fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

অনুব্রত মণ্ডলের নাম করে রেশন ডিলারের কাছে টাকার দাবি, বাড়ির সামনে হুমকি চিঠিসহ তাজা বোমা রাখল দুষ্কৃতীরা

নিজস্ব সংবাদদাতা, মঙ্গলকোট: তৃণমূলের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের নাম করে মঙ্গলকোটের এক রেশন ডিলারের কাছে আড়াই লক্ষ টাকার দাবি করে তার ডিলারের বাড়ির   সামনে একটি হুমকি চিঠি রেখে দিয়ে গেল দুষ্কৃতীরা ।  হুমকি চিঠির সঙ্গে ছিল  চারটি তাজা বোমা । মঙ্গলবার সকালে খবর পেয়ে রেশনডিলারের বাড়ির সদর দরজার সামনে সিড়ি থেকে বোমাগুলি ও চিঠিটি উদ্ধার করে নিয়ে যায় পুলিশ   ।  মঙ্গলকোট থানার পালিগ্রামের এই ঘটনা ঘিরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায় । ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ ।

মঙ্গলবার সকালে মঙ্গলকোট থানা এলাকার পালিগ্রামের বাসিন্দা জীবনকুমার বন্দ্যোপাধ্যায় নামে ওই রেশন ডিলারের কাছ থেকে খবর পেয়ে তার বাড়ির সামনে থেকে পুলিশ একটি হুমকি চিঠি ও চারটি তাজা বোমা উদ্ধার করে বলে জানা গেছে । জানা গেছে,  বোমাগুলি ও চিঠিটি জীবনবাবুর বাড়ির সদর দরজার সাননে সিড়ির উপর রাখা ছিল ।  এদিন  সকালে জীবনবাবুর দিদি  রেখা মুখোপাধ্যায়  ঘুম থেকে ওঠার পর দরজা খুলতেই বোমাগুলি ও  হুমকি চিঠিটি তাঁর নজরে পড়ে।

চিঠিতে অনুব্রত মণ্ডলের  নাম করে জীবনবাবুর উদ্দেশ্যে  লেখা হয়েছে,  “এই ক’বছরে তুমি অনেক কিছু মেরে নিয়েছ । সরকার গরীবদের দেওয়ার জন্য যে চাল,গম,চিনি,তেল,আটা দিয়েছে সেগুলি তুমি নিজে ভোগ করছ।  একটা হিসাবও দাও নাই। ছোট ছোট নেতাদেরকে কিছু দিয়েছ আর সব তোমার বাড়িতে ভরে ফেলেছ।আমাদের কাছে সব খবর আছে। ” এরপর লাইসেন্স ছিনিয়ে নেওয়ার হুমকি দেখিয়ে ওই রেশন ডিলারকে নির্দেশ দিয়ে চিঠিতে বলা হয়েছে, ” গ্রামের লোকনাথ মন্দিরের কাছে আমার দলের লোক দাঁড়িয়ে থাকবে । তুমি তাকে টাকা দিয়ে চলে আসবে। যদি টাইম ফেল করেছ তাহলে তুমি ফিনিস। তোমার লাইসেন্সটা আর থাকবে না। তুমি জেল খাটবে।”

এমনকি জীবনবাবুর উদ্দেশ্যে এও লেখা রয়েছে, “তোমার নামে পুলিশ এমন কেস ফাইল করবে যে তুমি জেলে যাবে । কোনও বাপ বাঁচাতে পারবে না। তোমার জন্য তোমার ছেলের কেরিয়ারে ফুল স্টপ লেগে যাবে । জীবনে কোনও দিন চাকরি করতে পারবে না।” জীবনবাবু বলেন,”এটা প্রথম নয়। গত  বৃহস্পতিবার সকালেও একটা হুমকি চিঠি  বাড়ির দরজার সামনে রেখে গিয়েছিল দুস্কৃতীরা । তখনও আড়াই লক্ষ টাকা দাবি করা হয়েছিল।  এমনকি টাকা না দিলে আমার ছেলে মেয়ের ক্ষতি করার হুমকি দেওয়া হয়।কিন্তু ওই চিঠিটাকে বিশেষ গুরুত্ব দিইনি। কিন্তু আজ চিঠির সঙ্গে বোমাগুলি রেখে যাওয়ার পর থেকে আতঙ্কে আছি । তাই বাধ্য হয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছি। দুটো চিঠিই পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছি।”

দুটি হুমকি চিঠিতে অনুব্রত মণ্ডলের নাম করা থাকলেও হুমকি চিঠির সঙ্গে তাঁর কোনও সম্পর্ক নেই বলে ধারনা ওই ডিলার সহ স্থানীয় বাসিন্দাদের ।  তাদের সন্দেহ এটা দুস্কৃতীদের কাজ। এনিয়ে অনুব্রত মণ্ডলের মতামত জানতে তাকে একাধিকবার ফোন করা হয়। তবে কল রিসিভ না করায় মতামত জানা সম্ভব হয়নি। এদিকে প্রাথমিকভাবে পুলিশ জানতে পেরেছে দুটি চিঠির হাতের লেখা একই ।  ঘটনার তদন্তের পাশাপাশি পাশাপাশি ওই ডিলারের নিরাপত্তার দিকটিতেও গুরুত্ব দিচ্ছে পুলিশ।

 

Related Articles

Back to top button
Close