fbpx
কলকাতাদেশহেডলাইন

সম্প্রীতির বার্তা দিয়ে দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন মোদি-কোবিন্দ

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: আজ খুশির ঈদ। তবে লকডাউনের জেরে এবারে ইদের আনন্দই কার্যত মাটি। রবি সন্ধ্যায় দেখা গিয়েছে ইদের চাঁদ। সঙ্গে সঙ্গে ঘোষণা হয়ে গেছে, সোমবার খুশির ইদ। আর তাতেই মেতে উঠেছে আট থেকে আশি সকলেই। তবে অন্য বছরের তুলনায় অনেকটাই আলাদা এই বছর। বাকি উৎসবগুলির মতো এই বছর ইদের উচ্ছ্বাস অনেকটাই ম্লান। কিন্তু এই অস্বাভাবিক পরিস্থিতির মধ্যেই সোমবার সকালে দেশবাসীকে ইদ-দুল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানাতে ভোলেননি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এদিন সকালে টুইট করে ইদের শুভেচ্ছা জানান প্রধানমন্ত্রী। বার্তা দেন সৌভ্রাতৃত্ব ও সম্প্রীতির।

রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দও হিন্দি, ইংরেজি ও উর্দুতে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন দেশবাসীকে। এদিন টুইটারে তিনি লিখেছেন, ‘ঈদ মুবারক! এই উৎসব ভালোবাসা, শান্তি ও সম্প্রীতির। দুঃস্থদের যত্ন নেওয়া ও তাঁদের সঙ্গে শেয়ার করে নেওয়ার কথা বলে ইদ। এই উৎসবে দান করার ধারা বজায় রাখুন এবং করোনা ভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে সামাজিক দূরত্ব মেনে চলুন।’

আরও পড়ুন: ‘মানুষের চেয়ে বড় কিছু নাই, নহে কিছু মহীয়ান’………

লকডাউন ও সামাজিক দুরত্বের জন্য নেই সেই আলিঙ্গন, নেই সেই নামাজ পড়ার আনন্দও। করোনা পরিস্থিতিতে এবার ইদ পালন হবে অনেকটাই অন্যরকম ভাবে। বাইরে যাওয়ার বিধি-নিষেধে ঘরে ঘরেই হবে উৎসব। দিল্লির জামা মসজিদের ইমাম ঘোষণা করেছেন, নামাজের শেষে আলিঙ্গন কিংবা হাত মেলাবেন না। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন। কলকাতার নাখোদা মসজিদের ইমাম মাওলানা মহম্মদ সফিক কাশেমি বলেন, গোটা দেশের মানুষকে ইদের শুভেচ্ছে জানাচ্ছি। ইদ সবার জীবনে খুশির জোয়ার বয়ে আনুক। প্রার্থনা করি দেশ থেকে করোনা ভাইরাস দূর হোক। মানুষের ভালো হোক।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইতিমধ্যেই আবেদন জানিয়ে বলেছেন, ইদের অনুষ্ঠান বা খাওয়া-দাওয়ার সবই বাড়িতে হোক। দয়া করে জমায়েত করবেন না, কারণ ভারত সরকারের আইন অনুযায়ী, তা নিষিদ্ধ। তবে অনেকের মতে, ইদের নমাজ বাড়িতে পড়ার বিধান নেই। তাই কোথাও কোথাও সামাজিক দূরত্বের বিধি মেনে ছোট ছোট জমায়েত করে নমাজ পড়ার কথা ঠিক হয়েছে। কলকাতার রেড রোডে অবশ্য প্রতিবারের মতো নমাজ হবে না বলে সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

Related Articles

Back to top button
Close