fbpx
আন্তর্জাতিকগুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

নেপালের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে ভারতের হস্তক্ষেপের অভিযোগ তুলে আক্রমণে ওলির সরকার

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: ভারতের বিরুদ্ধে বড়সড় অভিযোগ আনলেন নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা ওলি। রবিবার এক অনুষ্ঠানে ভারতের দিকে তীব্র বিষোদগার উগরে দিয়ে নেপালের প্রধানমন্ত্রী বলেন, নেপালের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে হস্তক্ষেপ করছে ভারত।

সেইসঙ্গে তিনি অভিযোগ এনে বলেন ‘নয়া মানচিত্র প্রকাশের পরেই তাঁর সরকারকে উৎখাতের ষড়যন্ত্র শুরু করা হয়েছে। আর তাদের এই কাজে মদত দিচ্ছে ভারতীয় গণমাধ্যম, বুদ্ধিজীবিদের একাংশ, ভারতের সরকারি আধিকারিক ও নেপালের কিছু রাজনৈতিক নেতা।’

আরও পড়ুন:উত্তপ্ত উপত্যকা…সেনা-জঙ্গি গুলির লড়াইয়ে নিকেশ হিজবুল কমান্ডার সহ ২

সরাসরি নাম না করলেও নিজের দল নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির অন্যতম নেতা তথা দেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী পুষ্পকুমার ধামাল ওরফে প্রচণ্ডকেও পরোক্ষে আক্রমণের নিশানা বানান তিনি। সেই সঙ্গে ওলি হুঁশিয়ারিও দেন, ‘কেউ যেন চিন্তা না করেন নয়া মানচিত্রের জন্য এই দেশের প্রধানমন্ত্রীকে পদ থেকে সরিয়ে দেবেন।’

তবে নেপালের প্রধানমন্ত্রীর অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের পক্ষ সাফ জানিয়ে দেওয়া হয়েছে ‘ভারত কখনই প্রতিবেশী দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে কখনই হস্তক্ষেপ করেনি। ভবিষ্যতেও করবে না। সুনির্দিষ্ট রাজনৈতিক অভিসন্ধি থেকেই নিজেদের অভ্যন্তরীণ ঝামেলার দায় ভারতের ওপর চাপানো হচ্ছে।’

ভারতের লিপুলেখ, কালাপানি ও লিম্পিয়াধুরাকে নিজেদের বলে দাবি করে নয়াদিল্লির বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছে নেপাল সরকার। এমনকি তিন ভূখণ্ড নিয়ে নয়া মানচিত্রও প্রকাশ করা হয়েছে। এদিকে এই অবস্থার মধ্যে বেঁকে বসেছেন পুষ্পকুমার ধামাল ওরফে প্রচণ্ড। তিনিও নেপাল কমিউনিস্ট পার্টির ভারত বান্ধব নেতারা ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে ওলির ইস্তফা দাবি করেছেন এবং প্রয়োজনে দল ভেঙে দেওয়ারও হুমকি দিয়েছেন।

অন্যদিকে দলের অন্যতম নেতা প্রচণ্ডের দাবি মেনে তিনি ইস্তফা দেবেন না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন ওলি।
প্রসঙ্গত, কোনও অবস্থাতেই মানচিত্র বদলানো হবে না বলে ভারতকে সাফ জানিয়ে দেয় নেপাল। ১২ জুন নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই বিবৃতি প্রকাশ্যে আসে। লাদাখে সীমান্ত সংঘর্ষের আবহেই লিপুলেখ গিরিপথ, লিম্পিয়াধুরা ও কালাপানিকে নিজেদের দেশের অংশ হিসেবে দেখিয়ে নতুন মানচিত্র করে নেপাল। এ নিয়ে দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা চরমে ওঠে।ভারত আপত্তি জানালেও নিজেদের সিদ্ধান্তেই অনড় থাকার কথা জানিয়ে দেয় নেপাল।

আরও পড়ুন: অবশেষে স্বস্তি, করোনার হাত থেকে রক্ষা পেলেন মেঘালয়ের মুখ্যমন্ত্রী

আরও জানা গিয়েছে, লিপুলেখ গিরিপথ থেকে কৈলাস-মানস সরোবরে যাওয়ার পথ পর্যন্ত একটি রাস্তার উদ্বোধন করেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহ। তাতে প্রতিবাদ জানায় ওলির সরকার। তারপরই ওই বিতর্কিত মানচিত্র প্রকাশ করা নিয়ে নিয়ে তীব্র আপত্তি জানায় ভারত। এমনকী নেপালের এই ধরনের কর্মকাণ্ডের পিছনে চীনের উস্কানি থাকতে পারে বলেও ইঙ্গিত দেয় ভারত।

Related Articles

Back to top button
Close