fbpx
কলকাতাহেডলাইন

ভারতীয় সেনার পরিচয় দিয়ে মিষ্টির অর্ডার, হোয়াটঅ্যাপে পাঠানো বারকোড স্ক্যান করতেই উধাও ৭০ হাজার

অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: ভারতীয় সেনাবাহিনীর নামে হোয়াটসঅ্যাপে পাঠানো ডিজিটাল বারকোড স্ক্যান করে প্রতারণার ঘটনা ঘটল কলকাতায়। এতদিন বিভিন্ন কায়দায় অনলাইন প্রতারণার ঘটনা ঘটলেও এভাবে প্রতারণার ঘটনা এই প্রথম বলে মত লালবাজারের।

জানা গিয়েছে, ওই বারকোড স্ক্যান করার পর ৫ দফায় ৭০ হাজার টাকা উধাও হয়ে যায় যাদবপুরের বিক্রমগড়ের বাসিন্দা চিত্রদীপ চক্রবর্তীর অ্যাকাউন্ট থেকে।

জানা গিয়েছে, স্বাধীনতা দিবসে ১৪ আগস্ট যাদবপুরের একটি মিষ্টির দোকানে ফোনে ২০০ কেজি মিষ্টির অর্ডার দেন এক ব্যক্তি। তিনি বলেন, ১৫ আগস্ট দমদমের সেনা ক্যাম্পে ওই মিষ্টির ডেলিভারি দিতে হবে। সেনাবাহিনীর সকলে তার দোকানের মিষ্টিমুখ করবেন। বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করতে অর্ডারের পাশাপাশি হোয়াটঅ্যাপে নিজের সেনা আইডি কার্ড, সেনাবাহিনীর নাম ও অ্যাকউন্টের বিস্তারিত পাঠান ওই ক্রেতা।

এরপর মিষ্টির দাম মেটানোর জন্য অগ্রিম ২০ হাজার টাকা দেওয়ার কথা জানান দোকানের মালিক। অনলাইনে সেই টাকা পেমেন্ট করা হবে বলে জানান ওই প্রতারক। মিষ্টির দোকানের মালিকের নেট ব্যাঙ্কিং সুবিধা না থাকায় তাঁর পরিচিত চিত্রদীপ চক্রবর্তীর হোয়াটসঅ্যাপ মারফত টাকা লেনদেনের ব্যবস্থা হয়।

চিত্রদীপ জানিয়েছেন, হোয়াটসঅ্যাপে তাঁকে ডিজিটাল কিছু বারকোড পাঠানো হয়। ওই বারকোড স্ক্যান করতে বলা হয়। ৫ বার এইভাবে বারকোড স্ক্যান করতে বলার পর সন্দেহ হতেই ফোন কেটে দেন চিত্রদীপ। তার পরেই টাকা কেটে যাওয়ার মেসেজ ঢুকতে শুরু করে তার মোবাইলে। অনলাইনে অ্যাকাউন্ট চেক করতে গিয়ে দেখেন ৫ বারে মোট ৭০হাজার টাকা তুলে নেওয়া হয়েছে।

আর এই নয়া কায়দার প্রতারণাই ভাবাচ্ছে দুঁদে গোয়েন্দাদের। ইতিমধ্যে তদন্তে নেমেছে যাদবপুর থানা। লালবাজারে অ্যান্টি ব্যাঙ্ক ফ্রড শাখাও তদন্ত শুরু করেছে। যে ব্যাঙ্কের বিস্তারিত সেনার নাম পাঠানো হয়েছে, তা দেখে হতবাক তদন্তকারীরাও। এছাড়াও হোয়াটঅ্যাপ প্রোফাইল ডিপিতে সেনা অফিসারদের ছবি ব্যবহার করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

Related Articles

Back to top button
Close