fbpx
কলকাতাহেডলাইন

১৮ আগস্ট থেকে পুরোদস্তুর কোভিড হাসপাতাল হচ্ছে এনআরএস

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: শুধু কোভিড হাসপাতালের শয্যাবৃদ্ধিই নয়, রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে রোগীদের ডায়েটে পুষ্টিকর হাই প্রোটিন খাবারে জোর দিয়েছে রাজ্য সরকার। সূত্রের খবর, করোনা ওয়ার্ড তৈরির পর ১৮ আগস্ট থেকে এবার ১১০ শয্যা নিয়ে কোভিড হাসপাতাল হিসেবে চালু হতে চলেছে এনআরএস হাসপাতাল। একই সঙ্গে করোনা রোগীদের জন্য বিশেষ ডায়েট চার্টেও জোর দিচ্ছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে, এখানকার ৪ তলা চেস্ট বিল্ডিং-এই চালু হবে করোনা রোগীদের চিকিৎসার ব্যবস্থা। ত্বক ও অর্থোপেডিক বিভাগের একাংশেও কিছু শয্যা থাকছে। ওই ওয়ার্ডে ৪টি সিসিইউ বেডও থাকবে। তবে এনআরএস-এ অন্যান্য নন করোনা পরিষেবা আগে যেমন ছিল, তেমনই চলবে। এই মুহূর্তে ১০০ টি বেডে করোনা সন্দেহভাজনদের চিকিৎসা চলছে। এরপর করোনা পজিটিভ রোগীদের পুরোদস্তুর চিকিৎসা করা হবে।

আরও পড়ুন: করোনা কাঁটায় উচ্চতা কমেছে গণেশের, মন খারাপ কুমোরটুলির

স্বাস্থ্য দফতর নির্দেশ দিয়েছে, করোনা রোগীদের পাতে ব্রেকফাস্টে রাখতে হবে পাউরুটি (চার পিস), ডিম (১টা), দুধ (২৫০ এমএল) ও কলা (১টি)। কিন্তু রোজ এই ব্রেকফাস্টে রোগীদের যাতে অরুচি না ধরে, সেজন্য এনআরএস প্রাতঃরাশে কোনওদিন কর্নফ্লেক্স, দুধ, ডিম, কলা ও কোনওদিন উপমা, ডিম ও কলা রাখতে বলা হয়েছে। দুপুরে রোগীদের মেনুতে থাকছে, ভাত (১০০ গ্রাম), ডাল (৫০ গ্রাম), মরসুমি সবজি ও মাছ বা মুরগির মাংসের ৮০-৯০ গ্রামের পিস। শেষ পাতে থাকছে টক দই। রোজ দুপুরেই আমিষ হিসেবে মাছ বা মাংসের কোনও পদ রাখা হবে। রাতের খাবারে ভাত (১০০ গ্রাম), রুটি, ডাল (৫০ গ্রাম), মাছ বা মাংস (১০০ গ্রাম) রাখার নির্দেশ দিয়েছিল স্বাস্থ্য দফতর। এনআরএস কর্তৃপক্ষ সেখানে মাংস বা পনির রাখতে নির্দেশ দিয়েছেন। সরকারি তালিকায় না থাকলেও বিকেলে চা ও সঙ্গে চিঁড়েভাজা বা স্ন্যাকস রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

Related Articles

Back to top button
Close