fbpx
দেশহেডলাইন

বন্দিদশার অবসান, ‘কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা ফেরানোর লড়াই চলবে’, মুক্তি পেয়েই গর্জে উঠলেন মেহেবুবা মুফতি

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: টানা ৪৩৬ দিন বন্দিদশার অবসান, অবশেষে মুক্ত জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা। কিন্তু তাতেও দমছেন না জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহেবুবা মুফতি । সরকারের বন্দিদশা থেকে মুক্তি পেয়েই ফের হুঙ্কার ছাড়লেন,”কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার বেআইনি। এর বিরুদ্ধে লড়াই চলবেই।”

উল্লেখ্য, গতবছর কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রত্যাহার করার করার ঠিক আগে আগে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি, ওমর আবদুল্লা-সহ একাধিক স্থানীয় নেতানেত্রীকে আটক করে সরকার। পরে তাঁদের গৃহবন্দী করে রাখা হয়। কিছুদিন আগে আবদুল্লাহরা মুক্তি পেলেও গতকাল অবধি বন্দি ছিলেন মুফতি। গতকাল রাতেই তাঁকে মুক্তি দিয়েছে কাশ্মীর প্রশাসন। জেল থেকে বেরিয়েই সমর্থক এবং শুভাকাঙ্ক্ষীদের জন্য একটি অডিও বার্তা প্রকাশ করেছেন পিডিপি নেত্রী। যাতে মেহেবুবা বলছেন, ‘এক বছর পর বেআইনি বন্দিদশা থেকে মুক্তি পেয়ে খানিকটা স্বস্তি পেলাম। এতদিন ওই কালো দিনে নেওয়া কালো সিদ্ধান্ত (৩৭০ ধারা বাতিল) সবসময় আমাকে কষ্ট দিয়েছে। আর আমার বিশ্বাস কাশ্মীরের সব মানুষেরই সেটা মনে হয়েছে। সরকারের এই অত্যাচার বেশিরভাগ মানুষই সহ্য করবে না। কাশ্মীরের মানুষ একত্রিত হয়ে এই লড়াইয়ে শামিল হবে। এই একটা ইস্যুর জন্য হাজার হাজার মানুষের প্রাণ গিয়েছে। সরকারকে এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করতেই হবে।”

মেহেবুবার মুক্তির খবরে তাই সন্তোষ প্রকাশ করেছেন ওমর আবদুল্লাহও। টুইটে বললেন, ‘মুফতি সাহিবা মুক্তি পাওয়ায় আমি খুশি। দীর্ঘদিন ধরে ওঁর এই বন্দিদশা গণতন্ত্রের মূল ভাবধারার বিরোধী ছিল। মুফতি সাহিবাকে স্বাগত জানাই।”

আরও পড়ুন: হাথরাসের নির্যাতিতার দাদাকে ৪ ঘন্টা ধরে জেরা সিবিআইয়ের, মিলল অসঙ্গতি

উল্লেখ্য, জম্মু ও কাশ্মীরের ৩৭০ ধারা রদের আগের দিন অর্থাত্ ২০১৯ সালের ৪ অগাস্ট আটক করা হয় মেহবুবাকে। রাজ্যের তিনিই প্রথম রাজনৈতিক নেতা যাঁকে পাবলিক সেফটি অ্যাক্টে(PSA)আটক করা হয়। প্রথম দিকে তাঁকে রাখা হয়েছিল চশমে শাহির একটি গেস্ট হাউসে। পরে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় এম এ লিঙ্ক রোডের অন্য একটি গেস্ট হাউসে। শেষপর্যন্ত তাঁকে তাঁর  নিজের ঘরে গৃহবন্দি হিসেবে রাখা হয়। মেহবুবার আটকের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যান তাঁর মেয়ে ইলতিজা মুফতি। সেই মামলার শেষ শুনানি হয়েছে গত ২৯ সেপ্টেম্বর।

 

 

 

 

Related Articles

Back to top button
Close