fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

করোনা আবহের মধ্যেই অদ্ভুত শিশুর জন্ম হল হাওড়ায়

মনোজ চক্রবর্তী, হাওড়া : করোনা আবহের মধ্যেই হাওড়ার একটি বেসরকারি নার্সিং হোমে এক অদ্ভুত শিশু জন্ম নিল। আর করোনা ভুলে এখন ওই এলাকার মানুষের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু এই শিশুটি।

জানা গিয়েছে দিন দুয়েক আগে শিবপুর কাউস ঘাট রোডের বাসিন্দা এক গৃহবধূ সন্তান প্রসবের জন্য ওই নার্সিংহোমে ভর্তি হন ।বুধবার মহিলা রোগ বিশেষজ্ঞ ডঃনুজা বি কমলের অধীনে সিজারিয়ান সন্তান প্রসব করেন ওই মহিলা । কিন্তু সদ্যোজাতকে দেখেই চক্ষু চড়কগাছ সকলের । গায়ের চামড়া মোটা আস্তরনে ঢাকা । মনে হবে সারা শরীর টুকরো কাপড় দিয়ে ব্যান্ডেজ করা আছে। শিশুটিকে দেখেই চিকিৎসক বুঝতে পারেন হারলেকুইন ইকথাওসিস নামক বিরল চর্ম রোগ নিয়ে হাওড়ার ওই বেসরকারি নার্সিংহোমে জন্ম নিয়েছে শিশুটি।যা চিকিৎসা বিজ্ঞানে বিরল ।

এই ধরণের চর্মরোগ নিয়ে জন্ম নেওয়া বাচ্চার ঘটনা এই প্রথম এ রাজ্যে, এমনটাই দাবি ওই হাসপাতালের নারী রোগ বিশেযজ্ঞের। তার দাবি, সারাবিশ্বে খুঁজলে এই ধরনের রোগ এখনো পর্যন্ত ধরা পড়েছে ২০০ জনের মত।তবে দিল্লি মহারাষ্ট্রে ও এই ধরনের রোগ নিয়ে বাচ্চা জন্ম হয়েছে। কিন্তু রাজ্যের ক্ষেত্রে এ ধরনের ঘটনা এই প্রথম। মূলত আমাদের ত্বক মসৃণ এবং নরম। কিন্তু বিরল এই রোগের ক্ষেত্রে জন্ম নেওয়া শিশুর গায়ের চামড়া শক্ত হয়ে থাকে বলে জানান তিনি।

পাশাপাশি তিনি আরও জানিয়েছেন শিশুটির চোখ নাক না থাকার জন্য তাকে অন্যান্য বৈজ্ঞানিক উপায়ে খাবার খাওয়ানোর প্রক্রিয়া অবলম্বন করা হচ্ছে হাসপাতালের পক্ষ থেকে । যদিও তাতে খুব একটা সফলতা আসেনি। ফলে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই শিশুটির জন্ম হওয়ার পর থেকে কার্যত লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়েছে তাকে। হঠাৎ কেন এই ধরনের রোগে আক্রান্ত হয়ে জন্ম হলো শিশুটির –সেই প্রসঙ্গে চিকিৎসকের মতে, গর্ভাবস্থায় দম্পতির অসাবধানতার কারণে এ ধরনের রোগ হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল। এক্ষেত্রে গর্ভাবস্থায় কোন ধরনের অসাবধানতা মূলক পদক্ষেপের জেরেই এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে শিশুটি।- এদিকে বিরল রোগে আক্রান্ত শিশুটির ভবিষ্যত নিয়ে চিন্তিত তার পরিবার । এই শিশু জন্মানো খবর আসতেই অনেকের মনে নীহাররঞ্জন গুপ্তর উল্কা নাটকটির কথা মনে পড়েছে ।যেখানে বিরল দর্শন শিশু জন্মানোর পরও বেড়ে উঠেছিল শিশুটি ।

Related Articles

Back to top button
Close