fbpx
পশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

দিনহাটায় করোনা সংক্রামিতের সংখ্যা দাঁড়াল ৩৬ জন

নিজস্ব সংবাদদাতা, দিনহাটা: গত দুই দিনে লাফিয়ে লাফিয়ে দিনহাটা শহর সহ মহকুমায় করোনা সংক্রামিতের সংখ্যা দাঁড়াল ৩৬ জন। শহরেও আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে। দিনহাটা শহরের ৪ নম্বর ওয়ার্ডে ব্যবসায়ী এক যুবক করোনা সংক্রমিত হতেই পুরসভার পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে শুক্রবার ওই এলাকা জীবাণুমুক্ত করতে স্যানিটাউজ করা হয়। এছাড়াও এলাকার বাসিন্দাদের শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শুরু করেছে পুরসভার স্বাস্থ্যকর্মীরা।

 

পুরসভা সূত্রে জানা গেছে, শহরে এখন পর্যন্ত কত কিছুদিনে মোট ১০ জন আক্রান্ত হয়েছে। এদের মধ্যে অনেকেই সুস্থ হয়ে ফিরে এসেছেন।পুরসভার প্রশাসক উদয়ন ক্রান্তি শিলিগুড়ির একটি নার্সিংহোমে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এদিকে মহকুমা প্রশাসন সূত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী নতুন করে সংক্রামিত ৩৬ জন সংক্রমিত হয়েছে। এদের মধ্যে ১ জন দিনহাটা পুরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা। বাকি ৩৫ জন দিনহাটা এক নম্বর ব্লকের বিভিন্ন এলাকার।  দিনহাটা পৌরসভা এলাকার চার নম্বর ওয়ার্ডের এক যুবক করোনা সংক্রমিত হলেও ইতিমধ্যে ওই এলাকা থেকে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে এক স্বাস্থ্যকর্মী মাসখানেক আগে সংক্রমিত হয়। এছাড়াও দিনহাটা শহরের গোসানি রোডে একই পরিবারের ৩ জন সংক্রমিত হয়। তিনজনই সুস্থ হয়েছে মধ্যে বাড়ি ফিরে এসেছেন। এখনো যারা আক্রান্ত রয়েছেন তাদের মধ্যে দিনহাটা পুরসভার প্রশাসক উদয়ন গুহ শিলিগুড়ি একটি বেসরকারি নার্সিংহোমে চিকিৎসাধীন। এছাড়াও কয়েকজন ব্যবসায়ী ও স্বাস্থ্য কর্মী কোচবিহারের চিকিৎসাধীন।

এদিকে দিনহাটা শহর সহ মহাকুমায় প্রতিদিন আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে বাসিন্দাদের মধ্যে। এই পরিস্থিতিতে কড়া লকডাউন ঘোষণা করার কথাও বলেন অনেকে। দিনহাটা মহকুমা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দিনহাটা পৌরসভা এলাকা ও দিনহাটা 2 ব্লক কন্টেনমেন্ট জোন করা ছাড়াও দিনহাটা ১ ব্লক এর বেশ কিছু এলাকা কন্টেনমেন্ট জোন করা হয়। আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চললেও হাট বাজারে ভিড় বেড়ে চলছে তাল মিলিয়ে ।এখনো হুঁশ না ফেরায় যেকোনো সময় বড় ঘটনা ঘটলেও আশ্চর্যের কিছু থাকবে না বলেও উল্লেখ করেন অনেকে। অবিলম্বে বাজারে ভিড় কমাতেও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য প্রশাসনিক হস্তক্ষেপ দাবি করেন অনেকে।

 

উল্লেখ্য দিন কয়েক আগেই স্বাস্থ্য দফতরের উদ্যোগে দিনহাটার এক দুই ও সিতাই ব্লকের গিতালদহ, বামনহাট, সিতাই ও ভিলেজ এক গ্রাম সহ একাধিক স্থানে ক্যাম্প করে বাসিন্দাদের লালার নমুনা নেওয়া হয়েছিল। তারই রিপোর্ট আসতেই ৩৬ জনের করণা পজেটিভ ধরা পড়ে। এই আক্রান্তদের সংস্পর্শে কারা কারা এসেছিল তাদেরও চিহ্নিত করা ছাড়াও অবিলম্বে লালারস পরীক্ষা করার কথা বলেন অনেকেই। তবে স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গেছে দিনহাটা মহকুমা হাসপাতালে রেপিড টেস্ট শুরু হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে মহকুমা শাসক শেখ আনসার আহমেদ জানান, সব রিপোর্ট তাদের কাছে এসে পৌঁছায়নি। তবে যারা সংক্রমিত হচ্ছে তাদের শারীরিক অবস্থা বুঝে তাঁদের হোম আইসোলেশন, সেফ হোম কিংবা কোভিড হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হবে

Related Articles

Back to top button
Close