fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কাটোয়ায় নদীবাঁধ মেরামতির উপকরনের মান নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ বিধায়কের

দিব্যেন্দু রায়, কাটোয়া: কাটোয়া-২ ব্লকের অগ্রদ্বীপ পঞ্চায়েতের চরসাহাপুরে ভাগীরথীর বাঁধের ভাঙা অংশ মেরামতির জন্য কিছু উপকরন এনে রাখা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার এলাকায় পরিদর্শনে গিয়ে সেই সমস্ত উপকরনের মান নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করলেন খোদ শাসকদলের স্থানীয় বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায় ।

তিনি বলেন, “যে ধরনের বাঁশ কাজের জন্য আনা হয়েছে তানিয়ে আদৌ বাঁধের সংস্কারের কাজ করা যায়না। এছাড়া মোটা গজালের পরিবর্তে সরু পেরেক ব্যবহার করা হচ্ছে । এনিয়ে আমি আপত্তি জানিয়েছি।”

ভাগীরথী তীরবর্তী চরসাহাপুরে প্রায় ৮ মিটার চওড়া নদীবাঁধ রয়েছে । রবীন্দ্রনাথবাবু জানিয়েছেন, চরসাহাপুরের নদীবাঁধ সংস্কারের জন্য প্রায় দুকোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে । তিনমাস আগে টেন্ডার হয়েও গিয়েছে। কিন্তু ঠিকাদার করোনা সংক্রমনের অজুহাত দেখিয়ে কাজ শুরু করেননি।
জানা গেছে, ভাগীরথীর জলের স্রোত ক্রমাগত বাড়তে থাকায় দিন কয়েক আগে চরসাহাপুরের নদীবাঁধের প্রায় ২০ মিটার লম্বা অংশে ৩ মিটার চওড়া অংশে ভাঙন দেখা দিয়েছে ।

তারপর বাঁধের ভাঙা অংশে সেচ দফতর থেকে কিছু বালির বস্তা ফেলা হয়েছিল । পাশাপাশি টেন্ডারের কাজ শুরু করতে প্রশাসনের তরফ থেকে ঠিকাদারকে নির্দেশ দেওয়া হয় বলে জানা গেছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রশাসনের কাছ থেকে নির্দেশ পাওয়ার পর বাঁধ সংস্কারের জন্য কিছু সামগ্রী নিয়ে এসে কাজের প্রস্তুতি নিচ্ছিল ঠিকাদার সংস্থা । এদিন তা খতিয়ে দেখতে চরসাহাপুরে আসেন বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায় । তারপর তিনি বাঁধ সংস্কারের জন্য নিয়ে আসা উপকরন দেখে অসন্তোষ প্রকাশ করেন । যদিও ঠিকাদার জানিয়েছেন, নিন্মমানের সামগ্রী থাকলে তা সরিয়ে নিয়ম অনুযায়ী সামগ্রী দিয়ে কাজ করা হবে ।

Related Articles

Back to top button
Close