fbpx
কলকাতাহেডলাইন

পরিস্থিতি সামাল দিতে রাজীবের সঙ্গে বৈঠক, বেসুরো দল নায়কদের কড়া বার্তা তৃণমূলের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: শুভেন্দুর পর এবার রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় এর মান ভাঙাতে তার সঙ্গে বৈঠকে বসতে চায় তৃণমূল কংগ্রেস। সূত্র মারফত খবর এমনটাই। আগামী দু-তিন দিনের মধ্যেই হতে পারে বৈঠক। ইতিমধ্যেই দলের সঙ্গে বেশ দূরত্ব তৈরি হয়েছে পদত্যাগী মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের আগে যা অশনি সংকেত শাসকদলের কাছে। এর পর ফের রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় দল ছেড়ে চলে গেলে তাজে দলের জন্য খুব একটা সুখকর হবে না তা ভালোই বুঝতে পেরেছে ঘাসফুল শিবির। সেই কারণে এবার আগেভাগেই তার সঙ্গে বৈঠকে বসে তার অভিমান ভাঙাতে চাইছে শাসক দল। চাইছে মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে সমস্ত সমস্যার সমাধান করতে। অন্যদিকে শনিবার ফের একবার নাম না করে শুভেন্দু অধিকারী ও রাজিব  সহ দলের অন্যান্য বেসুরো দলনায়কদের তৃণমূলের পক্ষ থেকে নিজের ফেসবুক পোস্ট মারফত কড়া বার্তা দিলেন তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।
বেশ কিছুদিন যাবৎ বেসুরো শোনা গিয়েছে বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে। গত রবিবার টালিগঞ্জের এক অরাজনৈতিক সভা থেকে তিনি বলেছিলেন, “যারা স্তাবকতা করে দলে তাদের নম্বর বেশি। আমি স্তাবকতা করতে পারিনা বলে আমার নম্বর কম”। এছাড়াও গতকাল ও রাজনৈতিক সভা থেকে তিনি জানিয়েছিলেন, তিনি মানুষের জন্য কাজ করতে চান কিন্তু তাকে যথাযথ কাজ করতে দেওয়া হচ্ছে না। মন্ত্রীর এই একের পর এক দল বিরোধী মন্তব্যের পর কার্যত জল্পনা উঠেছে রাজনৈতিক মহলের। প্রশ্ন উঠছে তাহলে কি এবার শুভেন্দু অধিকারীর পর দলত্যাগী হবেন রাজ্যের বনমন্ত্রী? এছাড়া মন্ত্রী বেশ কিছু সমস্যা তৈরি হয়েছে দলকে নিয়ে তাও বুঝতে পেরেছে রাজ্যের শাসক দল। সেই কারনেই নির্বাচনের আগে বেসুরো মন্ত্রীর সুর ফেরাতে তাকে নিয়ে বৈঠকে বসতে চাইছে দল। সেখানে তার সমস্যার কথা শোনার পাশাপাশি সেগুলি সমাধান করার চেষ্টা করা হবে বলে সূত্রের খবর।
একের পর এক নেতা মন্ত্রী বিধায়কদের গলায় দলবিরোধী সুর শোনা যাচ্ছে বিধানসভা নির্বাচনের আগেই। যার দরুন বেশ অস্বস্তিতে পড়েছে রাজ্যের শাসক দল। এরই মাঝে রাজ্যের মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় এর সঙ্গে বৈঠকে বসতে চায় দল। কিন্তু তার আগেই নাম না করে এই বেসুরো মন্ত্রীদের উদ্দেশ্যে বিস্ফোরক তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।
 ফেসবুক পোস্ট মারফত কড়া বার্তা দিয়ে  তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘আমি দেখছি কিছু মন্ত্রী উচ্চাকাঙ্ক্ষী আর লোভী। তারা হাতে সব ক্ষমতা চান। কিভাবে অন্যকে বিভ্রান্ত করা যায় তা তারা জানেন।’
এর আগেও শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে যখন দলের সম্পর্কে টানাপোড়েন শুরু হয় তখনো শুভেন্দু অধিকারী কে নাম করেই কটাক্ষ করেছিলেন এই তৃণমূল সাংসদ। নিজের চাঁচাছোলা মন্তব্যের জন্য বারবার শিরোনামে এসেছেন তিনি। এর পর ফের একবার নাম না করে বেশকিছু মন্ত্রীর উদ্দেশ্যে তার এহেন ফেসবুক পোস্ট যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ।

Related Articles

Back to top button
Close