fbpx
কলকাতাহেডলাইন

‘আড্ডা হোক বাড়িতে’ আগমনীর আবাহনে মাতছে ম্যাডক্স কর্তৃপক্ষ

'বিশ্রাম বিশে, আড্ডা একুশে'

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: আতঙ্ককে সঙ্গী করেই শহরের বুকে সুর উঠেছে দেবীর আগমনবার্তা। শহর জুড়ে সাজো সাজো রব। করোনা আবহে কৈলাশ থেকে সন্তানদের নিয়ে মর্তে আসছেন উমা। এরই মধ্যে দুর্গাপুজো নিয়ে জারি করা হয়েছে সরকারি নির্দেশও। সরকারি নির্দেশ মেনেই পুজোর আয়োজন করছেন বিভিন্ন পুজো উদ্যোক্তারা। আর এবার, পুজোকে কেন্দ্র করে তাদের ফেসবুক পেজে বার্তা দিল ম্যাডক্স স্কোয়্যার কর্তৃপক্ষ। ‘বিশ্রাম বিশে, আড্ডা একুশে।’

সোশ্যাল মিডিয়ায় এই বার্তা শেয়ার করে ম্যাডক্স কর্তৃপক্ষ এবার বুঝিয়ে দিতে চাইছেন, প্রতিবারের মতো নয়, এবারের পুজো। করোনা আবহের মধ্যে এবারের পরিস্থিতি একেবারে আলাদা। সেই কারণেই এবারে আর মাঠে বসে আড্ডায় মজতে চাইছে না ‌কর্তৃপক্ষ। প্রত্যেক বছর আড্ডা, প্রেম, গান, হুল্লোড়, খাওয়া দাওয়া-তে মেতে ওঠে ম্যাডক্স স্কোয়ার প্রাঙ্গন। বছরের এই ক’‌টি দিন সব বয়সি মানুষরা বন্ধু-‌আত্মীয়দের সঙ্গে মিলিত হন, আড্ডা চলে রাত পর্যন্ত। কিন্তু এবারের পুজো একটু অন্যরকমের, পুরোন সব নিয়মে পড়েছে ছেদ।

ফাইল চিত্র

খাওয়া দেওয়া আর চুটিয়ে আড্ডাতে মুখরিত হয়ে ওঠে ম্যাডক্স স্কোয়ারের মাঠ। এবার যেমন আড্ডা থাকছেনা তেমনই থাকছেনা খাবার স্টলও। ম্যাডক্স কর্তৃপক্ষের তরফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে যে, এবার যারা আসবেন, তারা যেন শুধু ঠাকুর দেখেই বেরিয়ে যান। সেই আবেদনই জানানো হচ্ছে ক্লাব কর্তৃপক্ষের তরফে। জানা গিয়েছে, কোথাও ভিড় নয়, জটলা নয়, সব জায়গায় সামাজিক দূরত্ব, স্বাস্থ্যবিধি মেনে পুজোর প্রতিটা দিন এবার অন্যরকম কাটবে ম্যাডক্সের।

আরও পড়ুন: ‘দুর্গাপুজো ঘরে বসে হয় না’, উত্‍সব নিয়ে সমালোচনার জবাব মুখ্যমন্ত্রীর

পাশাপাশি, এবছর পুজো প্রাঙ্গনে সবসময় মাইকিং চলবে বলে জানান পুজোর উদ্যোক্তাদের মধ্য অন্যতম অনিমেশ চট্টোপাধ্যায়। পাশাপাশি তিনি আরও জানান, মূল মণ্ডপ ব্যারিকেড করা থাকবে। সেখানে কেউ ঢুকতে পারবেন না। শুধু বাইরে থেকে ঠাকুর দেখে বেরিয়ে যেতে পারবেন দর্শকরা। এবারে করোনা প্রকোপের কারণেই ম্যাডক্স স্কোয়ার কর্তৃপক্ষ বলছেন, এবার আড্ডা হোক বাড়িতে, এখানে নয়।

অন্যদিকে, সন্তোষ মিত্র স্কোয়্যারের পথেই হাঁটল বেহালার দেবদারু ফটক পুজো কমিটি। দর্শনার্থীদের আসতে মানা করা হয়েছে। কমিটি প্রচারে জানিয়েছে, ‘‌এবার দেবদারুর ফটক বন্ধ। ‌বাড়িতে থাকুন, সু্স্থ থাকুন। দেখা হবে একুশে। বেহালার ওই পুজো কমিটি করোনা-‌আবহের জন্যই ভিড় আটকাতে এই উদ্যোগ নিয়েছে। দর্শকবিহীন পুজো হবে। ভার্চুয়াল পুজোর প্রচার করতে এই পুজো কমিটি অ্যাপ রয়েছে এমন কয়েকটি সংস্থার সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধেছে। পুজো কমিটির ফেসবুক পেজেও পুজোর প্রতিটি মুহূর্ত প্রচার করা হবে। পথচলতি মানুষকে পুজোমণ্ডপ ও পুজো দেখাতে ডায়মন্ড হারবার রোডের ওপর একটি জায়ান্ট স্ক্রিন বসানোর জন্য পুলিশের অনুমতির আবেদন করেছে দেবদারু ফটক। এদিকে, সন্তোষ মিত্র স্কোয়্যারের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাতে বৃহস্পতিবার বেশ কয়েকজন নামী চিকিত্‍সক সেখানে যান। কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলেন। উদ্যোগের সাধুবাদ জানান।‌

Related Articles

Back to top button
Close