fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

রোগি ভর্তিতে নিয়ন্ত্রণের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার, ফের বিতর্কে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল

সঞ্জিত সেনগুপ্তর, শিলিগুড়ি: সাধারণ রোগি ভর্তিতে নিয়ন্ত্রণের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে নিল উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। একের পর এক ডাক্তার করোনা আক্রান্ত হওয়ার ঘটনাকে সামনে রেখে শনিবার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষ। কিন্তু উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের চাপে সেই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে সোমবার থেকে পরিষেবা স্বাভাবিক করতে বাধ্য হল কর্তৃপক্ষ।

সম্প্রতি এখানকার আট জন চিকিৎসক করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের সংস্পর্শে আসায় আরও ৩৫ জন ডাক্তার এবং ১৫ জন নার্সকে কোয়ারান্টাইন করা হয়েছে। এই পরিস্থিতিকে সামনে তুলে ধরে শনিবার মেডিক্যাল কলেজের ডিন ডাক্তার সন্দীপ সেনগুপ্ত জানিয়েছিলেন, ডাক্তারের অভাবের কারণেই আমরা সাধারণ মানুষের কাছে আবেদন জানাচ্ছি এখন খুব জরুরী প্রয়োজন ছাড়া সাধারণ রোগের চিকিৎসার জন্য কেউ উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আসবেন না।

সোমবার উত্তরবঙ্গের করোনা চিকিৎসা ব্যবস্থার ওএসডি ডাক্তার সুশান্ত রায় এই সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকের পর তিনি জানিয়েছেন, কিছু ডাক্তার করোনা আক্রান্ত হয়েছেন এবং কোয়ারান্টিনে রয়েছেন কিন্তু তাতে ডাক্তারের অভাব দেখা দিয়েছে এটা মেনে নেওয়া যায় না। কেননা সরকারি হিসেবে এই মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে যত জন ডাক্তার রয়েছেন তাতে স্বাভাবিক পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়ার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি। সরকারি হিসেব মেনে এখানকার ডাক্তারদের নিয়ে করোনা চিকিৎসা পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য চারটি প্যানেল করা হয়েছে।

প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ পর্যায় করে কিছু ডাক্তারের প্যানেল তৈরী করার পরও এখানকার হাসপাতালে স্বাভাবিক পরিষেবা বজায় রাখার জন্য ডাক্তার থাকার কথা। এ দিন সেই সরকারি হিসেব সামনে তুলে ধরে প্রিন্সিপাল, হাসপাতাল সুপার এবং বিভাগীয় প্রধানদের সঙ্গে আলোচনা করি। তাতে সাধারণ পরিষেবা স্বাভাবিক রাখার ব্যাপারে সকলেই একমত হয়েছেন।’

এতে স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন উঠেছে ৪৮ ঘণ্টা আগে মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষ যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তাতে স্বাস্থ্য দফতরের অনুমোদন ছিল কি না। যদি সত্যিই ডাক্তাদের সংকটের কারণে ওই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়ে থাকে তাহলে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে কেন সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে এলো উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ? এক্ষেত্রে বেশকিছু ডাক্তারের নিয়মবহির্ভূতভাবে ছুটি নেওয়া এবং তাতে এই মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের প্রশ্রয় থাকার অভিযোগ উঠেছে।

Related Articles

Back to top button
Close