fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

মর্মান্তিক, ওড়িশায় একই পরিবারের ৬ সদস্যের রহস্যমৃত্যু

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: মর্মান্তিক ঘটনার সাক্ষী থাকল ওড়িশা। রহস্যমৃত্যু হল একই পরিবারের ৬ সদস্যের। স্বামী-স্ত্রী, দুই ছেলে ও দুই মেয়ে। বুধবার ওড়িশার বোলাঙ্গীর জেলার সানরাপড়া গ্রাম থেকে একই পরিবারের ছয় সদস্যের মৃতদেহ উদ্ধারের পর এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য তৈরি হয়।

বোলাঙ্গীরের পতনাগড় থানার অন্তর্গত একটি গ্রাম সানরাপড়া। সেখানেই স্ত্রী-সন্তান নিয়ে সংসার ছিল মধ্যবয়সি বুলু জনির। বুধবার সানরাপড়ার ওই বাড়ি থেকেই সপরিবার দেহ উদ্ধার হয় বছর পঞ্চাশের ওই ব্যক্তির। মৃত্যু হয়েছে তাঁর স্ত্রী জ্যোতি (৪৮), দুই ছেলে ভীষ্ম ও সঞ্জীব এবং দুই মেয়ে সরিতা ও শ্রেয়ার।

             আরও পড়ুন: বিজেপি কর্মীকে পিটিয়ে খুন , গাজিপুরে চাঞ্চল্য, অভিযুক্ত তৃণমূল

পুলিশ সূত্রে খবর, প্রতিবেশীরাই ঘটনার কথা জানিয়ে থানায় খবর দিয়েছিল। বেলা গড়ালেও বুলু জনির ঘরের সদর দরজা বন্ধ দেখে প্রতিবেশীদের মনে খটকা লাগে। এত বেলা পর্যন্ত পরিবারের সকলে ঘুমোবে, সেটা কেমন অস্বাভাবিক ঠেকেছিল। তাই খানিক কৌতূহলেই কয়েক জন ঘরের জানালা দিয়ে উঁকি মারেন। লক্ষ করেন, মেঝেতে কম্বল জড়ানো অবস্থায় পরিবারের সদস্যরা পড়ে রয়েছেন। অনেক ডাকাডাকিতেও সাড়া না পেয়ে, সন্দেহ হয়। ফোন করে থানায় খবর দেন। এর পর পুলিশ এসে ঘরের মঝে থেকে ছয় সদস্যের দেহ উদ্ধার করে।

প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের সন্দেহ, পরিবারে ৬ সদস্যকে পরিকল্পিত ভাবে খুন করা হয়েছে। খুনের পর দেহগুলি কম্বলে মুড়ে খুনিরা পালিয়ে যায়। কিন্তু, কেন খুন, কারা খুন করল, পরিবারের সকলকে একসঙ্গে খুনের কারণ কী? খুনের কিনারায় এমন একাধিক প্রশ্নের উত্তর হাতড়াচ্ছে পুলিশ।

প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, বুলু জনি মধু সংগ্রহ করে বাজারে বিক্রি করতেন। বিগত ১০ বছর ধরে এটাই ছিল তাঁর পেশা। রুটিরুজির সংস্থান। সেই মধু সংগ্রহ নিয়ে অশান্তির জেরে খুন নাকি পারিবারিক সম্পত্তি নিয়ে বিরোধে– পুলিশ তা খতিয়ে দেখছে। মৃত্যুর অন্যান্য সম্ভাব্য কারণ আছে কি না, পুলিশ তা-ও খতিয়ে দেখছে।

Related Articles

Back to top button
Close