fbpx
আন্তর্জাতিকএকনজরে আজকের যুগশঙ্খহেডলাইন

বাংলাদেশে হিন্দুদের উপর মৌলবাদী হামলার নেপথ্যে পাকিস্তানের হাত! 

নিজস্ব প্রতিনিধি:  বাংলাদেশে সংখ্যালঘু হিন্দুদের উপর আক্রমণের ঘটনায় বিশ্বজুড়ে নিন্দার ঝড় উঠেছে। দুর্গাপুজোয়  মৌলবাদীদের হামলায় প্রাণ বাঁচাতে মরিয়া চেষ্টা চালাচ্ছেন বাংলাদেশের সংখ্যালঘু হিন্দুরা। কুমিল্লা, ফেনি-সহ একাধিক জায়গায় ঘরবাড়ি পুড়েছে হিন্দুদের। ভাঙচুর করা হয়েছে পুজোর মণ্ডপ ও প্রতিমা। আর এই সমস্ত হামলার নেপথ্যে পাকিস্তানের হাত রয়েছে বলেই মনে করছেন বাংলাদেশের গোয়েন্দারা।

গত বুধবার অষ্টমীর রাতে বাংলাদেশের একাধিক পুজো মণ্ডপে হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। এ পর্যন্ত নোয়াখালির ইসকন মন্দিরের এক সদস্য-সহ খুন হয়েছেন চারজন সংখ্যালঘু হিন্দু। বাংলাদেশ পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায় কোরান অবমাননা করে একটি পোস্ট করার গুজব ছড়িয়ে পড়তেই হামলার ঘটনা ঘটছে। হামলার ঘটনার পরই ভারতের বিদেশমন্ত্রক উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছিল। কিন্তু তারপরেও বাংলাদেশে হিন্দুদের উপর হামলা চলতেই থাকে। যে সমস্ত ঘটনা নিয়ে সর্বত্র নিন্দার ঝড় বইছে। ভারতের প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দল ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছে। আর এই পরিস্থিতিতে শোনা যাচ্ছে ঘটনার নেপথ্যে রয়েছে পাকিস্তান।

শনিবার রাতে বাংলাদেশের শাসক দল আওয়ামি লিগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে দেখা করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের রাষ্ট্রদূত বিক্রম দোরাইস্বামী। সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতন নিয়ে হাসিনা সরকারকে তিনি কড়া বার্তা দিয়েছেন বলে খবর।

অষ্টমীর  ঘটনা নিয়ে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জানান, পূর্ব পরিকল্পিতভাবেই বাংলাদেশের পুজো মণ্ডপে হামলা চালানো হয়েছে। হিন্দু-মুসলিমের মধ্যে থাকা সম্প্রীতির পরিবেশ নষ্ট করতেই এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে, বলে জানিয়েছেন তিনি। আর বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রদপ্তরের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, আফগানিস্তানের দখল তালিবানের হাতে যাওয়ার পর থেকেই ঢাকাতে সক্রিয়তা বেড়েছে পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআইয়ের। তাদের প্রত্যক্ষ মদতে  দুষ্কৃতীদের রাস্তায় নামিয়ে দেওয়া হয়েছিল সেদিন। বিভিন্ন জায়গায় আগে থেকেই তাদের জড়ো করে রাখা হয়েছিল। হেফাজতে ইসলামির একাংশ এবং জামাত-ই-ইসলামির মতো কয়েকটি মৌলবাদী সংগঠনকে ব্যবহার করে আইএসআই এই হিংসার ঘটনা ঘটিয়েছে বলে মনে করছে বাংলাদেশ প্রশাসন।

Related Articles

Back to top button
Close