fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

হরিগুরুচাঁদকে কটুক্তিতে ক্ষুব্ধ মতুয়ারা, প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দুলালের

রক্তিম দাশ, কলকাতা: মতুয়া সম্প্রদায়ের প্রবর্তক হরিচাঁদ ও গুরুচাঁদ ঠাকুরে ছবি বিকৃত করা! শুধু তাই নয়, সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে তাকে কেন্দ্র করে বাংলার নমশুদ্র সম্প্রদায়কে কটাক্ষ পর্যন্ত করা হয়। যার ফলে ক্ষুব্ধ মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষ। ইতিমধ্যেই এই ঘটনায় অভিযুক্ত ব্যক্তির বিরুদ্ধে বাংলা জুড়ে বিভিন্ন থানায় সাইবার ক্রাইমে অভিযোগ জানিয়েছেন মতুয়ারা।
পুরো ঘটনার তদন্ত করে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে শাস্তির দাবিতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লিখে আবেদন জানিয়েছেন বাগদার বিধায়ক তথা বিজেপির এসসি মোর্চার রাজ্য সভাপতি দুলাল বর।

আরও পড়ুন:এইমস ট্রমা সেন্টারের চতুর্থ তলা থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা দৈনিক ভাস্কর পত্রিকার প্রাক্তন সাংবাদিকের

উল্লেখ্য, সম্প্রতি ফেসবুকে কৃষ্ণপুত্র রাধে নামে এক ব্যক্তি মতুয়া সম্প্রদায়ের গুরু হরিচাঁদ ও গুরুচাঁদ ঠাকুরের ছবি বিকৃত করে অশ্লীল বাক্য লিখতে থাকেন।

এই ঘটনা প্রকাশ্য আসা মাত্রই ক্ষোভে ফেটে পড়েন মতুয়ারা। শুরু হয় রাজ্যের বিভিন্ন থানায় অভিযোগ দায়ের পর্ব।
এরই মধ্যে খোঁজ নিয়ে জানা গিয়েছে, ত্রিপুরার আগরতলা বসবাসকারি কৃষ্ণপুত্র রাধে নামে ওই ব্যক্তির আসল নাম কুলদীপ চক্রবর্তী। তিনি ফেসবুকে ছদ্মনামে একটি অ্যাকাউন্ট খুলে ধারাবাহিকভাবে এই কাজ করে যাচ্ছেন। কুলদীপকে গ্রেফতারের দাবি করেছেন অলইন্ডিয়া মতুয়া মহাসংঘের সংঘাধিপতি তথা সাংসদ শান্তনু ঠাকুরও।

কিন্তু অভিযুক্ত এখনও গ্রেফতার না হওয়াতে ক্ষুব্দ দুলাল বর সোমবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লিখেছেন। এদিন দুলাল বর বলেন,‘ নমশুদ্র সম্প্রদায়ের পতিতের পাবন আমাদের আরাধ্য দেবতা হরিচাঁদ-গুরুচাঁদ ঠাকুরের সম্বন্ধে গত কয়েকদিন আগে ফেসবুকে যে কুরুচিকর মন্তব্য করা হয়েছে। এতে আমাদের ভাবাবেগে আঘাত লেগেছে। আমি এই সম্প্রদায়ের মানুষ হয়ে ব্যথিত এবং অপমানিত।

আরও পড়ুন:গ্রামবাংলার প্রতিটি পরিবার পাবে পরিশ্রুত পানীয় জল,’জলস্বপ্ন’ প্রকল্পের ঘোষণা মমতার

ভারতবর্ষেও প্রধানমন্ত্রীর কাছে এবং ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের কাছে সাইবার ক্রাইম আইনের মাধ্যমে তদন্তের দাবি করেছি। এই নরাধমকে মতুয়া সম্প্রদায় সর্ম্পকে এধরণের মন্তব্য করার জন্য আইনের আওতায় এনে উপযুক্ত শাস্তি দেওয়ার জন্য আবেদন করেছি।’
দুলালবাবু আরও বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মতুয়াদের নিয়ে অনেক কথা বলতেন। তাই সত্যি যদি দিদি মতুয়াদের দরদি হন তাহলে মতুয়াদের ধর্মগুরু সমন্ধে এরকম কুরুচিকর মন্তব্য করার পরে তিনি এখন চুপ করে বসে আছেন। তাঁর কাছেও আমার আবেদন অবিলম্বে তিনি ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।’

Related Articles

Back to top button
Close