fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

অসহায় দরিদ্র মানুষের হাতে শীত বস্ত্র তুলে দিল মন্তেশ্বরের দম্পতি

অভিষেক চৌধুরী,কালন: হাড়কাঁপানো শীত ও ঘন কুয়াশায় বিপর্যস্ত জনজীবন।কনকনে ঠান্ডার হাত থেকে বাঁচার জন্য অসহায় দরিদ্র মানুষের প্রয়োজন শীতবস্ত্রের। আর সেই কথা ভেবেই অসহায় দুঃস্থ মানুষদের পাশে দাঁড়ালেন মন্তেশ্বরের এক দম্পতি শ্রীলা চৌধুরী ও জহরলাল চৌধুরী। শতাধিক কম্বল ও শীতবস্ত্র বিতরণের পাশাপাশি শিশুদের পড়াশোনার জন্য তাদের হাতে এইদিন ব্যাগও তুলে দেন তারা।এইরকমই এক প্রশংসনীয় উদ্যোগে খুশি এলাকার মানুষজন সহ সহায়-সম্বলহীন মানুষরা।
অসহায় দরিদ্র মানুষজনকে শৈত্যপ্রবাহের হাত থেকে বাঁচানোর জন্য কম্বল সহ শীতবস্ত্র নিয়ে তাদের পাশে দাঁড়ালেন মন্তেশ্বরের চৌধুরী দম্পতি।শুক্রবার ও শণিবার পরপর দুদিনই মন্তেশ্বর এলাকায় তারা বিভিন্ন ধরনের কর্মসূচি নেন।মন্তেশ্বর ও মেমারী থানা এলাকায় থাকা শতাধিক অসহায় মানুষের হাতে কম্বল তুলে দেন শ্রীলা চৌধুরী ও জহরলাল চৌধুরী নামের ওই দম্পতি।ওই দম্পতির বাড়ি মন্তেশ্বর। কিন্তু কর্মসূত্রে তারা কলকাতায় থাকেন।শুধু গ্রামীণ এলাকাতেই নয়,কলকাতাতেও প্রতি বছরই এমনিই কর্মসূচি তারা নেন বলেই জানান।আর এই কাজে তাদেরকে যথেষ্ট উৎসাহ দেন ছেলে শঙ্খ চৌধুরী,মেয়ে শতরুপা চৌধুরী ও বৌমা সৌমালি চৌধুরী।এই বিষয়ে শ্রীলা চৌধুরী বলেন,‘সহায় সম্বলহীন শীতার্ত ব্যক্তিরা না পারে পেট ভরে খেতে,না পারে কোনো অসুখ হলে চিকিৎসা করাতে।শীতের রাতে শীতবস্ত্রহীন মানুষজনকে দেখা যায় যে তারা কীভাবে, কেমন করে কষ্টে রাত যাপন করছে। শীত নিবারণ করার সম্বলটুকুও যাদের নেই তাদের পাশে কম্বল ও শীতবস্ত্র দিয়ে দাঁড়ানোর চেষ্টা করি।এছাড়াও আমরা বেশ কয়েকজন শিশুর জন্য পড়াশোনার ব্যাগও বিতরণ করি।পথচলতি মানুষ ও শিশুদের হাতে খাদ্যসামগ্রী তুলে দেওয়া থেকে বিভিন্ন ধরনের কর্মসূচি আমরা বছরভর নিয়ে থাকি।ক্ষুদ্র সামর্থ্য নিয়ে মানুষের সঙ্গে এইভাবে থাকাটা আমাদের কাছে ভীষণ আনন্দের।এতেই আমরা খুশি।’

Related Articles

Back to top button
Close