fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

মালদা শহরে ২৫ কোটি টাকার নতুন ম্যাস্টিক রোড তৈরির কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার

নিজস্ব প্রতিনিধি, মালদা: মালদা শহরে ২৫ কোটি টাকার নতুন ম্যাস্টিক রোড তৈরির কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার। অথচ লকডাউন পরিস্থিতিতে সাধারণ গ্রাহকেরা নিয়মিত রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ। শহরের ম্যাস্টিক রোড তৈরির ক্ষেত্রে একশ্রেণীর ঠিকাদারদের রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার করা নিয়ে তুমুল অসন্তোষ তৈরি হয়েছে বিভিন্ন মহলে। এমনকি সাধারণ মানুষের ক্ষোভ এড়াতে দিনের আলোতে এই কাজ না করে রাতের অন্ধকারে ম্যাস্টিক রোড তৈরির ক্ষেত্রে এই রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার করা হচ্ছে বলে অভিযোগ।

এভাবে রাস্তা তৈরির ক্ষেত্রে রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার কেন ব্যবহার করা হচ্ছে এইনিয়ে অবশ্য ঠিকাদারদের একাংশ জানিয়েছেন, ম্যাস্টিক রোড তৈরির ক্ষেত্রে গ্যাস সিলিন্ডারের মাধ্যমে আগুনের তাপ দিয়ে পিচের রাবার লাগানোর কাজ করা হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে এলপিজি গ্যাস না মেলায় বাধ্য হয়েই রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার করতে হচ্ছে।

[আরও পড়ুন- এক লক্ষ টাকার জালনোট সহ গ্রেফতার ২]

এদিকে এরকম অভিযোগের কথা শুনে হতবাক হয়ে গিয়েছেন ইংরেজবাজার পুরসভার প্রশাসক মন্ডলী চেয়ারপারসন তথা বিধায়ক নিহার ঘোষ। তিনি বলেন, রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার রাস্তার কাজে ব্যবহার করা হবে এটা কোনওরকম ভাবেই মেনে নেওয়া যাবে না। যদিও নির্দিষ্টভাবে কোন লিখিত অভিযোগ আমার কাছে আসেনি। পুরসভার ইঞ্জিনিয়ারদের মাধ্যমেই বিষয়টি তদারকি করে দেখা হচ্ছে।

ইংরেজবাজার পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে,  ২০১৯ – ২০ অর্থবর্ষে রাজ্য সরকারের বরাদ্দ প্রায় ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে শহরের ২৯ টি ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকায় ম্যাস্টিক রোড তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। গত এক বছর ধরেই দফায় দফায় চলছে এই নতুন ম্যাস্টিক রোড তৈরির কাজ। কিন্তু এই রাস্তা তৈরির ক্ষেত্রে আগুন জ্বালানোর জন্যই ব্যবহার করা হচ্ছে রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার, এমনই অভিযোগ উঠেছে বিভিন্ন ঠিকাদার সংস্থার বিরুদ্ধে।

[আরও পড়ুন- দুই কর্মীর করোনা পজেটিভ, বন্ধ করে দেওয়া হল ব্যাঙ্ক]

ইংরেজবাজার পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে, বর্তমানে ১, ৩, ৪, ৯, ১৮, ১৯ এবং ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে ম্যাস্টিক রোড তৈরির কাজ চলছে। যেসব এলাকায় রাস্তা দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার হয়নি বর্তমান তৃণমূল পরিচালিত বোর্ড রাজ্য সরকারের বরাদ্দ অর্থেই এই উন্নয়নমূলক কাজে হাত লাগিয়েছে। ম্যাস্টিক রোডের ক্ষেত্রে পিচের রাবারের সংযুক্ত করার জন্য আগুনের তাপের প্রয়োজন হয়। এক্ষেত্রে এলপিজির বড় মাপের গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার করার কথা রয়েছে। কিন্তু তারপরেও কি করে বাড়ির ব্যবহৃত রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার রাস্তা তৈরির কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে তা নিয়েও বিভিন্ন ঠিকাদারি সংস্থার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। মালদা শহরের মনস্কামনা রোড এলাকার এক ঠিকাদার অবশ্য জানিয়েছেন, রাস্তা তৈরিতে এলপিজির বড় গ্যাস না মেলায় রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার করতে হচ্ছে। বিষয়টি বেআইনি হলেও আমাদের কিছু করার নেই। লকডাউন পরিস্থিতির মধ্যেই দ্রুত এখন রাস্তার কাজ সম্পন্ন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

ইংরেজবাজার পুরসভার প্রশাসক মন্ডলী চেয়ারপার্সন নিহার ঘোষ জানিয়েছেন, রাজ্য সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী ই-টেন্ডারের মাধ্যমে কয়েকটি ঠিকাদারী সংস্থাকেই পুরসভার ২৯ টি ওয়ার্ডের ম্যাস্টিক রোড তৈরীর বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এজন্য প্রায় ২৫ কোটি টাকা খরচ হচ্ছে। তবে রাস্তার কাজে এলপিজির বড় ধরনের গ্যাসের প্রয়োজন হয়। সে ক্ষেত্রে কেন রান্নার গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার করা হচ্ছে, তা অবশ্যই খতিয়ে দেখা হবে । এটা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যাবে না। যেসব ঠিকাদার সংস্থা এভাবে কাজ করছেন, সেই বিষয়টিও পুরসভার ইঞ্জিনিয়ারদের মাধ্যমে খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Related Articles

Back to top button
Close