fbpx
কলকাতাহেডলাইন

আইন ভেঙে অপরাধীদের নিয়ে ঘুরেছেন নাড্ডা, অভিযোগ কল্যাণের

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক:  নিয়ম ভেঙেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা। জেড ক্যাটাগরির নিরাপত্তা পান তিনি। ফলে তার যাতায়াতের পথে পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করে রাখা হয়েছিল। পরিসংখ্যান তুলে ধরে জানালেন তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দোপাধ্যায়। কেন্দ্র অসাংবিধানিক কাজ করেছে। জে পি নাড্ডার কনভয়ে হামলার ঘটনায় রাজ্যের ডিজি ও মুখ্যসচিবকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের তলব নিয়ে এই দাবি করলেন তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর দাবি, এমন কোনো আইন নেই যার ভিত্তিতে এভাবে রাজ্যের মুখ্যসচিব এবং ডিজিকে চিঠি দিয়ে ডেকে পাঠাতে পারে কেন্দ্রীয় সরকার।যে চিঠি দেওয়া হয়েছে তা অসাংবিধানিক। বিষয়টি নিয়ে তিনি বলেন,”এমন আইন নেই। প্রশ্ন করছি কোন আইনের বলে ডাকছেন তাঁদের? আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ করছি”।

জে পি নড্ডার কনভয়ে হামলার ঘটনায় রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির ব্যাপারে জানতে চেয়ে মুখ্যসচিব ও রাজ্য পুলিশের ডিজি-কে তলব করেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক। ১৪ ডিসেম্বর বৈঠকে হাজির থাকার জন্য মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায় ও ডিজিপি বীরেন্দ্রকে দিল্লিতে ডেকে পাঠানো হয়েছে। জানা গিয়েছে, শুক্রবার রাজ্যপাল জগদীপ ধনকরের তরফে রিপোর্ট পাওয়ার পরই এই কড়া সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্র। সাংসদ এও বলেন, আইন ভেঙেছেন নাড্ডা। তাঁর কথায় ইতিমধ্যেই তিনটি মামলা দায়ের হয়েছে। একটি মামলা হয়েছে উস্থি থানায়। দুটি ফলতায়। কল্যাণ বলেন, ‘বিজেপি নেতা রাকেশ সিং গাড়ির দরজা খুলে প্ররোচনা তৈরি করেছেন। নাড্ডার কনভয়ে কত র্যা ফ, কত এএসপি, কত ডিএসপি, কত কনস্টেবল মোতায়েন ছিল তারও ফিরিস্তি দেন কল্যাণবাবু।

শুক্রবার সাংবাদিক বৈঠকে রাজ্যের মুখ্যসচিব ও ডিজিকে তলব করা নিয়েও কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘নিয়মবহির্ভূত কাজ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। মুখ্যসচিব ও ডিজিকে এ ভাবে তলব করা যায় না। এই তলব পুরোপুরি অসাংবিধানিক।  রাজ্যের শাসক দলের অভিযোগ, জে পি নাড্ডার কনভয়ে ছিল প্রায় ৫০টির কাছাকাছি বাইক ও গাড়ি ছিল। অভিযোগ সেই মিছিল থেকে বিজেপির নেতা রাকেশ সিং প্ররোচনা দিয়েছিলেন। তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দোপাধ্যায়ের অভিযোগ, “রাকেশ সিংয়ের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ রয়েছে। ক্রিমিনাল কেস রয়েছে প্রায় ৫৯টি। সে গাড়ির দরজা খুলে নানা অঙ্গভঙ্গী করে।” ফলে রাকেশ সিংয়ের প্ররোচনায় যে গতকাল শিরাকোল ও দোস্তিপুরে অশান্তি শুরু হয় সেদিকে ইঙ্গিত করেন সাংসদ কল্যাণ বন্দোপাধ্যায়। ইতিমধ্যেই গতকালের ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে দক্ষিণ ২৪ পরগণা জেলায় ৩টি মামলা হয়েছে। যার মধ্যে উস্তি ও ফলতা থানা রয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে ৭ জনকে।

উল্লেখ্য, নাড্ডার সফরে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি নিয়ে সরব বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বরা। নাড্ডার নিরাপত্তায় গাফিলতি অভিযোগ জানিয়ে স্বরাষ্ট্রদফতরকে চিঠি দেয় বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এরপর সেই চিঠিই নবান্নে পাঠিয়ে কার্যত কৈফিয়ত চায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক।

Related Articles

Back to top button
Close