fbpx
কলকাতাহেডলাইন

শাশুড়ি-দুই জামাই মিলে মালিকের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে তুলে নিল ৩৫ লক্ষ টাকা

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: বাড়ির পরিচারিকা এবং তার দুই জামাই মিলে যে তাঁর বাবার অ্যাকাউন্ট সাফ করে দেবেন, তা ভাবতেও পারেননি প্রিন্স আনোয়ার শাহ রোডের বাসিন্দা অনুরাগ আগরওয়াল। জুন মাসের শুরুতে তিনি কলকাতা পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন, কেউ তার মৃত বাবা সত্যনারায়ণ আগরওয়ালের এটিএম কার্ড চুরি করে প্রায় ৩৫ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। কিন্তু কে এই কাজ করেছে, তা কিছুতেই বুঝতে পারছেন না তিনি। ঘটনার তদন্তে নেমে এটিএম থেকে টাকা তুলতে গিয়েই পুলিশের জালে ধরা পড়ল শাশুড়ি-জামাইদের গ্যাংকে পাকড়াও করল পুলিশ। ধৃতদের নাম রীতা রায়, রঞ্জিত মল্লিক ও সৌমিত্র সরকার। উদ্ধার হয়েছে ২৭ লক্ষ টাকা।

প্রাথমিক ভাবে তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ জানতে পারে, নদিয়ার করিমপুর, রানাঘাট, কৃষ্ণনগর, হুগলির গুপ্তিপাড়ার বিভিন্ন এটিএম কিয়স্ক থেকে টাকা ওঠানো হয়েছে। সেই এটিএমগুলোর সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করে দেখা যায়, মূলত দুই যুবক ওই টাকা তুলছে। তবে তাঁদের মুখ মাস্কে ঢাকা, মাথায় টুপি। তারপর স্থানীয় পুলিশ সাহায্য নিয়ে এটিএম গুলিতে নজরদারি চালিয়ে গোয়েন্দারা নদীয়ার করিমপুরে রঞ্জিত মল্লিক নামে স্থানীয় এক যুবককে পাকড়াও করে। তাকে জেরা করে হদিশ মেলে গুপ্তিপাড়ার বাসিন্দা সৌমিত্র সরকারের। তাদের কাছ থেকে সন্ধান মেলে তাদের শাশুড়ি রীতা রায়ের।

নদিয়ার কালীগঞ্জ থেকে রীতাকে পাকড়াও করার পর জানা যায়, সে সত্যনারায়ণ আগরওয়ালের বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করত। সেই সময়েই সত্যনারায়ণের এটিএম কার্ডটি চুরি করে সে। বৃদ্ধ সত্যনারায়ণ কার্ডের উপরের কাগজের খামেই লিখে রেখেছিলেন পিন নম্বর। কার্ড আর পিন নম্বর জামাইদের দিয়ে দেয় রীতা। তার পর থেকেই এরা তিনজন দফায় দফায় টাকা তুলতে থাকে। যদিও শেষ রক্ষা হয়নি।

Related Articles

Back to top button
Close