fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

ঠান্ডা পানীয়তে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে খুন, যুবতী খুনের ঘটনার কিনারা করলো মন্তেশ্বর পুলিশ

অভিষেক চৌধুরী, কালনা: ঘটনার পাঁচ দিনের মধ্যেই এক যুবতীর খুনের ঘটনার কিনারা করলেন পূর্ব বর্ধমানের মন্তেশ্বর থানার পুলিশ। আর এই ঘটনায় গ্রেফতার করা হয় মৃত যুবতীর প্রাক্তণ স্বামীকে।পুলিশ জানায় ধৃতের নাম সৈফুদ্দিন মন্ডল। তার বাড়ি পূর্বস্থলী এলাকায়। প্রাক্তন স্ত্রীর বিবাহ বহির্ভূত একাধিক সম্পর্ক মানতে না পারায় তাকে খুন করেছে বলে পুলিশকে জেরায় জানায় ধৃত ওই ব্যক্তি।

মন্তেশ্বরের মৌসা ও পুটশুড়ি এলাকার মধ্যে ফাঁকা মাঠে থাকা একটি সাবমার্সিবল পাম্পের ঘরের বাইরে দেওয়ালে গত বৃহস্পতিবার গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় এক যুবতীকে ঝুলতে দেখে স্থানীয়রা। খবর পেয়েই মন্তেশ্বর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মৃতদেহটিকে উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়।তারপরেই জানা যায়, মৃত ওই যুবতীর নাম সুমাইয়া খাতুন(২১)। তার বাড়ি মন্তেশ্বরের মৌসা গ্রামের পূর্ব পাড়ায়।

মৃতার পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তে নামে মন্তেশ্বর থানার পুলিশ। এরপর পূর্বস্থলী এলাকার বাসিন্দা ত্রিশ বছর বয়সী সৈফুদ্দিন মন্ডলকে গ্রেপ্তার করে। সে কেরালায় কাজ করতো বলে জানা যায়।এরপরেই সৈফুদ্দিন পুলিশকে জেরায় জানায়, তিন বছর আগে দেখাশোনা করে সুমাইয়ার সঙ্গে তার বিয়ে হয়। একবছর তার সঙ্গে ঘর সংসারও করে।আর এরমধ্যেই বিবাহ বহির্ভূত একাধিক সম্পর্কে তার স্ত্রী সুমাইয়া জড়িয়ে পড়ে। এই নিয়ে উভয়ের মধ্যে অশান্তিও হয়। শেষমেষ তার সঙ্গে জোর করে বিবাহ বিচ্ছেদ করে সুমাইয়া। এরপরেই সে বাপের বাড়িতে থাকতে শুরু করে।

যদিও তার বাপের বাড়ির লোকজন জানায়, সুমাইয়া মাস ছয়েক আগে মহারাষ্ট্রে কাজে যায় অন্য আর একজনের সঙ্গে। আর লকডাউনের মধ্যেই সে ফিরে আসে। অন্যদিকে সৈফুদ্দিনের স্ত্রীর প্রতি অগাধ ভালোবাসা রূপ নিতে শুরু করে প্রতিহিংসায়। জেরায় পুলিশকে সে আরও জানায়, ঘটনার দিন রাতে সুমাইয়াকে মৌসার বাপের বাড়ি থেকে তাকে ডেকে নিয়ে গিয়ে ঠান্ডা পানীয়ের সঙ্গে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে খাওয়ায়। এরপর সে অজ্ঞান হয়ে গেলে তাকে ওড়না দিয়ে গলা পেঁচিয়ে খুন করে। এরপরেই মাঠে থাকা সাবমার্সিবলের ঘরের বাইরের উপর থেকে তাকে ঝুলিয়ে দেয়।

সৈফুদ্দিনের দাবি, বিবাহ বিচ্ছেদের পরেও সুমাইয়া তার কাছ থেকে বিভিন্ন কারণে টাকাও নিত।অন্যদিকে মেয়ের খুনের ঘটনায় চরম শাস্তির দাবি জানিয়েছেন বাপের বাড়ির লোকজন। সৈফুদ্দিনকে মঙ্গলবার কালনা মহকুমা আদালতে তোলা হলে তাকে জুডিশিয়াল কাষ্টডিতে নেওয়া হয় বলে পুলিশ জানায়।

Related Articles

Back to top button
Close