fbpx
গুরুত্বপূর্ণপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

‘করোনা শেষ হলেই সিএএ হবে, আমি বলে গেলাম’ শিলিগুড়ি থেকে হুংকার শাহের

যুগশঙ্খ, ওয়েবডেস্ক: দু’দিনের বঙ্গ সফরে শিলিগুড়িতে আজ শিলিগুড়ি থেকেই রাজ্যের শাসক দলের বিরুদ্ধে ম্যারাথন আক্রমণ চালালেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

অমিত শাহ বলেন “উত্তরবঙ্গের সঙ্গে মমতা দিদি সবসময় অন্যায় করেছেন। এখানে মেট্রো কর্পোরেশন বানাননি। বিদ্যুতের দাম, পেট্রলের দাম এখানে সবচেয়ে বেশি। গরিব মানুষরা এখানে আয়ুষ্মান যোজনার সুফল পায় না। উত্তরবঙ্গে কোনও ব্যবসা আসেনি। এখানে উত্তরবঙ্গের আদিবাসী জনজাতির মধ্যে ভেদাভেদ করতে চায় তৃণমূল। আমরা সেটা হতে দেব না।

অমিত শাহকে বলেন, রাজবংশী এবং গোর্খাদের জন্য ব্যাটেলিয়ন বানানোর কথা বলা হয়েছিল, তার কি হল। একমাত্র বিজেপিই গোর্খাদের কথা ভাবে’। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, করোনেশন ব্রিজ তৈরি হচ্ছে। উত্তরবঙ্গে চার লেন করিডর তৈরি হবে। গোরক্ষপুর থেকে শিলিগুড়ি পর্যন্ত ৫৪২ কিমি নতুন রাস্তা হবে। সেবক-রংপো রেললাইন হচ্ছে। ১৩০০ কোটি খরচে বাগডোগরা বিমানবন্দর আধুনিককরণ করা হবে। ৩৫০ কোটি ব্যয়ে নিউ জলপাইগুড়ি রেলস্টেশন মডেল স্টেশনে রূপান্তিরত করা হবে। দার্জিলিংয়ের পর্যটন ব্যবসার প্রসার কাজ চলছে। জিটিএ নয়, সংবিধানের মধ্যে থেকেই সব সমস্যার সমাধান হবে।

এদিন সভার শুরুতেই ভারত মাতা কি জয় স্লোগান তোলেন তিনি। এই প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মন্তব্য ছিল, কলকাতায় মমতাদিদিও যেন আমার কথা শুনতে পান। এত জোরে বলুন, ভারত মাতার জয়। এদিন তিনি মঞ্চে উপস্থিত সুকান্ত মজুমদার, শুভেন্দু অধিকারী, দিলীপ ঘোষ, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিশীথ প্রামাণিক এবং জন বার্লা-সহ উত্তরবঙ্গের সকলকে প্রণাম জানিয়ে সভা শুরু করেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘একবছর পর বাংলায় কেন, বলব। আজ উত্তরবঙ্গে এসে পঞ্চানন বর্মাকে প্রণাম করে বক্তব্য শুরু করি। আজ এখানে এসে উত্তরবঙ্গ-সহ বাংলার বাসিন্দাকে ধন্যবাদ। গত বছর ভোটে আপনারা বিজেপিকে ৩ থেকে ৭৭ করেছেন। ২ কোটি ২৮ লক্ষ ভোট দিয়ে গ্রামে গ্রামে দলকে মজবুত করেছেন। আপনাদের রায়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃতীয়বার ক্ষমতা এলেন৷ আমরা মেনেও নিলাম। কিন্তু আমরা ভেবেছিলাম উনি তৃতীয়বার শুধরে নেবেন। এক বছর অপেক্ষাও করলাম, দেখলাম উনি শুধরোয়নি। কাটমানি, সিন্ডিকেট, বিজেপি কর্মী খুন কোনওটাই বন্ধ নয়। ভাববেন না, আমরা লড়ব না৷ যতক্ষণ আপনি অত্যাচার, দুর্নীতি বজায় রাখবেন, আমরা লড়বই। পরিণাম অর্জন করেই ছাড়ব।’

ভোট পরবর্তী হিংসা দেখে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন বলেছে এখানে আইনের শাসন চলে না, শাসকের আইন চলে। দেশে কিছু হলে দিদি খুব তৃণমূলের প্রতিনিধি দল পাঠান। বীরভূমে ৮ জন মারা গেলেন, নদিয়ায় ধর্ষণ হল, দিদি প্রতিনিধি দল কই? স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অভিযোগ, ‘বাংলার ঋণ দিন দিন বাড়ছে। তোলাবাজি, কাটমানি চলবে না। উত্তরবঙ্গের এইমস দক্ষিণবঙ্গে নিয়ে গেছেন৷ পেট্রোলে জিএসটি না করে রাজ্য কর বসিয়ে ১১৫ প্রতি লিটার করে রেখেছে। আয়ুষ্মান ভারতে ৫ লক্ষ মানুষ বঞ্চিত। সিএএ নিয়ে নিয়ে তৃণমূল মিথ্যাচার করছে৷ করোনা শেষ হলেই সিএএ হবে, আমি বলে গেলাম। অনুপ্রবেশকারীদের পক্ষে মমতা, শরণার্থীদের নাগরিকত্ব আমরা দেবই। কান খুলে শুনে নাও।’ মমতার কাটমানি, তোলাবাজির বিরুদ্ধে আমরা বিজেপিই লড়ছি। তৃণমূলকে না উপড়ে ফেলে শান্তিতে বসব না। এক বছর সময় দিতেছিলাম। এক বছর পর বলিছি, জনতা আচ্ছা আচ্ছাদের সবক শিখিয়ে দেয়। মনে করিয়ে দিলাম দিদি৷

Related Articles

Back to top button
Close