fbpx
গুরুত্বপূর্ণদেশহেডলাইন

সুরক্ষিত রাখতে এক কুইন্টাল সোনা-রুপো সহ বিপুল ধনরত্ন তুলে দেওয়া হল রাম মন্দির ট্রাস্টের হাতে

যুগশঙ্খ ডিজিটাল ডেস্ক: শ্রীরাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্টের অধ্যক্ষের পক্ষ থেকে ১ কুইন্টাল সোনা ও রুপো রামমন্দির ট্রাস্টকে তুলে দেওয়া হল৷ শ্রীরাম জন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্টের অধ্যক্ষ মহন্ত গোপাল দাস ১ কুইন্টাল সোনা ও রুপো রামমন্দির ট্রাস্টকে তুলে দেন৷ রামজন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্টের মহাসচিব চম্পত রায়কে এই অনুদান তুলে দেওয়া হয়৷ রামলালা-র আধারশিলা স্থাপিত হওয়ার আগে ভক্তরা  যেসব সোনা ও রুপো দিয়েছিলেন সেগুলি সব তুলে দেওয়া হয় রাম মন্দিরের ট্রাস্টে৷ এক কুইন্টাল সোনা-রুপো ছাড়াও বুলন্দশহরের দ্বাদশ মহা লিঙ্গেশ্বর মহাপীঠের ১১ বছরের মন্ত্রপূত রুদ্রাক্ষ, ২১ বছরের মন্ত্রপূত রুপোর মুদ্রা, ১২ জ্যোতির্লিঙ্গের মাটি, জল, নাগনাগিনীদের থেকে বাস্তুদোষ মুক্তকারক যন্ত্র, ন’টি রত্ন তুলে দেওয়া হয় রামমন্দির ট্রাস্টে৷

রামজন্মভূমি তীর্থক্ষেত্র ট্রাস্টের মহাসচিব চম্পত রায় জানিয়েছেন যে, রামমন্দির নির্মাণ নিয়ে গত ২ মাসে ট্রাস্টের অধ্যক্ষ মহন্ত নৃত্য গোপাল দাসের কাছের দান আসছিল৷প্রচুর ভক্ত প্রচুর রুপো দান করছিলেন৷ অনেকে সোনাও দান করেছিলেন। আর এইসব দানই ১ কুইন্টালে গিয়ে পৌঁছেছে৷ যাতে এই বিপুল পরিমাণে ধন সুরক্ষিত থাকে তাই তা ট্রাস্টের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে৷ মন্দির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে প্রতি ঘরে ঘরে যাবে মন্দিরের কর্মচারীরা৷ এই রামমন্দির তৈরির জন্য প্রতি ভক্তের বাড়ি থেকে দান সংগ্রহ করবেন তাঁরা৷

[আরও পড়ুন- কথা রাখলেন মোদি, ৮.৫ কোটি চাষির ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে ১৭,১০০ কোটি দিলেন প্রধানমন্ত্রী]

এর আগে জানা গিয়েছিল যে, রাম মন্দিরের ভূমিপুজোর পরেই মন্দিরের তহবিলে জমা পড়েছিল ৪১ কোটি টাকা। গোটা দেশ থেকে আসতে থাকা সমস্ত অনুদানের পরিমাণ গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৪১ কোটি টাকা। এই করোনা আবহের মধ্যেও দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রচুর মানুষ টাকা দান করেছেন। এমনকি অনেকে অনলাইনেও অনুদান দিয়েছে বলে জানিয়েছিলেন ট্রাস্টের কোষাধ্যক্ষ স্বামী গোবিন্দ দেব গিরি। তিনি জানিয়েছিলেন যে, অনেকে ১১ টাকাও দান করেছেন। মন্দির ট্রাস্টের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল যে, অনাবাসী  ভারতীয়দের থেকে তাঁরা অনুদান নিচ্ছেনা না। কারণ এতে ফরেন কনট্রিবিউশন রেগুলেশন অ্যাক্টের আওতায় অপরাধ করা হবে। সেই টাকা গৃহীত হলে আরও ৫-৭ কোটি টাকা তহবিলে জমা পড়ত। ইতিমধ্যেই ভারতের প্রাচীন তীর্থক্ষেত্র, কুণ্ড ও নদীর জল প্রতিনিয়ত আসছে মন্দিরের ট্রাস্টে৷ এইসব জিনিস মাটির তলায় পুঁতে রাখা হবে৷ মন্দিরের ভিত্তির নিচে সেগুলো থাকবে। গত ৫ আগস্ট প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি রামমন্দিরের ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন।

 

Related Articles

Back to top button
Close