fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বাড়িতে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় গুজরাট ফেরত পরিয়ারী শ্রমিকের মৃতদেহ উদ্ধার

মিলন পণ্ডা, পটাশপুর (পূর্ব মেদিনীপুর): ভিন রাজ্য থেকে ফেরত এক পরিয়ারী শ্রমিকের গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার ঘটনার ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। কাজ না থাকায় টাকার অভাবে আত্মঘাতী বলে অনুমান স্থানীয় বাসিন্দাদের।

চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা পটাশপুর থানার বেলদা এলাকায়। রাজ্য ও কেন্দ্রীয় সরকার রাজ্য থেকে পরিযায়ী শ্রমিকদের গ্রামে ফেরানোর ব্যবস্থা করেছে। রবিবার সকালে বাড়ির ছাদ থেকে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয়। পুলিশ জানিয়েছে মৃত যুবক পীযূষ জানা (২৪)। তার বাড়ি পটাশপুর থানার বেলদা এলাকায়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে যে, মৃত পীযূষ গত ছয় বছর ধরে ভিন রাজ্য গুজরাটে বেসরকারী সংস্থায় কর্মরত ছিল। করোনা ভাইরাস সংক্রমন রুখতে লকডাউন ঘোষনা করে দেয় কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার। ভিন রাজ্যতে আটকে পড়া সমন্ত পরিয়ারী শ্রমিকদের বাড়ি ফেরাতে উদ্যোগ নেয় সরকার। ভিন রাজ্যে আটকে থাকা সমন্ত পরিযায়ী শ্রমিক বাড়ি ফেরে। লকডাউনের আগে গুজরাট থেকে বাড়ি ফেরে পীযূষ। লক ডাউন পড়ে যাওয়ার কারনে আর কর্মক্ষেত্র গুজরাটে যেতে পারেনি পীযূষ। বাড়ি লংলগ্ন এলাকায় কোন কাজ পাইনি পীযূষ। এই নিয়ে পীযূষের সঙ্গে প্রায়ই টাকা নিয়ে পরিবারের বচসা হত বলে স্থানীয়দের দাবি।

রবিবার সকালে পরিবারের সদস্যদের চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা ছুটে এসেই যুবকের ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখতে পায়। এরপর তারা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ এসে বাড়ি থেকে ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে কাঁথি মহাকুমা হাসপাতালে ময়না তদন্তে পাঠায়। পটাশপুর থানার ওসি চন্দ্রকান্ত শ্যাসমল বলেন, মৃতদেহটি উদ্ধার করে কাঁথি মহাকুমা হাসপাতালে ময়না তদন্তে পাঠানো হয়েছে। যদিও পরিবারের পক্ষ থেকে কোনও লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়নি। একটি অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা দায়ের করে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close