fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিজেপি কর্মীর রহস্যমৃত্যুতে পাঁচ পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে খুনের মামলা দায়ের….

আদালতের নির্দেশে পুনরায় ময়নাতদন্ত করা হল 

শান্তনু চট্টোপাধ্যায়, রায়গঞ্জ: রায়গঞ্জ থানার পুলিশ হেফাজতে  বিজেপি কর্মী অনুপ রায়ের অসুস্থ হয়ে মৃত্যুর ঘটনায় তার মা  গীতা রায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে রায়গঞ্জ থানার পাঁচ পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ দায়ের করল ইটাহার থানার পুলিশ। পাশাপাশি পরিবারের দাবি মেনে আদালতের নির্দেশে শনিবার মৃতদেহের পুনরায় ময়নাতদন্ত হল রায়গঞ্জ গভর্মেন্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে। এই ঘটনায় পুলিশের বিরুদ্ধেই খুনের মামলা রুজু হওয়ায় জেলাজুড়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত যুবকের মা গীতা রায়ের অভিযোগের ভিত্তিতে রায়গঞ্জ থানার পাঁচ পুলিশ কর্মীর বিরুদ্ধে ৩৬৩, ৩০২ ও ৩৪ আইপিসি ধারায় ইটাহার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়েছে। পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু  হয়েছে।

উল্লেখ্য গত ২ সেপ্টেম্বর বুধবার একটি  ডাকাতির ঘটনায় যুক্ত থাকার অভিযোগে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ ইটাহারের নন্দনগ্রামের বাড়ি থেকে অনুপ রায় নামে এক বিজেপি কর্মীকে আটক করে করে। পুলিশ হেফাজতেই সেদিনই সন্ধ্যায় মৃত্যু হয় অনুপের। পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয় অসুস্থ অনুপের মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণের জেরে মৃত্যু ঘটেছে। সেদিন রাতেই মৃতদেহের ময়নাতদন্ত হয়। রিপোর্টে স্বাভাবিক মৃত্যুর উল্লেখ করা হয়। মৃতের পরিবার ও বিজেপি নেতৃত্ব অভিযোগ করে অনুপকে পুলিশি লকআপে বেধড়ক মারধর করার পর মৃত্যু নিশ্চিত করতে গুলি করা হয়। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তাল হয়ে ওঠে রায়গঞ্জ তথা উত্তর দিনাজপুর জেলা। বিজেপির পক্ষ থেকে রায়গঞ্জ থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখানো হয়।

৩ সেপ্টেম্বর মৃত বিজেপি কর্মী অনুপ রায়ের মা গীতা রায় ইটাহার থানায় রায়গঞ্জ থানার পাঁচ পুলিশ অফিসার এস আই নীহার রঞ্জন দাস, এস আই মহম্মদ মুর্তুজা, এস আই প্রবীর ঘোষ, এস আই সন্দীপ চক্রবর্তী এবং এ এস আই উত্তম মোদকের বিরুদ্ধে তাঁর ছেলেকে খুনের অভিযোগ  দায়ের করার পাশাপাশি মৃতদেহের পুনরায় ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ে ভিডিওগ্রাফির মাধ্যমে ময়নাতদন্তের দাবি করে আদালতের দ্বারস্থ হন। আদালতের নির্দেশ অনুসারে শনিবার মৃত বিজেপি কর্মী অনুপ রায়ের মৃতদেহ পুনরায় ময়নাতদন্ত হয় রায়গঞ্জ গভর্মেন্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।  ময়নাতদন্তে কর্তব্যরত চিকিৎসক ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন রায়গঞ্জ ব্লকের বিডিও রাজু লামা, ইটাহার থানার পুলিশ অফিসার ও মৃতের পরিবারের লোকজন এবং বিজেপির প্রতিনিধি।

আরও পড়ুন: শ্রীরামকৃষ্ণ, পিকে, উত্তমকুমার থেকে দিলীপ রায়, সুচিত্রা মিত্র শিক্ষকধারা প্রবহমান

রায়গঞ্জ পুলিশ  জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার যশপ্রীত সিং জানিয়েছেন, রায়গঞ্জ থানার ঘুঘুডাঙা এলাকায় একটি ডাকাতির ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে ওই অপরাধের মাস্টার মাইন্ড হিসেবে ইটাহারের বাসিন্দা অনুপ রায়ের নাম উঠে আসে। সেই কেসেই ২ সেপ্টেম্বর রায়গঞ্জ থানার পুলিশ অনুপ রায়কে ইটাহারের নন্দনগ্রামের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে। পুলিশ হেফাজতে অসুস্থ বোধ করায় তাকে রায়গঞ্জ গভর্মেন্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকেরা মৃত বলে ঘোষণা করেন। কিন্তু মৃত অনুপ রায়ের মা তাঁর ছেলের মৃত্যুর জন্য রায়গঞ্জ থানার পাঁচ পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে ইটাহার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছিলেন। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে পাঁচ পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে ৩৬৩, ৩০২, ৩৪ আইপিসি ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

এদিকে  দাবি মেনে পুনরায় ময়নাতদন্তের বিষয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন উত্তর দিনাজপুর জেলা বিজেপি সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী।  তিনি বলেন, ” এটা আমাদের নৈতিক জয়।  আমরা সুবিচারের দাবিতে আন্দোলন করেছি সেক্ষেত্রে আমাদের জয় হয়েছে। তবে রায়গঞ্জ থানার যে পাঁচ পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে বিজেপি কর্মী অনুপ রায়কে খুনের মামলা শুরু হয়েছে তাদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্ত মূলক। শাস্তির ব্যাবস্থা করতে হবে। যদি অভিযুক্তদের গ্রেফতার না করা হয় তাহলে জেলা জুড়ে আন্দোলনে নামবে বিজেপি।

অন্যদিকে জেলা তৃণমূল সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল বলেন,” পোস্টমর্টেম কতবার করা হলো তা নিয়ে আমাদের কোনও বক্তব্য নেই। আইন আইনের কাজ করবে। কিন্তু তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিজেপির এই অপপ্রচার ভিত্তিহীন।

 

 

Related Articles

Back to top button
Close