারকে ঝাড়গ্রাম পৌরসভার নামাঙ্কিত মাস্ক বিলি করেন ঝাড়গ্রামের মহকুমা শাসক তথা পুরসভার প্রশাসক সুবর্ণ রায়।

সঙ্গে ছিলেন পৌরসভার নির্বাহী আধিকারিক, ১ ও ১৩ নং ওয়ার্ডের প্রাক্তন কাউন্সিলাররা। এছাড়াও মহকুমা শাসক প্রত্যেক লোধা-শবর পরিবারের হাতে তুলে দেন শাড়ি, ধুতি ও বাচ্চাদের জামাকাপড়। ১৬ অক্টোবর শুক্রবার এই কর্মসূচী পালিত হবে ৫ নং ওয়ার্ডের চাঁদাবিলা, ভালুকখুলিয়াএলাকায়। মহকুমা প্রশাসন সূত্রে খবর মোট ৩২৫ টি লোধা-শবর পরিবারের সকল সদস্যকে উৎসবের পূর্বে নতুন জামাকাপড় ও মাস্ক প্রদান করা হচ্ছে।

 

এ বিষয়ে ঝাড়গ্রামের মহকুমা শাসক সুবর্ণ রায় জানান, এই পরিষেবার পাশাপাশি আরও কয়েকটি সচেতনতা মূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।ঝাড়গ্রাম শহরের জনবহুল এলাকায় এবং যে সব স্থানে উৎসবের সময় অনেক জনসমাগমের সম্ভাবনা আছে সেরকম সাত টি স্থানে সাত টি বড়ো কোভিড-১৯ সচেতনতামূলক ব্যানার শারদ শুভেচ্ছার অঙ্গ হিসাবে লাগানো হচ্ছে।

এছাড়াও বিগত সাত মাস ধরে শহরের ছিমছাম মোড়, পাঁচ মাথার মোড় ও সুভাষপার্ক এলাকায় সকাল থেকে রাত্রি পর্যন্ত স্ট্যাণ্ড পোস্টে মাইক প্রচার চলছে। আগামী রবিবার থেকে বিজয়া-দশমী পর্যন্ত প্রত্যেকটি পুজো মণ্ডপের সামনে, জনবহুল এলাকায় ও বাজারে টোটোতে দিবারাত্র ভ্রাম্যমান প্রচার করা হবে। সকলে উৎসব পালন করুন সঠিক স্বাস্থ্যবিধি ও রাজ্য সরকারের নির্দেশিকা মেনে। এছাড়াও পৌর এলাকায় প্রায় একশোটি ছোটো সচেতনতামূলক ব্যানার লাগাচ্ছে ঝাড়গ্রাম মহকুমা প্রশাসন।

Related Articles

Back to top button
Close