fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত… ইছাপুরের মন্দির, মসজিদ ও গির্জায় স্যানিটাইজ করলেন নোয়াপাড়ার তৃণমূল কর্মীরা

অলোক কুমার ঘোষ, ব্যারাকপুর: রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সর্ব ধর্ম সমন্বয়ের বার্তাই দেন দলীয় কর্মী তথা আম জনতার উদ্দেশ্যে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সকলের উদ্দেশ্যে বারংবার বলেন, “ধর্ম যার যার, তবে উৎসব সবার”। এবার মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ মেনে নিয়ে উত্তর ২৪ পরগনার নোয়াপাড়া শহরের তৃণমূল কর্মীরা শুক্রবার দিনভর নোয়াপাড়া অঞ্চলের মন্দির, মসজিদ, গির্জায় গিয়ে স্থানীয় ধর্মীয় স্থান গুলিকে নিজেদের উদ্যোগে স্যানিটাইজ করে দিলেন। নোয়াপাড়া বিধানসভা এলাকার ইছাপুর অশোক নগর মসজিদ, স্থানীয় কালী মন্দির, ইছাপুর গুরুদুয়ারা, গীর্জা, হরিচাঁদ গুরুচাঁদ মন্দিরে গিয়ে সমস্ত ধর্মীয় স্থানগুলি স্যানিটাইজ করে দেন তৃণমূল কর্মীরা। রাত পোহালেই শনিবার ঈদ। তাই মসজিদে আগত সংখ্যালঘু ভাইরা যাতে করোনা মুক্ত ও নিরাপদ থাকতে পারে, এবং একই সঙ্গে কালী মন্দিরে আসা ভক্তরা ও যাতে সুরক্ষিত থাকে, সেই কারনে মন্দির, মসজিদ সবই স্যানিটাইজ করে দেন স্থানীয় তৃণমূল কর্মীরা।

আরও পড়ুন:রেলপথের জরুরি মেরামতি, নজরদারির জন্য নয়া উদ্ভাবন ‘রেল বাইসাইকেল’: পীযূষ গোয়েল

নোয়াপাড়ার তৃণমূল যুব নেতা প্রসূন সরকার বলেন, “সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত স্থাপন করে আমরা মন্দির, মসজিদ, গির্জা, গুরুদুয়ারা সর্বত্র স্যানিটাইজ করে দিলাম। মানুষ যাতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ধর্মীয় স্থানে সুরক্ষিত ভাবে ধর্মাচরণ করতে পারে, সেই কারণে মুখ্যমন্ত্রীর আদর্শ মেনে নোয়াপাড়ার তৃণমূল কর্মীরা স্যানিটাইজেশনের কর্মসূচী পালন করল শুক্রবার। মন্দির ও মসজিদ সহ অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত স্থাপন করে স্যানিটাইজ হওয়ায় খুশি ইছাপুর অঞ্চলের সব ধর্মের সাধারণ মানুষ।

Related Articles

Back to top button
Close