fbpx
দেশহেডলাইন

করোনা আক্রান্তদের জন্য ১৩ হাজারের বেশি বেড রেডি, জানালেন কেজরিওয়াল

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  করোনা প্রতিরোধ নিয়ে জেরবার দিল্লি প্রশাসন। এই পরিস্থিতিতে শনিবার সকালে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরীওয়াল ঘোষণা করলেন, অতিমহামারী রুখতে কি ব্যবস্থা নিয়েছে তাঁর সরকার। তিনি স্বীকার করেছেন, ‘আনলক ওয়ান’ পর্বে আক্রান্তের সংখ্যা যে এত বাড়বে সরকার ভাবতে পারেনি। গত ৮ জুন দিল্লিতে লকডাউন শিথিল করা হয়। কেজরিওয়ালের কথায়, ‘আমরা আন্দাজ করেছিলাম, লকডাউন শিথিল করার পরে সংক্রমণ বাড়বে। কিন্তু এত বাড়বে ভাবতে পারিনি।

শনিবার করোনার সঙ্গে লড়াইয়ের জন্য বেশ কয়েক দফা নির্দেশিকা জারি করেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। এদিন তিনি ঘোষণা করেন, এবার থেকে দিল্লিতে সকলেরই করোনা পরীক্ষা হবে। দৈনিক ন্যূনতম ২০ হাজার নমুনা পরীক্ষা যেমন করা হবে। তেমনি করোনা শয্যার সংখ্যা বাড়িয়ে ১৩,৫০০ করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমরা প্রথমেই ঠিক করেছিলাম, কোভিড আক্রান্তদের জন্য বেড বাড়াতে হবে। কয়েকটি বেসরকারি ও সরকারি হাসপাতালকে আমরা কোভিড সেন্টার হিসাবে ঘোষণা করেছিলাম। সেখানে করোনা রোগীদের জন্য ৩৫০০ বেডের ব্যবস্থা হয়েছিল। এখন দিল্লিতে যত হাসপাতাল আছে, তার ৪০ শতাংশ বেড করোনা রোগীদের জন্য সংরক্ষিত। পরে মুখ্যমন্ত্রী জানান, দক্ষিণ দিল্লির এক অস্থায়ী কোভিড সেন্টারে ২ হাজার বেডের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়া রাধা-স্বামী স্পিরিচুয়াল সেন্টারে সাড়ে ১২ লক্ষ বর্গ ফুট জায়গা জুড়ে ১০ হাজার বেডের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কয়েকটি হোটেল ও ব্যাংকোয়েট রুমকেও করোনা রোগীদের চিকিত্‍সার জন্য অধিগ্রহণ করেছে সরকার। সব মিলিয়ে দিল্লিতে করোনা রোগীদের জন্য ১৩ হাজার ৫০০ বেডের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আইসোলেশনে আচ্ছেন, তাঁদের অক্সিমিটার নামে এক ধরনের যন্ত্র দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে। ওই যন্ত্রের মাধ্যমে রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা মাপা যায়।

আরও পড়ুন: দিল্লিতে শুরু হল গণ-নমুনা পরীক্ষা

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, এতে যেমন অনেক বেশি সংখ্যক মানুষ নিজেদের পরীক্ষা করতে পারবেন। তেমনি অসুস্থ হলে চিকিৎসার কোনও অসুবিধা হবে না। কারণ, যথেষ্ট পরিমাণেই শয্যার ব্যবস্থা করা হয়েছে। উল্লেখ্য, এর আগে কেন্দ্রের সঙ্গে একযোগে করোনা লড়াইয়ের আশ্বাস দিয়েছিলেন কেজরিওয়াল। কিন্তু তারপরেও সংক্রমণের কোনও কমতি চোখে পড়েনি।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close