fbpx
কলকাতাহেডলাইন

বেলেঘাটা বিস্ফোরণকাণ্ডে এনআইএ তদন্তের দাবি বিজেপির

শরণানন্দ দাস, কলকাতা: মঙ্গলবার সাত সকালে বেলেঘাটার গান্ধী ভবন সংলগ্ন একটি ক্লাবে প্রচণ্ড বিস্ফোরণ হয়। ক্লাবের ছাদ ও দেওয়ালের এক অংশ উড়ে যায়। বঙ্গ বিজেপি এই ঘটনার এনআইএ তদন্তের দাবি জানিয়েছে। হুগলির সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়, রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু এই ঘটনার কেন্দ্রীয় তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। রাজ্যের কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় টুইট করে অভিযোগ করেছেন নির্বাচনের আগে এভাবেই অস্থিরতা সৃষ্টি করতে চাইছে তৃণমূল। ঘটনা হল এদিন বেলেঘাটার মতো জনবহুল এলাকায় একটি ক্লাবে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় তীব্র প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়েছে এলাকায়।

মঙ্গলবার বিকেলে ঘটনাস্থলে যান লকেট চট্টোপাধ্যায়। তিনি স্পষ্ট বলেন,’ আমরা এই ঘটনার এনআইএ তদন্ত দাবি করছি। এই ক্লাবটি কিছুদিন আগে মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা পেয়েছে। আসলে মুখ্যমন্ত্রী সব ক্লাবগুলোকে বলেছেন, বোমা মজুত করতে। মানুষের আশীর্বাদে তো উনি জিতবেন না। তাই মানুষ মেরে ভোটে জিততে চাইছেন উনি। আমি দাবি করছি যে সমস্ত ক্লাব মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা পেয়েছেন প্রত্যেকটা ক্লাবে তল্লাশি চালানো হোক। সেটাতো রাজ্য পুলিশ দিয়ে হবে না , তাই এনআইএ তদন্তের দাবি করছি। আমাদের আশঙ্কা নির্বাচনের আগে রাজ্যে জঙ্গি কার্যকলাপ বাড়বে। খাগড়াগড়ে দিদি বলেছিলেন, গ্যাস সিলিন্ডার ফেটেছে। এনআইএ তদন্ত শুরু করায় বাংলাদেশ পর্যন্ত তদন্তের আঁচ পৌঁছেছে।’

এই ঘটনার প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে সায়ন্তন বসু অভিযোগ করেন, ‘ তৃণমূল সরকারের আমলে এটাই স্বাভাবিক ব্যাপার। পুলিশ, তৃণমূল,জেহাদিদের জোট হয়েছে। আমরা এই বিস্ফোরণের ঘটনার এনআইএ তদন্তের দাবি করছি। বেলেঘাটা বিস্ফোরণকাণ্ডে জেহাদিরা জড়িত, নাকি পরেশ পাল বোমা মজুত করছিল, এনআইএ তদন্ত হলে সত্যিটা বেরিয়ে আসবে।’
এদিকে এই ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গীয় টুইটে লিখেছেন, ‘ বিধানসভা নির্বাচনের আগে রাজ্যে তৃণমূল অরাজকতা তৈরির জন্য চেষ্টা করছে। আজ তার প্রমাণ মিললো। বেলেঘাটার ক্লাবে ভয়াবহ বোমা বিস্ফোরণ ঘটেছে। তীব্রতা এতো বেশি ছিল ক্লাবটির ছাদ উড়ে গিয়ে কয়েক মিটার দূরে গিয়ে পড়েছে। আমাদের সন্দেহ, বড়ো মাত্রায় বিস্ফোরক মজুত করা হচ্ছিল।’

Related Articles

Back to top button
Close