fbpx
অসমদেশহেডলাইন

কামাখ্যা মন্দিরে ১৮ কেজির সোনার কল্কা দান নীতা আম্বানির

অভিজিৎ বোস, গুয়াহাটি: ধন-সম্পদ থাকলেই দান করা যায় না৷ এর জন্য মনটাও চাই৷ দানের এই মন নিয়েই সদাজাগ্ৰত মা কামাখ্যার প্ৰতি শ্ৰদ্ধাবনত হয়ে ১৮ কিলোগ্ৰাম ওজনের সোনার কল্কা দান করলেন নীতা আম্বানি৷ তাঁর দেওয়া এই কল্কাগুলি কামাখ্যা মন্দিরের চূড়োয় লাগানো হচ্ছে৷ ১৮ কেজি সোনার কল্কা যা নীতা অম্বানি দিয়েছেন বলে জানালেন মন্দির কৰ্তৃপক্ষ৷ সোনার এই কল্কা মন্দিরের চূড়ায় শোভিত হলে বলাবাহুল্য আরও দৃষ্টিনন্দন মন্দিরের চূড়া৷

 

এদিকে, উল্লেখ্য, কামাখ্যা মন্দির বন্ধ হওয়ার ২০০ দিন পেরিয়ে গেছে ইতিমধ্যে৷ এখনও মায়ের মন্দির বন্ধই রয়েছে ভক্তদের জন্য৷ বন্ধ মন্দিরের মূল দরজাও৷ তবে কামাখ্যা মন্দির ভক্তদের জন্য খুলে দেওয়ার  প্ৰস্তুতি চলছে৷ যদিও তা এখনও প্ৰাথমিক পৰ্যায়ে, চূড়ান্ত হয়নি৷ এসম্পৰ্কে কামাখ্যা মন্দির পরিচালনা কমিটির দলৈ মোহিতচন্দ্ৰ শৰ্মা জানিয়েছেন যে, খুব তাড়াতাড়ি ভক্তদের জন্য খোলা হবে কামাখ্যা মন্দিরের দরজা৷ প্ৰস্ততি শেষের দিকে৷ ৯ সেম্বের দলৈ সমাজ ও স্থানীয় মানুষের সঙ্গে বৈঠক করে মন্দির খোলার দিন ঠিক করা হবে৷

 

ইতিমধ্যে কামাখ্যা মন্দিরের কাছে থাকা গাড়ি পাৰ্কিং-এর কিছু স্থান নিয়ে প্ৰশাসনের পক্ষ থেকে বেঁধে দেওয়া স্বাস্থ্য বিধি মানার ব্যবস্থা করা হচ্ছে৷ থাকবে কোভিড পরীক্ষার ব্যবস্থাও৷ মন্দিরের প্ৰবেশের আগে প্ৰত্যেক ব্যক্তির কোভিড নেগেটিভ রিপোৰ্ট দেখাতে হবে৷ এই মূহূৰ্তে প্ৰশাসনের বেঁধে দেওয়া নিয়ম মেনে ষাটৰ্টাধ্ব ও শিশুদের প্ৰবেশে বন্ধ রাখা হয়েছে মন্দিরে৷ ভক্তরা মূল মন্দিরের প্ৰবেশের পরিবৰ্তে কেবল প্ৰদক্ষিণ করার অনুমতি পাবেন৷ এই নিয়ম সবার জন্য প্ৰযোজ্য, ভিভিআইপিও৷ প্ৰশাসনের দেওয়া নিয়ম মেনে ভক্তদের মধ্যে প্ৰসাদ বিতরণ বন্ধ রাখা হবে৷

তিনি আরও জানান, মন্দিরের প্ৰবেশ দরজা ভক্তদের জন্য বন্ধ থাকলেও প্ৰতিদিন রীতিনীতি মেনেই মায়ে নিত্যপূজো চলছে হাতে গোনা পূজারীদের উপস্থিতিতে৷ মন্দির কৰ্তৃপক্ষ আরও জানান, মন্দিরে ভক্তরা না আসায় এখানকার ক্ষুদ্ৰ ব্যবসায়ীরা বহু অসুবিধার মুখে পড়েছেন৷ তাঁরা আৰ্থিকভাবে অসুবিধার মধ্যে পড়েছেন স্বাভাবিকভাবেই৷ মন্দির খুলে গেলে মন্থর গতিতে হলেও  এইসব সমস্যার কিছুটা সমাধান হবে৷ এছাড়াও কামাখ্যা মন্দির সংস্কারের কাজ শু হয়ে গেছে ইতিমধ্যে৷

কয়েক বছর আগে কামাখ্যা মন্দিরের চূড়োয় সোনার কলসী বসানো হয়েছে৷ তবে  এই সোনার কলস কে দিয়েছেন, কীভাবে স্থাপন করা হয়েছে তা জানা যায়নি, কেউ জানায়ওনি এ পৰ্যন্ত৷ তবে এবার কামাখ্যা মন্দিরের মূল মন্দিরের চূড়োতে ইতিমধ্যে নীতা আম্বানি দেওয়া ১৮ কেজি সোনা দিয়ে তৈরি কল্কা লাগানোর কাজ প্ৰায় শেষের দিকে৷ আর মাত্ৰ ১০ দিন কাজ হলেই ওই সোনার কল্কা দেখতে পাবেন ভক্তরা৷ মুম্বাই থেকে ১০ জনের একটি বিশেষজ্ঞ দল এসে ওই সোনার কল্কা বসানোর কাজ চালাচ্ছে এক মাস ধরে৷

Related Articles

Back to top button
Close