fbpx
দেশহেডলাইন

পেগাসাস ইস্যুতে নাম জড়াল মোদির!  নিউ ইয়র্ক টাইমস-এর একটি প্রতিবেদন ঘিরে উত্তপ্ত  রাজ্য-রাজনীতি

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্কঃ পেগাসাস ইস্যুতে নাম জড়াল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির! এই ঘটনায় রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। নিউ ইয়র্ক টাইমস-এর একটি প্রতিবেদন নিয়ে নতুন করে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে।

নিউ ইয়র্ক টাইমস-এর প্রতিবেদনে ২০১৭ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সরকারের ইজরায়েল সফরের কথাও উল্লেখ করা হয়। একটি প্রতিবেদনে বলে বলা হয়েছে, ২০১৭ সালে ভারত ও ইসরায়েলের  মধ্যে প্রায় ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার অত্যাধুনিক অস্ত্র ও নজরদারি সামগ্রীর ওপর একটি চুক্তি হয়েছিল। যার কেন্দ্রবিন্দু ছিল পেগাসাস ও একটি ক্ষেপণাস্ত্র ।

গত বছর থেকে পেগাসাস ইস্যুতে উত্তপ্ত ছিল জাতীয় রাজনীতি। কেন্দ্রীয় সরকার এই স্পাইওয়্যারের মাধ্যমে সাংবাদিক, সমাজকর্মী, বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতা বা কর্মীদের ওপর নজরদারি চালাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পেগাসাস ইস্যুতে ইতিমধ্যে মামলাও শুরু হয়েছে সুপ্রিম কোর্টে।

ইজরায়েলি স্পাইওয়্যার পোগাসাস ব্যবহার করে বিরোধী নেতা-নেত্রী, সাংবাদিক, বিচারপতিদের ফোনে আড়ি পাতার অভিযোগে বিদ্ধ কেন্দ্রীয় সরকার। বিরোধীদের ফোনে আড়িপাতার অভিযোগ খারিজও করেনি কেন্দ্র, আবার সরাসরি স্বীকারও করেনি। সংসদের বাজেট অধিবেশনের ঠিক পেগাসাস কাণ্ড এবার অন্যদিকে মোড় নিল। অভিযোগ উঠেছে,

স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিই ইজরায়েলে গিয়ে স্পাইওয়্যার কেনার চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছিলেন!

আমেরিকার সংবাদপত্র ‘দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস’-এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ‘২০১৭ সালে ইজরায়েল সফরে গিয়েছিলেন মোদি। সেখানে ক্ষেপণাস্ত্র চুক্তির পাশাপাশি ২০০ কোটি ডলারের বিনিময়ে পেগাসাস স্পাইওয়্যার চুক্তিতেও তিনি স্বাক্ষর করেছিলেন। এই রিপোর্ট প্রকাশ হতেই গোটা রাজ্য-রাজ্যনীতি তোলপাড় শুরু হয়েছে। আর তাতেই ফের একযোগে কেন্দ্রকে নিশানা করতে নেমে পড়ল বিরোধী শিবির। মোদি সরকারের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের  অভিযোগ তুলছে তারা।

Related Articles

Back to top button
Close