fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণদেশপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

নিজামুদ্দিন না হয়ে অন্য কেউ হতো, বুদ্ধিজীবিরা দেশ তোলপাড় করে দিত, বিস্ফোরক মুকুল

রক্তিম দাশ, কলকাতা: দিল্লির নিজামুদ্দিন মসজিদের ঘটনা যদি অন্য কোথায় হতো বা অন্য কেউ করত তাহলে এতক্ষণে দেশ তোলপাড় করে দিত বুদ্ধিজীবিরা-রবিবার এমনই বিস্ফোরক মন্তব্য করলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়।

এদিন যুগশঙ্খকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে মুকুল রায় বলেন, ‘মৌলবাদি শক্তিরা নিজামুদ্দিন মসজিদে যে ঘটনা করল লকডাউনকে উপেক্ষা করে তা যদি অন্য কেউ অন্য কোথায় ঘটত তাহলে এতক্ষণে বুদ্ধিজীবিরা মাঠে নেমে পড়ত। সামজিক মাধ্যমে সমলোচনারা ঝড় বইত। কিন্তু যেহেতু নিজামুদ্দিন তাই সবাই চুপ করে গিয়েছেন!’

এদিন মুকুলবাবু লকডাউনকে সমর্থন করে বলেন, ‘এখন সামাজিক দূরত্ব মেনে লকডাউন ছাড়া আর কোনও উপায় নেই করোনা বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য। এখন দলমত নির্বিশেষে আমাদের উচিত এই লড়াইকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া।’

আরও পড়ুন: করোনা মোকাবিলায় চাই প্রচুর অর্থ, অনলাইনে বিক্রি হচ্ছে ‘স্ট্যাচু অফ ইউনিটি’!

মুকুলবাবু আরও বলেন, ‘করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ভারত গোটা বিশ্বকে পথ দেখাচ্ছে। এই লড়াইয়ে আজ সবাই ঐক্যের বার্তা দিতেই আমরা সকলে প্রদীপ জ্বালালাম। প্রধানমন্ত্রী সেই বার্তাই আমাদের দিয়েছিলেন। করোনা ভাইরাসের মোকাবিলা করতে নেমে মৃত্যুর সংখ্যা ভারত একটা জায়গায় আটকে দিয়েছে। অথচ উন্নত বিশ্বের বহু রাষ্ট্র এই আক্রমণে নাজেহাল হয়ে গিয়েছে। বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে চিকিৎসা বিজ্ঞানে সেই সব রাষ্ট্র আমাদের থেকে অনেক এগিয়ে। কিন্তু ভারত ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করে পথ দেখাচ্ছে, মোদিজির নেতৃত্বে সারা বিশ্বকে পথ দেখাচ্ছে।’

রবিবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর প্রদীপ ও মোমবাতি জ্বালানোর আহ্বান নিয়ে যে সমলোচনা হচ্ছে তার উত্তরে মুকুলবাবু বলেন, ‘সিম্বল অফ ইউনিটির জন্যই প্রধানমন্ত্রী প্রদীপ জ্বালানোর ডাক দিয়েছেন। তাই অ্যাস্ট্রলজিক্যাল ব্যাখ্যা বা বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যায় আমি যাচ্ছি না। এসবের অনেক সময় রয়েছে, সিম্বল অফ ইউনিটি হিসেবে দেখাতে হবে সারা ভারত এক হয়ে করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করছে। এখন সময় হচ্ছে গোটা দেশকে একসঙ্গে রুখে দাঁড়ানোর। একটা সলিডারিটি দেখানোর। ইউনিটি দেখানোর জন্য। দেখবেন ক্রিকেট খেলায় যখন দুই দল একসঙ্গে মাঠে নামে ১১ জন খেলোয়াড় গোল করে দাঁড়িয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে পরস্পরের মনোবল বাড়ানোর কাজ করেন।”

আরও পড়ুন: লকডাউনের সময় মিষ্টির দোকান একবার বন্ধ আর একবার চালু করে অদূরদর্শিতার পরিচয় দিল পশ্চিমবঙ্গ

মুকুলবাবু বলেন, ‘এখন সমলোচনার সময় নয়, এসবের অনেক সময় রয়েছে, সিম্বল অফ ইউনিটি হিসেবে দেখাতে হবে সারা ভারত এক হয়ে করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করছে।’

করোনাকে কেন্দ্র করে বাজারে নিত্যপণের কালোবাজারি চলছে বলে মুকুল রায়ের দাবি করে তিনি বলেন, ‘এটা কড়া ভাবে দমন করতে হবে। রাজ্য সরকার করোনা মোকাবিলায় সাধ্যমত করছে। কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে দেশের সবকটি রাজ্য সরকার হাত মিলিয়েছে এই ভাইরাসের মোকাবিলায় নেমেছে।

Related Articles

Back to top button
Close