fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

হেমতাবাদে বিজেপি বিধায়কের মৃত্যু… খুন না আত্মহত্যা… প্রশ্ন এলাকাবাসীর, তদন্তে পুলিশ

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়কের ঝুলন্ত মৃতদেহকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। মৃত বিজেপি বিধায়কের নাম দেবেন্দ্রনাথ রায়। সোমবার সকালে উত্তরদিনাজপুরের হেমতাবাদের বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়কে বিন্দলে তাঁর গ্রামের বাজারের একটি দোকান থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। স্থানীয় মানুষের দাবি তাঁকে মেরে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই ঘটনা খুন না আত্মহত্যা তা নিয়ে সোচ্চার হয়েছে এলাকাবাসী।

আরও পড়ুন:মরুরাজ্যে সংকটে কংগ্রেস! আজই জে পি নাড্ডার সঙ্গে দেখা পাইলটের?

ঘটনা ঘিরে ক্রমশই রহস্য ঘনীভূত হচ্ছে। এদিকে এই ঘটনার পিছনে কোনও রাজনৈতিক  না অন্য কোন কারণ রয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখছে পুলিশ। স্থানীয় মানুষকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সোমবার সাতসকালে চায়ের দোকান থেকে বিধায়ক দেবেন্দ্রনাথ রায়ের ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয়। তার হাত বাধা অবস্থায় ছিল।রায়গঞ্জের বিন্দোল পঞ্চায়েতের বালিয়া গ্রামে তাঁর আদি বাড়ি থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে রাস্তার ধারে রয়েছে ওই চায়ের দোকান।পরিবারের দাবি, খুন করা হয়েছে বিধায়ককে।

রায়গঞ্জ শহরের সুদর্শনপুরের থাকতেন দেবেন্দ্রনাথ রায়। রবিবার সন্ধ্যা নাগাদ বিন্দোলের বালিয়ার আদি বাড়িতে ফিরছিলেন। কিন্তু সেই রাতেই নিখোঁজ হয়ে যান দেবেনবাবু। রাতভর স্থানীয় এলাকায় খোঁজখবর করা হলেও তাঁর খোঁজ মেলেনি। সোমবার সাতসকালে বালিয়া গ্রামে বিধায়কের আদি বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে বাজারের মধ্যে বন্ধ চায়ের দোকানের সামনে বিধায়কের হাত বাঁধা অবস্থা ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করা হয়। খবর দেওয়া হয় পুলিশে। তড়িঘড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছন পুলিশকর্মীরা। দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে। মৃতদেহ ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে।

বিধায়কের স্ত্রী তথা প্রাক্তন পঞ্চায়েত প্রধান চাঁদিমা রায়ের অভিযোগ, পরিকল্পিতভাবে খুন করে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে তাঁর স্বামী দেবেন্দ্রনাথ রায়কে। মৃত্যুর প্রকৃত তদন্তের দাবি জানিয়েছেন রায়গঞ্জের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরি। তিনি বলেন,’ দেবেনবাবুর মৃত্যু যথেষ্ট সন্দেহজনক’।

২০১৬সালে বিধানসভা নির্বাচনে হেমতাবাদ কেন্দ্র থেকে সিপিএমের টিকিটে জয়লাভ করেন দেবেন্দ্রনাথ রায়। বিন্দোল গ্রাম পঞ্চায়েতে পরপর তিনবার সিপিএমের প্রধান ছিলেন। সমবায় সমিতি গড়ে গ্রামের প্রচুর মানুষকে আর্থিক সাহায্য করতেন তিনি। পরে ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনের আগে মুকুল রায়ের হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দেন তিনি। এলাকার মানুষের কাছে দেবেনবাবু নামে পরিচিত ছিলেন তিনি।

 

Related Articles

Back to top button
Close