fbpx
কলকাতাগুরুত্বপূর্ণদেশপশ্চিমবঙ্গবিজ্ঞান-প্রযুক্তিহেডলাইন

ইঞ্জেকশনে আর ব্যথা নয়, এবার বাজারে আসছে বিশেষ ধরনের সূঁচ

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ইঞ্জেকশনের সূঁচ ফোটাতে ভয় পান না, এই রকম মানুষ খুব কমই আছে। বাচ্চা থেকে বড় সকলেরই সূঁচ ফোটাবার নাম শুনলেই প্যানিক তৈরি হয়। সূঁচের সিরিঞ্জ যত শরীরের দিকে এগোতে থাকে ততই সেই প্যানিক ক্রমশ দ্বিগুণ হতে থাকে। ছোটদের বিষয়টা আরও মারাত্মক। সূঁচ ফোটাবার সঙ্গে সঙ্গে শুরু হয় কান্নার রোল।

এবার সেই সমস্ত ভয় দূর করতে আসছে একটি বিশেষ ধরনের একটি সূঁচ। যা শরীরে ফোটালে কোনও ব্যথা লাগবে না। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের খড়গপুর আইআইটি এমন এক বিশেষ ‘নিডল’ আবিষ্কার করেছে যা দিয়ে ইঞ্জেকশন দিলে একেবারেই মালুম পাওয়া যাবে না। এই বিশেষ ধরনের সূঁচটির নাম মাইক্রো নিডল। এই সূঁচটি বিশেষত্ব হল চুলের চেয়েও সরু।

মানুষের চুল যেখানে ৫০-৭০ মিলিমিটার ঘন, সেখানে এই সূঁচের ঘনত্ব মাত্র ৫৫ মিলিমিটার। এর সঙ্গে মানানসই এক পাম্পও আবিষ্কার হয়েছে। সেটিকে বলা হচ্ছে মাইক্রো পাম্প।

আরও পড়ুন: ডা: কাফিল খানকে জেল থেকে ছাড়ার নির্দেশ হাইকোর্টের, খুশি CAA বিরোধীমহলে

এই উদ্ভাবনার নেপথ্যে রয়েছেন খড়গপুর আইআইটির ইলেকট্রনিক ও ইলেট্রিক্যাল কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের গবেষক অধ্যাপক তরুণকান্তি ভট্টাচার্য। করোনা টিকা দেওয়ার ক্ষেত্রে এই বিশেষ নিডল ও মাইক্রো পাম্প বিশেষ উপযোগী হবে। প্রকল্পটিকে আর্থিক সহায়তা করেছে কেন্দ্রীয় সরকারের ইলেকট্রনিক্স এবং তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিভাগ।
প্রাণীদেহে এই মাইক্রো নিডলটির সফল প্রয়োগ হয়েছে, এখন মানব শরীরে ট্রায়াল সম্পন্ন হলেই বাজারে আসবে। একবার এই ইঞ্জেকশন বাজারে এলে ইনসুলিন কিংবা অন্যান্য অসুখের ড্রাগও এই বিশেষ ইঞ্জেকশন দ্বারা নেওয়া সম্ভব।

Related Articles

Back to top button
Close