fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

কয়লাখনি বেসরকারিকরণ সহ ১২ দফা দাবিতে টানা ৯ দিন আন্দোলন

শুভেন্দু বন্দোপাধ্যায়, আসানসোল: কয়লাখনি কমার্শিয়াল বা বাণিজ্যকরণের বিরোধিতা করে ও একতরফা কয়লাখনি বন্ধের প্রতিবাদ সহ ১২ দফা দাবিতে দেশজুড়ে কয়লা শিল্পে লাগাতার আন্দোলনের ডাক দেওয়া হলো। আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে ৮ অক্টোবর পর্যন্ত ভারতীয় মজদুর সংঘ বা বিএমএস সহ পাঁচটি সর্বভারতীয় শ্রমিক সংগঠন দেশজুড়ে এই আন্দোলনে নামতে চলেছে। টানা ৯ দিন ধরে চলা এই আন্দোলনের পরেও যদি কেন্দ্র সরকার সিদ্ধান্ত বদল না করে তাহলে পুজোর মরশুমের পর কয়লা শিল্পে লাগাতার ধর্মঘটের সম্ভাবনার কথা জানিয়ে দিয়েছেন ৫ শ্রমিক সংগঠনের নেতারা।

এই আন্দোলনের জন্য সর্বভারতীয় খনি শ্রমিক সংগঠনের নেতারা ভার্চুয়াল বৈঠক করেছেন। ভারতীয় মজদুর সংঘের সর্বভারতীয় নেতা বসন্ত কুমার রাই বলেন, সভাপতিত্বে সর্বভারতীয় খনি শ্রমিক সংগঠন এআইটিইউসির রমেন্দ্র কুমার, হিন্দ মজদুর সভার নাথুলাল পান্ডে, সিটুর ডিডি রামচন্দ্রন এবং আইএনটিইউসির এস কিউ জামার উপস্থিতিতে এক বৈঠক করা হয়েছে। সেই বৈঠকে ১২ দফা দাবি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। দাবিগুলোর মধ্যে অন্যতম ছিল কয়লা শিল্পে কমার্শিয়াল মাইনিং বন্ধ করতে হবে। খনির জন্য নেওয়া জমির পরিবর্তে  জমিদাতাদের চাকরি না দেওয়ার প্রস্তাব বাতিল করতে হবে। একতরফা ইসিএল ও  বিসিসিএল সহ বিভিন্ন কয়লা খনি বন্ধ করা যাবে না। এছাড়াও জোর করে নির্দিষ্ট সময়ের আগেই কর্মীদের চাকরি থেকে অবসর দেওয়া যাবে না। সিএমপিডিআইএলকে  কোল ইন্ডিয়া থেকে পৃথক করা চলবে না। পাশাপাশি কৃষকের অধিকার কেড়ে নেওয়া তিনটি কৃষি বিল ও শ্রমিক বিরোধী শ্রম বিল  প্রত্যাহার করতে হবে।

[আরও পড়ুন- নিখোঁজ থাকার পর আমবাগান থেকে পার্শ্ব শিক্ষকের দেহ উদ্ধার]

এআইটিইউসির রাজ্য সভাপতি প্রাক্তন সাংসদ  রামচন্দ্র সিং, বলেন, ৩০ সেপ্টেম্বরের থেকে ৮ অক্টোবর পর্যন্ত কয়লা খনি বেসরকারিকরণের প্রতিবাদ সহ ১২ দফা দাবিতে কিভাবে আন্দোলন করা হবে তার রূপরেখা তৈরী করা হয়েছে এদিনের সভায়। শুধু তাই নয় এই আন্দোলনের মধ্যে দিয়েই আমরা কর্মীদের বুঝিয়ে দিতে চাইছি যে আগামী দিনে কয়লাখনির শ্রমিকদের উপরে আরও ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি নেমে আসতে চলেছে।

সিটুর সর্বভারতীয় নেতা গিরিশ শ্রীবাস্তব বলেন,  এবার আমাদের দাবির মধ্যেই শুধু কয়লা শিল্পের শ্রমিকরাই নয়, সাম্প্রতিক কৃষকের অধিকার কেড়ে নেওয়ার ও শ্রমিকদের বিরুদ্ধে যে বিল পাস হয়েছে তার বিরুদ্ধেও একযোগে আন্দোলন করা হবে।

 

Related Articles

Back to top button
Close