fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণহেডলাইন

নবান্ন থেকে নয়া ফরমান: হটস্পট এলাকায় থাকলে আসতে হবে না অফিসে

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের ৭০ শতাংশ অফিসে আসা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। কিন্তু এক দিনের মধ্যেই ফের একদফা নির্দেশিকা জারি করল রাজ্য সরকার। এই নির্দেশিকা অনুযায়ী, যদি কারও করোনার উপসর্গ থাকে, তাহলে তাঁকে দফতরে আসতে হবে না। উপসর্গ না থাকলে তবেই দফতরে আসতে হবে। মঙ্গলবার রাজ্য সরকারের তরফে অতিরিক্ত মুখ্য সচিব যে নির্দেশিকা দিয়েছেন তাতে স্পষ্টভাষায় বলা হয়েছে.

১. যে সমস্ত কর্মীদের জ্বর, সর্দি, কাশি, গলা ব্যথা নেই, তাঁরাই একমাত্র অফিস করতে পারবেন

২. যে সব কর্মীরা কনেটেনমেন্ট জোন‌ে থাকেন তাঁদের অফিসে আসতে হবে না। যতদিন না ওই এলাকা সংক্রমণমুক্ত হচ্ছে, ততদিন বাড়ি থেকে কাজ করা যাবে।

৩. একসঙ্গে এক জায়গায় ১০জনের বেশি বসতে পারবেন না। একজনের থেকে অপরজনের দূরত্ব কম করে ২ মিটার রাখতেই হবে।

৪. অফিসার এবং কর্মীদের উপস্থিতি সংখ্যা কম করা হবে। গত ৩০মের নির্দেশিকায় ছিল ৭০% উপস্থিতি। সেই নির্দেশিকার উপস্থিতি প্রয়োজনে আরও কম করা হবে। প্রয়োজনে এর জন্য প্রতি সপ্তাহে রোস্টার বানাতে হবে

৫. ডেপুটি সেক্রেটারি অথবা সমতুল পদের অফিসারর যারা আলাদা কেবিনে অফিস করেন, প্রয়োজনে তারা অফ ডে বাদ দিয়ে রোজ অফিসে আসবেন

আরও পড়ুন: পঞ্চায়েতের কাজ দেখে ক্ষুব্ধ তৃণমূলের সাংসদ মহুয়া

৬. যে সব অফিসার ও কর্মী অফিসে আসবেন না তাঁদের ই-অফিস ব্যবস্থার মাধ্যমে বাড়ি থেকেই কাজ করতে হবে। যে সব জায়গায় এই ব্যবস্থা নেই সেখান যত দ্রুত সম্ভব ই-অফিসের ব্যবস্থা করতে হবে।

৭. অফিসের থাকার সময় মাস্ক পড়তেই হবে। প্রয়োজন মতো যতবার পারা যায় হাত ধোওয়া অথবা স্যানিটাইজ করা বাধ্যতামূলক। মাস্ক না পড়লে প্রয়োজনে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে

৮. ভিজিটরদেরও বসতে দেওয়া হবে কম করে ২ মিটার দূরত্ব রেখে

৯. প্রত্যেক কর্মী এবং অফিসাররা যেন তাঁদের ব্যবহার করা চাবি, মাউস, কিবোর্ড মোবাইল ফোন, এসি রিমোট স্যানিটাইজ করেন

১০. পনেরো দিন অন্তর অফিস স্যানিটাইজ করতে হবে। এছাড়া নিয়‌মিত স্পর্শ করা হয়, এমন জায়গা যেমন সুইচ, দরজার নব, লিফটের সুইচ ইত্যাদি স্যানিটাইজ করতে হবে বারবার।

১১. সামনাসামনি বসে বৈঠক কার্যত বাতিল করতে হবে। প্রয়োজনে ইন্টারকম, ফোন, ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলতে হবে

১২. একসঙ্গে তিন জনের বেশি লিফটে ওঠা যাবে না

Related Articles

Back to top button
Close