fbpx
পশ্চিমবঙ্গ

মায়াচরে আমফান ক্ষতিগ্ৰস্থদের পাশে মেদিনীপুর কুইজ কেন্দ্র

ভাস্করব্রত পতি, তমলুক : সাইক্লোন আমফানের দাপটে তছনছ হয়ে যায় মহিষাদলের মায়াচর দ্বীপের প্রায় চারশোটি বাড়ি। এখানে বেশিরভাগ বাড়ির চাল উড়ে যায় এবং অসংখ্য পানের বোরজ ভেঙে গিয়েছে। যার ফলে পানচাষীরা ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির মুখোমুখি এখন। সেইসঙ্গে অসংখ্য বিদ্যুতের পোস্ট উপড়ে গিয়ে তার ছিঁড়ে যায়। ফলে কার্যত ১৪ দিন পরেও এই মায়াচর বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন অবস্থায়। পানীয় জলের হাহাকার আর সেই সঙ্গে ত্রাণের অপ্রতুলতা এই দ্বীপভূমির মানুষজনের এখন নিত্যসঙ্গী ।

এমতবস্থায় এই মায়াচরেই পৌছে গিয়েছিল মেদিনীপুর কুইজ কেন্দ্র সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি। সংস্থার ১০ জন স্বেচ্ছাসেবী ৮০ টি পরিবারের হাতে নানা নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী তুলে দেয়। এদিন ত্রিপল সহ চাল, ডাল, চিঁড়া, সোয়াবিন, মুড়ি, তেল, চা, গুঁড়োদুধ, বিস্কুট, সুজি, কেলগ চকোস ইত্যাদি মোট ১৪ দফা নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী তুলে দিলেন ঝড়ের তান্ডবে দুর্দশাগ্রস্ত ৮০ টি পরিবারের হাতে। সোশ্যাল ডিস্টেনশিং মেনেই সব বিলি করা হয়।

রূপনারায়ণ নদীর উপর অবস্থিত একটি বিচ্ছিন্ন দ্বীপময় ভূখণ্ড হলো মায়াচর। এটির ভৌগোলিক অবস্থান বেশ বৈচিত্র্যপূর্ণ। এখানে প্রায় সাত হাজারেরও বেশি মানুষ বসবাস করেন। যার অধিকাংশই পূর্ব মেদিনীপুর এবং হাওড়া জেলার বাসিন্দা। অধিকাংশ মানুষের জীবিকা চাষবাস হলেও এখানে বেশ কয়েকটি ইটভাটা থাকায় এখানে অনেক মানুষ এই ইটভাটাগুলোতে কাজ করে জীবিকা নির্বাহ নির্বাহ করেন ।

লকডাউনের আগেই নৌকাডুবির কারণে দনিপুর, অমৃতবেড়িয়া থেকে খেয়া পারাপার প্রশাসনিকভাবে বন্ধ। এখনো পর্যন্ত এখানে পর্যাপ্ত ত্রিপল বা অন্যান্য ডিজাস্টার কিটস তেমনভাবে এসে পৌঁছয়নি। সংস্থার পক্ষ থেকে সংগঠনের পূর্ব মেদিনীপুর জেলা সম্পাদক কৃষ্ণপ্রসাদ ঘড়া জানান, লকডাউনের মধ্যেই আমফানের তান্ডবে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার হলদিয়ার ব্রজলালচক এলাকায় এবং কাঁথির শৌলা উপকূলবর্তী অঞ্চলে ১০০টি, এবং জঙ্গলমহলে ৪০টির বেশি গৃহহীন পরিবারকে ত্রিপল সহ ভূষিমাল সামগ্রী সাহায্য করা হয়েছে।

সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ড. মৌসম মজুমদার বলেন, সংস্থার সদস্যদের পাশাপাশি, দেশ-বিদেশের থাকা সংগঠনের শুভাকাঙ্ক্ষীদের পাঠানো আর্থিক সহযোগিতায় এই ত্রাণ তুলে দেওয়া সম্ভব হল। তিনি আরোও জানান, তাঁদের সংগঠনের এখন লক্ষ্য এই দুর্দিনে পূর্ব মেদিনীপুরের কমপক্ষে আরও ৫০০ টি পরিবারের পাশে দাঁড়ানো। এদিনের কর্মসূচিতে কৃষ্ণপ্রসাদ ঘড়া ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ড. মৌসম মজুমদার, ভাস্করব্রত পতি, কমলিকা সামন্ত, কালীচরণ দাস, শুভঙ্কর ভূঞ্যা, জয়দেব মন্ডল, চন্দন মন্ডল, গৌতম কুমার নন্দ প্রমুখ এবং সংগঠনের শুভানুধ্যায়ী রঘুনাথ পন্ডা।

Related Articles

Back to top button
Close