fbpx
একনজরে আজকের যুগশঙ্খপশ্চিমবঙ্গহেডলাইন

বিরোধী প্রার্থী গান গাইছেন! মুর্শিদাবাদের দুটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ নির্বিঘ্নেই, অন্য ভোট নবাবের জেলায়

নিজস্ব প্রতিনিধি, জঙ্গিপুরঃ অন্য ভোট দেখল মুর্শিদাবাদ। ওঠেনি কোনও বড় অভিযোগ, নেই বোমা-গুলির শব্দ, পাওয়া যায়নি বারুদের গন্ধ। বৃহস্পতিবার অত্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন হল জঙ্গিপুর এবং সামশেরগঞ্জে। সেখানে জঙ্গিপুরের বিজেপি প্রার্থী সুজিত দাসকে মনের আনন্দে গান গাইতেও দেখা গেল। শাসক এবং বিরোধী দলের প্রার্থীরা একে অপরের সঙ্গে সৌজন্য বিনিময় করলেন। সব মিলিয়ে এদিন এক ব্যতিক্রমী ভোট হল নবাবের জেলায়। নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী এদিন বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত জঙ্গিপুরে ৭৬.১২ এবং সামশেরগঞ্জে ৭৮.৬০ শতাংশ ভোট পড়েছে।

উল্লেখ্য দুই প্রার্থীর মৃত্যুর কারণে এই দুটি কেন্দ্রে নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়। এদিন ভবানীপুরের সঙ্গে এই দুটি কেন্দ্রেও নির্বাচন সম্পন্ন হল।

এদিন সকাল থেকেই বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে ভোট কেন্দ্রে পৌঁছে গিয়েছিলেন ভোটাররা। সকাল থেকেই ছাতা হাতে ভোটকেন্দ্রের দিকে যেতে শুরু করেন তাঁরা। সকালের দিকে মহিলাদের ভিড় বেশি চোখে পড়ে। কড়া নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয় প্রত্যেকটি বুথ। জঙ্গিপুর বিধানসভার প্রতাপগঞ্জ অঞ্চলের ১৭৫ নম্বর বুথে ইভিএম খারাপ হয়ে যাওয়ায় ভোটগ্রহণে কিছুটা দেরি হয়েছে। অন্যদিকে সামসেরগঞ্জ বিধানসভার অন্তর্গত ধুলিয়ান পুরসভার ২০ নম্বর ওয়ার্ডের বিদায়ী কাউন্সিলর তথা তৃণমূলের কো-অর্ডিনেটের হাবিবুর রহমান ওরফে জোহরকে লাথি মারার অভিযোগ ওঠে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে। তাতে কিছুটা উত্তেজনা তৈরি হয় সেখানে। এদিন জঙ্গিপুরে বুথ পরিদর্শন সেরে বাড়ি ঢোকার মুখে বিজেপি প্রার্থী সুজিত দাসের মুখোমুখি হন তৃণমূল প্রার্থী জাকির হোসেন। তাঁরা একে অপরের প্রতি সৌজন্য বিনিময় করেন। তাঁদের কথায় এই সৌজন্য রাজ্য রাজনীতিতে থাকা উচিত। আর এদিন বেশ ফুরফুরে মেজাজে নদীর চরে বসে বিজেপি প্রার্থী সুজিত দাসকে গান করতে দেখা গিয়েছে। তাঁর দাবি, জয়ের বিষয়টি নিশ্চিত, তাই মেজাজ ফুরফুরে রয়েছে। মুর্শিদাবাদ জেলা বারবার রাজনৈতিক হিংসায় উত্তপ্ত হয়েছে। অতীতে পঞ্চায়েত নির্বাচনে রক্তগঙ্গা বয়ে গিয়েছে জেলার বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে। এমনকী অতীতে বিধানসভা ও লোকসভা নির্বাচনেও ব্যাপক হিংসা ছড়িয়েছে এই জেলায়। কিন্তু এদিন উৎসবের মেজাজে মানুষ ভোট দিয়েছেন। নির্বাচনের ফল প্রকাশ হবে রবিবার। তবে এদিন  বিপুল ‘ভোটে’ জয়ী হয়েছে গণতন্ত্র।

 

Related Articles

Back to top button
Close